প্রকাশিত :  ১৫:৪৯, ১৪ অক্টোবর ২০২১

চুনারুঘাটে শিকল বেঁধে দেবর ভাবিকে নির্যাতনের ঘটনায় মামলা, গ্রেপ্তার ১

 চুনারুঘাটে শিকল বেঁধে দেবর ভাবিকে নির্যাতনের ঘটনায় মামলা, গ্রেপ্তার ১

হবিগঞ্জের চুনারুঘাটে অনৈতিক কাজের অভিযোগে দেবর ভাবিকে শিকল দিয়ে বেঁধে নির্যাতন করার ঘটনায় চুনারুঘাট থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।
গত বুধবার রাতে নির্যাতনে শিকার গৃহবধূ মারিয়া আক্তার বাদি হয়ে ভাসুর ধুপরাজ মিয়াকে প্রধান আসামী করে ৫ জনের নাম উল্লেখ করে মামলা দায়ের করেন।
মামলা দায়ের পর পুলিশ মারিয়ার স্বামী ভিংরাজ মিয়াকে গ্রেপ্তার করেছে। বৃহস্পতিবার (১৪ অক্টোবর) দুপুরে চুনারুঘাট থানা পুলিশ তাকে ওই মামলায় আদালতে প্রেরণ করেন।
এর আগে সোমবার (১১ অক্টোবর) দিবাগত রাত ১১টার দিকে অসামাজিক কাজে জরিত থাকার অভিযোগ করে উপজেলার কোনাগাঁও গ্রামের ভিংরাজ মিয়ার স্ত্রী মারিয়া আক্তার (২৬) ও একই এলাকার আবুল কালামের ছেলে শাকিল মিয়া (২০) নামের এক যুবককে হাত-পায়ে শিকলবন্ধি করে রাস্তায় হাটিয়ে ইউনিয়ন কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। মঙ্গলবার বিকেলে দুইজনকে শেকলে বেঁধে রাস্তা দিয়ে হাটানোর ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়। এরপর এলাকায় তোলপাড় শুরু হয়।
স্থানীয়রা জানান, অনৈতিক কাজের অভিযোগ এনে আব্দুস ছামাদ পুত্রবধূ মারিয়া ও তাদের নিকটাত্মীয় শাকিলের হাত-পা শিকল দিয়ে বেঁধে রাখেন। গত সোমবার রাতে তাদেরকে মারধরও করা হয়। পরে মঙ্গলবার সকালে দুইজনকে শিকল দিয়ে বেঁধে টেনে-হিঁচরে গাজীপুর ইউনিয়ন পরিষদের কার্যালয়ে নিয়ে আসা হয়। সেখান থেকে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা তাদেরকে পরিবারের জিম্মায় দেন।
তবে নির্যাতনের শিকার গৃহবধূর অভিযোগ, তার স্বামী গোপনে আরেকটি বিয়ে করেছেন। তাকে বাড়ি থেকে বিদায় করতে এবং ওই মেয়েকে ঘরে তুলতে শশুড় বাড়ির লোকজন এই নাটক সাজিয়েছেন।
শাকিলের মা মমিনা খাতুন জানান, তার ছেলে নির্দোষ। তাকে মিথ্যা ঘটনায় জড়ানো হয়েছে। তিনি এর সুবিচার কামনা করেন।
এ বিষয়ে গাজীপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হুমায়ুন কবীর জানান, ছামাদ মিয়া তার পুত্রবধু ও তরুণের বিরুদ্ধে অনৈতিক কাজের অভিযোগ তুলে আমার এখানে নিয়ে আসেন। মেয়েটি এক বাচ্চার মা। পরে দুইজনকে তাদের আত্মীয়ের জিম্মায় দিয়েছি। ছামাদ মিয়ার অভিযোগ সত্য কি না বিষয়টি সামাজিকভাবে বসে খতিয়ে দেখা হবে।
চুনারুঘাট থানার (ওসি) আলী আশরাফ জানান, এঘটনায় গৃহবধু মারিয়া বাদী হয়ে ভাসুর ধুপরাজ মিয়াকে প্রধান আসামী করে ৫ জনের নাম উল্লেখ করে মামলা দায়ের করেন। অভিযুক্ত স্বামী ভিংরাজ মিয়াকে গ্রেপ্তার করে আদালতে পাঠানো হয়েছে। অন্যান্য আসামীদের গ্রেপ্তার অভিযান অব্যাহত আছে।




Leave Your Comments


সিলেটের খবর এর আরও খবর