প্রকাশিত :  ০০:৪৫, ১১ ডিসেম্বর ২০২০

দেশকে অকার্যকর করার এক নতুন বাহানা - এরা কি ৭১ এর পরাজিত প্রেতাত্মার বংশধর?

ইমরান চৌধুরী

দেশকে অকার্যকর করার এক নতুন বাহানা - এরা কি ৭১ এর পরাজিত প্রেতাত্মার বংশধর?

জাতিসংঘ ১৯৫০ সালে এক রিপোর্টে জানিয়েছিল যে, রেস বাদ দিয়ে এথনিক গ্রুপ এ ডাকা হবে সব জনগোষ্ঠীগুলোকে।  তারপর ১৯৯৮ সালে  মার্কিন বিজ্ঞানীরা এক পরিসংখ্যান অনুযায়ী পৃথিবীতে সর্বমোট পাঁচ হাজার বর্ণগোষ্ঠী (এথনিক গ্রুপ) আছে বলে জানিয়েছে। যদিও শুনতে বা পড়তে আশ্চর্য লাগলে লাগতেও পারে - তবুও বলতে চাই যে,  ঐ পাঁচ হাজার বর্ণগোষ্ঠী (এথনিক গ্রুপ) এর মাঝে আমরা ‘বাঙ্গালি’রা তৃতীয় বৃহত্তম এথনিক গ্রুপ - ২৩০ মিলিওন বাঙ্গালি এই পৃথিবীতে বসবাস করে। দ্বিতীয় স্থানে ৪৫০ মিলিওন ‘আরব’ এথনিক গ্রুপ এবং সর্ববৃহৎ এথনিক গ্রুপ ১ দশমিক ৩১ বিলিয়ন জনগোষ্ঠী হলো ‘হান’ (চাইনিজ) সম্প্রদায়।

কিন্তু, কেন জানি বার বার মনে হয় আমরা আমাদের এই বিশাল প্রাপ্তি বা আমাদের এথনিক সম্প্রদায় বা গ্রুপ এর এত সম্মানিত স্থান সম্পর্কে ওয়াকিবহাল নই। এবং এই বিশাল স্থান নিয়ে গর্বও বোধ করি কিÑনা সেটাও ভেবে দেখার মত একটা ব্যাপার । হয়ত বা? আমারই মনে হয় পৃথিবীর মাঝে এক বিরল সম্প্রদায় যারা তাদের পূর্ব পুরুষদের ইতিহাস নিয়ে তেমন একটা জ্ঞান রাখি না বা রাখতে আগ্রহী নই। পূর্ব পুরুষ বলতে নিকটবর্তি তিন বা চার পুরুষ নয়, পূর্ব পুরুষ বলতে হাজার বছর আগের আমাদের এনসেসটার (আমাদের জাতিরÑবর্ণগোষ্টির আদি প্রজন্ম) - এই কয়েক হাজার বছরের পরিভ্রমণকে নিয়ে জানতে অনুচ্ছুক বা উন্নাসিক আমরা। হয়তবো আমরা আমাদের বংশানুক্রমিক উত্তরসূরি পিতামত বা প্রপিতামহদেরকে নিজেদের না পূর্বপুরুষ বা তাদের উত্তর পুরুষ না ভেবে,  অন্য কোন সম্প্রদায়ের অর্ধ বর্বর -   বা সম্পূর্ণ বর্বর - কিংবা যাযাবর এক সম্প্রদায় নয়ত কোন ভিনদেশি আগ্রাসী বর্ণগোষ্ঠীকে নিজেদের পূর্ব পুরুষ ভেবে আত্মতৃপ্তিতে আপ্লত হবার প্রয়াস করি অহেতুক ।