বিপদের গন্ধ পেয়ে নয়া ফন্দি-ফিকির

প্রকাশিত :  ২০:২৮, ০৯ জানুয়ারী ২০২১
সর্বশেষ আপডেট: ২০:৪১, ০৯ জানুয়ারী ২০২১

মেয়ে-জামাই সহ নিজেকেও ‘ক্ষমা’ করতে চাইছেন ট্রাম্প

মেয়ে-জামাই সহ নিজেকেও ‘ক্ষমা’ করতে চাইছেন ট্রাম্প

ওয়াশিংটন: বিপদের গন্ধ পেয়ে এবার নয়া ফন্দি-ফিকির। মেয়ে-জামাই তো বটেই, নিজেকেও ‘ক্ষমা’ করতে চাইছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প! লক্ষ্য একটাই। প্রেসিডেন্টের কুর্সি খালি করার পর মামলা-মোকদ্দমার ঝঞ্ঝাট এড়ানো। 

অপরাধ ক্ষমা করা বা সাজার মেয়াদ কমানোর বিশেষ ক্ষমতা রয়েছে ভারতের রাষ্ট্রপতির। একই রকম সাংবিধানিক ক্ষমতা ভোগ করেন মার্কিন প্রেসিডেন্টও। হোয়াইট হাউসের অন্দরের খবর, এই বিশেষ ক্ষমতা বলেই ক্ষমা প্রদর্শনের তালিকা তৈরি করেছেন ট্রাম্প। হোয়াইট হাউসের কিছু প্রবীণ অফিসার, বেশ কিছু সেলিব্রিটির পাশাপাশি সেখানে নাম রয়েছে স্বয়ং বিদায়ী মার্কিন প্রেসিডেন্টেরও। নাম রয়েছে ট্রাম্পের পরিবারের সদস্য ও ঘনিষ্ঠদের। প্রেসিডেন্টের কুর্সিতে বসার পর একের পর এক বিতর্কে নাম জড়িয়েছে ট্রাম্পের। করফাঁকি, রুশ-যোগ, যৌন হেনস্তা... তালিকাটা দীর্ঘ। বুধবার ক্যাপিটলে রায়টের ঘটনায় বিপদ আরও বেড়েছে। হিংসায় উস্কানি দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে তাঁর বিরুদ্ধে। ফলে কুর্সি ছাড়ার পর বিপদ আসতে পারে পদে পদে। তাই ক্ষমতা হস্তান্তরের আগেই সেই আশঙ্কা সমূলে উপড়ে ফেলতে চাইছেন বিদায়ী মার্কিন প্রেসিডেন্ট। ২০ জানুয়ারি নতুন প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নেবেন জো বাইডেন। যদিও বাইডেনের শপথ অনুষ্ঠানে তিনি উপস্থিত থাকবেন না বলে জানিয়ে দিয়েছেন ট্রাম্প। ফলে বিদায়ী প্রেসিডেন্টের হাতে আর দু’সপ্তাহও সময় নেই। 

ওয়াকিবহাল মহলের দাবি, ১৯ জানুয়ারি প্রেসিডেন্ট পদের শেষ পূর্ণ দিবসে ক্ষমা প্রদর্শনের ঘোষণা করতে পারেন ট্রাম্প। তাঁর এই পদক্ষেপের চুলচেরা বিশ্লেষণ চালাচ্ছেন হোয়াইট হাউসের অফিসার ও আইনি বিশেষজ্ঞরা। কিন্তু বড় প্রশ্ন হল, নিজেকেই ক্ষমা করার ক্ষমতা মার্কিন প্রেসিডেন্টের হাতে রয়েছে কি না। এই বিষয়টি নিয়েই আলোচনা চালাচ্ছেন ট্রাম্পের আইনি দলের সদস্যরা। মার্কিন প্রেসিডেন্ট নিজেই নিজেকে ক্ষমা করেছেন, এমন নজির তৈরি হয়নি। আইন ও সাংবিধানিক বিশেষজ্ঞরা এক্ষেত্রে দ্বিধাবিভক্ত। একাংশের মতে, এই ক্ষমতা প্রেসিডেন্টের নেই। কারণ, সাংবিধানিক বিধি অনুযায়ী নিজেই নিজের বিচারক হওয়া যায় না। অন্য অংশের দাবি, বিশেষ ক্ষমতায় প্রেসিডেন্ট নিজেই নিজেকে ক্ষমা করতে পারবেন না, এমন স্পষ্ট উল্লেখ সংবিধানে নেই। অন্যদিকে হাউস অব রিপ্রেজেন্টিটিভের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি বলেছেন, ট্রাম্প যদি দ্রুত ইস্তফা না দেন, তাহলে হাউস ইমপিচমেন্টের প্রস্তাব আনবে।(বর্তমান পত্রিকা থেকে নেয়া)


Leave Your Comments


আন্তর্জাতিক এর আরও খবর