প্রকাশিত :  ১৯:১৩, ০১ ফেব্রুয়ারী ২০২১

ভিন্ন ধারার ফ্যাশন মৌসুম এবার

ভিন্ন ধারার ফ্যাশন মৌসুম এবার

নাহিদ জায়গীরদার: এবারের ফ্যাশন মৌসুমটি অন্যান্য বারের চেয়ে আলাদা হবে। করোনা মহামারীর কারণে ঐতিহ্যবাহী রানওয়ে ফরমেট ভেংগে ডিজিটাল মাধ্যমে অথবা সীমিত পরিসরে সামান্য দর্শকের উপস্থিতিতে অনুষ্ঠিত হবে ''নিউ ইয়র্ক ফ্যাশন উইক'' (এনওয়াইএফডাব্লু)। 

এনওয়াইএফডাব্লু এর পরে লন্ডন ফ্যাশন উইকটি ১৭ ই সেপ্টেম্বর থেকে ব্যক্তিগত ও ডিজিটাল ইভেন্টগুলির মিশ্রণের চেষ্টা করবে, কারণ সাম্প্রতিক সংক্রমণের হার নিয়ে যুক্তরাজ্যে নতুন বিধিনিষেধের বিরুদ্ধে আয়োজকরা লড়াই করছেন। এবং ক্রমবর্ধমান আশঙ্কা রয়েছে যে ইউরোপের বিভিন্ন অঞ্চলেও কোভিড -১৯ নতুন আকারে দেখা দিবে। মিলন এবং প্যারিস উভয়ই মাসের শেষের দিকে বেশ কয়েকটি ফ্যাশন শো করার পরিকল্পনা করছে।

এদিকে, জনপ্রিয় সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাপ টিকটক লাইভস্ট্রিম রানওয়ে শো এবং উপস্থিত ক্যাপসুল সংগ্রহের জন্য অন্যদের মধ্যে লুই ভিটন, অ্যালিস + অলিভিয়া এবং সেন্ট লরেন্টের মতো লেবেলগুলির সাথে অংশীদার হয়ে নিজের অনলাইন ফ্যাশন মাসের মধ্যে জেনার-জেড শ্রোতাদের জড়িত করতে চাইছে।

নিউইয়র্ক সিটি বিশ্বের ফ্যাশন রাজধানী এবং নিউইয়র্ক ফ্যাশন উইক এই শহরের চৌকসতা উদযাপন করে .. মহামারীটি খুব বেশি দূরে, তবে ইভেন্টের আয়োজক আইএমজি জনস্বাস্থ্যের দিকনির্দেশনা মেনে এনওয়াইএফডাব্লুয়ের সাথে এগিয়ে চলেছে।”

কঠোর পরিশ্রমী ওমর চৌধুরী নামের সাউন্ডস্পেস নামের একটি বুকিং এজেন্ট।

লন্ডনের যুক্তরাজ্যে জন্ম নেওয়া ওমর ১৭ বছর বয়স থেকেই নিউইয়র্কে বসবাস করছেন। আজ তিনি নিউইয়র্ককে নিজের বাড়িতে থাকেন। ২০১০ সালে ওমর তার জনসংযোগ সংস্থা সাউন্ডস্পেস চালু করেছিলেন।

সাউন্ডস্পেস ইন্টারন্যাশনাল এমন একটি জনসংযোগ সংস্থা ছিল যা আমেরিকাতে নৃত্য সংগীতকে মূলধারায় নিয়ে আসে।

সারা বিশ্ব এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে সুপারস্টার ডিজে, নাইটক্লাবগুলি প্রচার করে।

ওমর চৌধুরী নিউ ইয়র্কের ফ্যাশন দৃশ্যে জড়িত হয়েছিলেন। ফ্যাশন শোতে গিয়ে বিভিন্ন ডিজাইনার এবং মডেলগুলির সাথে দেখা করছেন। ২০১৫ সালে ওমর তাঁর কম্পিউটার পর্ব, সাউন্ডস্পেস ফ্যাশনে একটি নতুন অধ্যায় শুরু করেছিলেন।

২০১৯ এর মধ্যে সাউন্ডস্পেস নিউ ইয়র্ক ফ্যাশন সপ্তাহে বাংলাদেশ এবং ভারত থেকে ডিজাইনার আনতে শুরু করেছিল। গত ফেব্রুয়ারি মাসে সাউন্ডস্পেসের ওমর চৌধুরী আয়োজিত নিউইয়র্ক ফ্যাশন সপ্তাহে অংশ নিয়েছিলেন বাংলাদেশ থেকে ডিজাইনার পিয়াল হোসাইন। 

নিউইয়র্কের বাংলাদেশের গণমাধ্যমগুলি বাংলাদেশে একটি বিস্তৃত কভারেজ করেছে। ওমরের দৃষ্টিভঙ্গি হলো ফ্যাশন এবং সংগীতের জন্য বাংলাদেশকে মানচিত্রে স্থাপন করা। ওমরের ফ্যাশনে উত্সর্গ করা একেবারে বিস্ময়কর। তিনি এই নজিরবিহীন সময়ে নিউ ইয়র্ক ফ্যাশন ইন্ডাস্ট্রিকে চ্যাম্পিয়ন করতে মহামারী জুড়ে বিভিন্ন সরকারী কর্মকর্তাদের সাথে কঠোর পরিশ্রম করে চলেছেন। প্লিটস ফ্যাশন শো ১৫ সেপ্টেম্বর একটি ম্যানহাটন গ্যালারীতে হয়েছে। প্লিটস ফাহিয়ন শো বিশ্বজুড়ে বিভিন্ন ডিজাইনারকে আকর্ষণ করে।

গত ছয় মাস ফ্যাশন শিল্পের জন্য অত্যন্ত কঠিন ছিল, এবং আমরা ডিজাইনার, মডেল, স্টাইলিস্টস, চুল এবং মেকআপ শিল্পী, ফটোগ্রাফার এবং ওমর চৌধুরীর মতো এজেন্ট যারা এনওয়াই ফ্যাশনে আন্তর্জাতিক ডিজাইনারদের নিয়ে আসছেন তাদের জন্য একটি সুযোগ দেওয়ার জন্য আমরা গর্বিত।




Leave Your Comments


শিল্প-সংস্কৃতি এর আরও খবর