প্রকাশিত :  ১১:৩৯, ০৫ ফেব্রুয়ারী ২০১৯
সর্বশেষ আপডেট: ১৮:২১, ০৫ ফেব্রুয়ারী ২০১৯

সরকারের এ মেয়াদেই শুরু হবে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-২ উৎক্ষেপণ কার্যক্রম

 সরকারের এ মেয়াদেই শুরু হবে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-২ উৎক্ষেপণ কার্যক্রম

জনমত রিপোর্ট ।। মহাকাশে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করছে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১। ইতিমধ্যে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-২ নিয়ে চিন্তাভাবনা শুরু করেছে সরকার। বর্তমান সরকারের নির্বাচনী ইশতেহারেও রয়েছে এ মেয়াদে দ্বিতীয় স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের বিষয়টি। এরই ধারাবাহিকতায় দ্বিতীয় স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের নীতিগত সিদ্ধান্তও চূড়ান্ত হয়েছে বলে জানা যায়। এমনকি বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-২ এরপর বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-৩ও বাস্তবায়ন হতে পারে।

আগামী ৩ মাসের মধ্যেই বঙ্গবন্ধু-২ স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ কার্যক্রম শুরু হবে বলে জানান বাংলাদেশ কমিউনিকেশন্স স্যাটেলাইট কোম্পানি লিমিটেডের (বিসিএসসিএল) চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদ। স্যাটেলাইটটি কোন ধরনের হবে এবং কী সেবা দেবে- তা নিয়ে (বিসিএসসিএল) চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদ যুগান্তরকে জানান, বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইটের অভিজ্ঞতার ওপর ভিত্তি করেই বঙ্গবন্ধু-২ কী ধরনের স্যাটেলাইট হবে সেটি নির্ধারণ করা হবে আমাদের টেলিভিশন চ্যানেলগুলো বঙ্গবন্ধু-১ থেকে পরিপূর্ণ সেবা গ্রহণ করার পর আমরা যে শিক্ষা পাব তার ভিত্তিতে আমরা বঙ্গবন্ধু-২ স্যাটেলাইট কী হবে তা চিন্তা করব। এ সময় বাংলাদেশ কমিউনিকেশন্স স্যাটেলাইট কোম্পানি লিমিটেডের (বিসিএসসিএল) চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদ যুগান্তরকে আরও বলেন, বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-২ এর কার্যক্ষমতা নিঃশেষ হওয়ার পরে আমরা বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-৩ এর কথাও চিন্তা করব।

মহাকাশে বর্তমানে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্বকারী স্যাটেলাইট বঙ্গবন্ধু-১ একটি কমিউনিকেশন্স স্যাটেলাইট। এটি মূলত নিরবচ্ছিন্ন টেলিযোগাযোগ ব্যবস্থা চালু রাখতে এবং টিভি চ্যানেলের সম্প্রচারে মূল ভূমিকা রাখবে। পরবর্তী স্যাটেলাইটটি হাইস্পিড ডাটা ট্রান্সফার এবং দুর্গম এলাকায় ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট পৌঁছাতে কাজে আসবে এমন স্যাটেলাইট হতে পারে বলে ইঙ্গিত দেন বাংলাদেশ কমিউনিকেশন্স স্যাটেলাইট কোম্পানি লিমিটেডের চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদ। তবে কমিউনিকেশন্স স্যাটেলাইটও হতে পারে বলে যোগ করেন তিনি।

বর্তমানে বিশ্বজুড়ে ১৩টির বেশি ধরনের স্যাটেলাইট রয়েছে; এসব স্যটেলাইটের কাজের ধরনও ভিন্ন। কিছু স্যাটেলাইট ইন্টারনেট সংযোগ, টেলিফোন সংযোগ, উড়ন্ত বিমানে নেটওয়ার্ক প্রদান, দুর্গম এলাকায় নেটওয়ার্ক প্রদান, জিপিএস সংযোগসহ নানা কাজে ব্যবহৃত হয়।

ড. শাহজাহান মাহমুদ বলেন, প্রথম স্যাটেলাইটের মতো দ্বিতীয় স্যাটেলাইটের জন্য বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা নতুন করে তৈরি করতে হবে না। কোম্পানি তৈরি করতে হবে না, গ্রাউন্ড স্টেশন তৈরি করতে হবে না, অরবিটাল স্লট ভাড়া করতে হবে না, ফলে কাজটা অনেক সহজ হবে।

দ্বিতীয় স্যাটেলাইট নিয়ে সরকারের পদক্ষেপ সম্পর্কে ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তিমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার যুগান্তরকে বলেন, যেহেতু সরকারের ইশতেহারে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-২ সম্পর্কে উল্লেখ রয়েছে, সুতরাং আমরা সরকারের এ মেয়াদেই স্যাটেলাইট-২ বাস্তবায়ন করব। ইতিমধ্যেই বাংলাদেশ কমিউনিকেশন্স স্যাটেলাইট কোম্পানি বঙ্গবন্ধু-২ এর ব্যাপারে প্রস্তুতি শুরু করেছে বলেও জানান মন্ত্রী। বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-২ কী ধরনের হবে এ বিষয়ে জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, আমরা এখনও পর্যন্ত শুধু যাচাই-বাছাই পর্যায়ে রয়েছি; কী ধরনের হবে কী সুবিধা দেবে তা নির্দিষ্ট করে এখনও বলা যাচ্ছে না।



Leave Your Comments


বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি এর আরও খবর