প্রকাশিত :  ১৭:৩৭, ১৪ জানুয়ারী ২০১৯

চাকরি নির্ভরতা কমিয়ে উদ্যোক্তা হতে হবে: শিক্ষার্থীদের ইউজিসি চেয়ারম্যান

 চাকরি নির্ভরতা কমিয়ে উদ্যোক্তা হতে হবে: শিক্ষার্থীদের ইউজিসি চেয়ারম্যান

জনমত রিপোর্ট ।। বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. আব্দুল মান্নান বলেছেন, ‘বড় বড় শিল্পোদ্যোক্তাদের প্রোফাইল খুঁজলে বড় বড় ডিগ্রি পাওয়া যাবে না। শিক্ষার্থীদের চাকরি নির্ভরতা কমিয়ে উদ্যোক্তা হতে মনোযোগী হতে হবে।’

রবিবার (১৩ জানুয়ারি) চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদের সমন্বিত নবীনবরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

ইউজিসি চেয়ারম্যান বলেন, ‘বাংলাদেশের বর্তমান পোশাক শিল্প একজন আমলার হাত ধরে শুরু হয়েছিল। যুদ্ধচলাকালীন পাবনা জেলার ডিসি নুরুল কাদের খান চট্টগ্রামের কালুরঘাতে দক্ষিণ কোরিয়ার সহায়তায় যুদ্ধপরবর্তীতে প্রথম পোশাক কারখানা স্থাপন করেছিলেন দেশের অর্থনীতির জন্য। এর প্রথম চালান ছিল মাত্র ১২শ ডলার। কিন্তু বর্তমানে তা ২৫-৩০ বিলিয়ন ডলার। তাই শিক্ষার্থীদের চাকরি নির্ভরতা কমিয়ে উদ্যোক্তা হতে হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘বিশ্বের পোশাক শিল্প সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান দ্বিতীয়। ৪০ লাখ মানুষের কর্মসংস্থান রয়েছে শিল্পখাতে। এর মধ্যে ৮০ শতাংশ নারী। পোশাক শিল্পের প্রসার ঘটলেও কর্মসংস্থানের পথ সংকুচিত হচ্ছে। প্রযুক্তিগত উন্নয়নের ফলে অনেক মানুষের কাজ একসাথে হচ্ছে। তাই বলা হয়, বাংলাদেশ চতুর্থ শিল্প বিপ্লবে প্রবেশ করেছে।’ 

চবির সাবেক এই উপাচার্য বলেন, ‘আমরা আশা করছি, ২০৩০ সাল নাগাদ বিশ্বের ২৬তম অর্থনৈতিক সমৃদ্ধ দেশ হিসেবে আত্মপ্রকাশ করবে বাংলাদেশ। অর্থনৈতিক মানদণ্ডে অস্ট্রেলিয়া, মালেশিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকাসহ বেশ কয়েকটি দেশকে পেছনে ফেলানো সম্ভব হবে। কারণ অধিক তরুণ জনশক্তিনির্ভর আমাদের দেশ।’ 

অনুষ্ঠানের উদ্বোধন ঘোষণা করে চবি উপাচার্য প্রফেসর ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী বলেন, ‘আমাদের মেধাবী-তরুণ শিক্ষার্থীরা অপার সম্ভাবনাময়। একটি কঠিন প্রতিযাগিতামূলক ভর্তি পরীক্ষার মাধ্যমে নবীন শিক্ষার্থীরা দেশের শীর্ষ এ বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়ার সুযোগ লাভ করেছে। এ জন্য তারা অত্যন্ত সৌভাগ্যবান।’ 

উপাচার্য আরও বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয় হচ্ছে জ্ঞান আহরণের সর্বোচ্চ পাদপীঠ। এ উন্মুক্ত পরিবেশে শিক্ষার্থীরা যে যত বেশি জ্ঞান আহরণে ব্রতী হবে, সে তত বেশি তার জ্ঞান ভাণ্ডারকে সমৃদ্ধ করার সুযোগ লাভ করবে।’ 

মার্কেটিং বিভাগের প্রফেসর ড. মো. জাভেদ হোসেন ও সহযোগী অধ্যাপক দীপান্বিতা ভট্টাচার্য্যের সঞ্চালনায় ও অনুষদের ডিন ড. এএফএম আওরঙ্গজেবের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন উপ-উপাচার্য প্রফেসর ড. শিরীণ আখতার ও হিসাববিজ্ঞান বিভাগের সুপার নিউমেরোরি প্রফেসর ড. মনজুর মোরশেদ মাহমুদ।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর প্রফেসর আলী আজগর চৌধুরী, পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক (ভারপ্রাপ্ত) ড. মুস্তাফিজুর রহমান ছিদ্দিকী, শাহজালাল হলের প্রভোস্ট প্রফেসর ড. মো. সুলতান আহমেদ, ছাত্র নির্দেশনা ও পরামর্শ কেন্দ্রের পরিচালক প্রফেসর ড. আহমেদ সালাউদ্দিন, প্রীতিলতা হলের প্রভোস্ট পারভীন সুলতানাসহ আরো অনেকে।



Leave Your Comments


শিক্ষা এর আরও খবর