img

দীর্ঘায়ু পেতে মেনে চলুন কিছু নিয়ম

প্রকাশিত :  ০৫:৫৯, ১৯ জানুয়ারী ২০২৩

দীর্ঘায়ু পেতে মেনে চলুন কিছু নিয়ম

সুস্থ-সবল থাকার অন্যতম দাওয়াই হল স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়া। শরীরের হাল কেমন থাকবে, তার অনেকটাই নির্ভর করে আমাদের খাদ্যাভ্যাসের উপর। অস্বাস্থ্যকর খাদ্যাভ্যাসের কারণেই আজকালকার দিনে বেশিরভাগ মানুষ বিভিন্ন জটিল ও দীর্ঘস্থায়ী রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন। তাই সময় থাকতেই সতর্ক হওয়া প্রয়োজন। অল্প বয়স থেকেই স্বাস্থ্যকর খাবারের অভ্যাস গড়ে তোলা খুব গুরুত্বপূর্ণ। ডায়েট ঠিক থাকলেই বহুদূরে থাকবে রোগবালাই।

একঝলকে দেখে নেওয়া যাক, শরীর সর্বদা ফিট রাখতে রোজকার খাওয়াদাওয়ার ঠিক কী কী বদল আনা প্রয়োজন।

প্রচুর পানি পান করুন

 জুস, স্মুদি, কোল্ড ড্রিঙ্কস, স্পোর্টস ড্রিঙ্কস এবং সোডায় প্রচুর চিনি থাকে। এগুলো বেশি খেলে ওজন বাড়ার পাশাপাশি দাঁতের ক্ষয় হতে পারে। এর পরিবর্তে সারা দিনে প্রচুর পানি পান করুন। পর্যাপ্ত পানি পান করলে ডিহাইড্রেশন-সহ আরও অনেক শারীরিক সমস্যা প্রতিরোধ হতে পারে। পানি পান করলে আপনি সুস্থ-সবল ও ক্যালোরি মুক্ত থাকবেন। শুধু পানি খেতে ভালো না লাগলে, আপনি বাড়িতেই লেমনেড, ব়্যাস্পবেরি লেমোনেড, দারুচিনি আপেল পানি, ইত্যাদি বিভিন্ন ফ্লেভারের পানি তৈরি করে খেতে পারেন।

প্রসেসড স্ন্যাকস খাবেন না

 ভাজাভুজি, চিপস, কুকিজ, ফাস্ট ফুডের প্রতি ছোটো-বড় সকলেরই লোভ বেশি। কিন্তু এই সব খাবারে অতিরিক্ত চিনি,প্রিজারভেটিভ, লবণ এবং অস্বাস্থ্যকর ফ্যাট থাকে, যা আমাদের স্বাস্থ্যের পক্ষে খুবই ক্ষতিকর। এর পরিবর্তে তাজা ফল, শাকসবজি, স্যালাড এবং বিভিন্ন রকমের বাদাম খান। এগুলোতে প্রচুর পুষ্টি থাকে এবং পেটও ভরায়।

রেড মিট খাবেন না

 প্রসেসড মিট এবং রেড মিট বেশি খাওয়ার ফলে ক্যান্সার, হৃদরোগ এবং অন্যান্য দীর্ঘস্থায়ী অসুস্থতা হওয়ার ঝুঁকি বাড়ে। তাই, আপনার রোজকার ডায়েটে উদ্ভিদ-ভিত্তিক প্রোটিন বেশি করে অন্তর্ভুক্ত করুন। বিনস, বিভিন্ন ডাল এবং টফু জাতীয় খাবার বেশি করে খান।

শারীরিকভাবে সক্রিয় থাকা

 শুধু স্বাস্থ্যকর খাবার খেলেই হবে না। প্রয়োজন সঠিক শরীরচর্চাও। নিয়মিত ওয়ার্কআউট মানসিক ও কার্ডিওভাসকুলার স্বাস্থ্যের উন্নতি করে, পেশী ও হাড় শক্তিশালী করে, ফিটনেসের মাত্রা বাড়ায়। মর্ণিং ওয়াক বা সাধারণ যোগব্যায়াম করতে পারেন। খেলাধুলা, সাইক্লিং, সাঁতার কাটা, অ্যারোবিক্স করতে পারেন। তবে অবশ্যই আপনার শরীরের ক্ষমতা অনুযায়ী শরীরচর্চা করুন। জোর করে কঠিন শরীরচর্চা করলে হিতে বিপরীত হতে পারে।

ঘরে তৈরি খাবার খান

 সর্বদা ঘরে তৈরি খাবার খান। তবে ডিপ ফ্রাইং, ব্রেডিং এবং গ্রিলিং এড়িয়ে চলুন। এর পরিবর্তে বেক করা খাবার, সিদ্ধ অথবা স্টার ফ্রাই করে খেতে পারেন।

সূত্র: বোল্ডস্কাই

img

ঈদের পর ফিট থাকতে করণীয়

প্রকাশিত :  ১১:২৩, ২০ জুন ২০২৪

উৎসব মানেই যেন পেট পুরে খাওয়া। ফিটনেস বা সুঠাম দেহ বলে যে একটা বিষয় আছে, তা আমরা ভুলে যাই। ভুললেই কিন্তু বিপত্তি! শরীর যেন বিগড়ে না যায়, সেদিকে খেয়াল রাখা জরুরি। ঈদের পর ফিটনেস সচেতনদের ভাবতে হয় অনেক কিছুই। জেনে নিন বিরতির পর কীভাবে শুরু করবেন ব্যায়াম।  

শরীরচর্চায় ছন্দপতন হলে, একটু একটু করে আবার ব্যায়াম শুরু করুন। কারণ হুট করে আগের মতো ছন্দে ফেরাটা কঠিন। ব্যায়ামের শুরুতেই অল্প দূরত্বে দৌড়ে নিলে শরীর উষ্ণ হবে। এক্ষেত্রে অবশ্য সাইক্লিং, দড়ি লাফানো খুব ভালো ব্যায়াম। দ্রুত ওজন কমাতে বেঞ্চ বেলি, পুশআপ দিতে পারেন। প্রথম দিকে অল্পতে কষ্ট হলেও নিয়মিত করলে আগের অবস্থানে ফিরে যেতে বেশি সময়ের প্রয়োজন হবে না।

অনেক দিন বিরতির পর টানা ব্যায়াম করবেন না। দরকার হলে মিনিট দশ করার পর বিশ্রাম নিন। দিনের শুরুতে ব্যায়াম করার চেষ্টা করবনে। মানে, ঘুম থেকে উঠে নাশতা খাওয়ার আগে শরীরচর্চা করার চেষ্টা করলে বেশি উপকার পাবেন। 

গরমে কারণে প্রচুর পরিমাণে পানি পান করবেন। দিনে ভারী খাবারের পাশাপাশি ফলজাতীয় খাবারের পরিমাণ বাড়িয়ে দিন। মাংস, পোলাও, খিচুড়ি, বিরিয়ানি, কাবাব আর বোরহানি-কোমল পানীয় না খেয়ে শাকসবজি খাওয়া বাড়িয়ে দিন। 

হৃদরোগ, উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস, স্থূলতা, আর্থ্রাইটিস থেকে রক্ষা পেতে শরীরচর্চার কোনো বিকল্প এখন অবধি আবিষ্কার হয়নি। দীর্ঘ বিরতির পর শরীরচর্চা শুরু করলে মাংসপেশিতে ব্যথা ও ইনজুরি হতে পারে, হৃৎপিণ্ডও হঠাৎ তাল মেলাতে পারবে না। তাই ক্ষেত্রবিশেষে প্রয়োজন মনে করলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে পারেন।