img

পশ্চিমবঙ্গে তৃণমূল নেতা-নেত্রীর যে ছবি ভাইরাল

প্রকাশিত :  ০৬:০১, ২৫ জানুয়ারী ২০২৩

পশ্চিমবঙ্গে তৃণমূল নেতা-নেত্রীর যে ছবি ভাইরাল

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: তৃণমূল বিধায়ক অসিত মজুমদারের পা টিপে দিচ্ছেন দলের পঞ্চায়েত সমিতির সদস্য রুমা রায় পাল

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে পশ্চিমবঙ্গে ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক দল ‘তৃণমূল’ বিধায়ক অসিত মজুমদারের একটি ছবি, যা নিয়ে শাসক দলটিকে তীব্র কটাক্ষ করেছে ভারতের কেন্দ্রীয় ক্ষমতাসীন দল বিজেপি। বিষয়টি নিয়ে রাজনৈতিক মহলে চলছে তীব্র সমালোচনা ও ক্ষোভ।

ছবিতে দেখা যায়, দলীয় কর্মীর বাড়িতে বিছানায় হেলান দিয়ে বিশ্রাম নিচ্ছেন তৃণমূল বিধায়ক অসিত মজুমদার। তার পা টিপে দিচ্ছেন দলের পঞ্চায়েত সমিতির সদস্য রুমা রায় পাল।

জানা গেছে, গত ২০ জানুয়ারি চুঁচুড়ার বিধায়ক অসিত মজুমদার মমতা বন্দোপাধ্যায়ের সুরক্ষা কবজ কর্মসূচি করেন তারই বিধানসভার দেবানন্দপুর পঞ্চায়েত এলাকায়। সারাদিনের কাজ শেষে এলাকার দলীয় সদস্য পীযূষ ধরের বাড়িতে রাতও কাটান। বাড়ির বিছানায় হেলান দিয়ে বিশ্রাম নেওয়ার সময় রুমা রায় পাল বিধায়কের পা টিপে দেন।

বিধায়কের পা টিপে দেওয়ার সেই ছবি রুমা পাল নিজেই তার ফেসবুক প্রোফাইলে আপলোড করে লেখেন, “no caption, শুধু বলি আমার গুরু, আমার ভগবান, যার সেবা করে আমি ধন্য।”

এ ঘটনায় বিজেপির হুগলি সাংগঠনিক জেলা সম্পাদক সুরেশ সাউ কটাক্ষ করে বলেন, “বিধায়কের পদসেবা করলে তবেই পদ এবং ভোটের টিকিট পাওয়া যায়।”

যদিও ঘটনা প্রসঙ্গে বিধায়ক অসিতের সাফাই, তার পায়ে অস্ত্রোপচার হয়েছে, সেলাই পড়েছে ১০৮টি। সেই অবস্থায় ‘দিদির সুরক্ষা কবচ’ কর্মসূচিতে গিয়ে প্রচণ্ড পা ব্যথা হয় তার। অসিত বলেন, “দলের কর্মী হিসেবে নয়, একজন মেয়ে, একজন বোন হিসেবে পা টিপে দিয়েছেন রুমা। এতে অন্যায় কিছু নেই। বিজেপির আহাম্মকরা কোনও শিক্ষা পায়নি তাই এসব বলছে।” সূত্র: আনন্দবাজার অনলাইন

img

গাজায় ধ্বংসস্তূপ পরিষ্কারে সময় লাগতে পারে ১৫ বছর

প্রকাশিত :  ১০:২০, ১৬ জুলাই ২০২৪
সর্বশেষ আপডেট: ১০:২৫, ১৬ জুলাই ২০২৪

টানা ৯ মাসেরও বেশি সময় ধরে গাজা ভূখণ্ডে চালানো ইসরাইলের হামলায় এখন পর্যন্ত নিহত হয়েছেন ৩৮ হাজারেরও বেশি ফিলিস্তিনি। এই আগ্রাসনে গাজা ভূখণ্ড পরিণত হয়েছে ধ্বংসস্তূপে।

ফিলিস্তিনে নিযুক্ত জাতিসংঘের শরণার্থীবিষয়ক সংস্থা ইউএনআরডব্লিউএ জানিয়েছে, পরিস্থিতি এতোটাই ভয়াবহ যে, গাজায় যে মাত্রায় ধ্বংসযজ্ঞ চলছে, তাতে ধ্বংসস্তূপ পরিষ্কারে সময় লাগতে পারে ১৫ বছর।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইসরাইলের আগ্রাসনের কারণে গাজা উপত্যকায় সৃষ্ট ধ্বংসস্তূপ পরিষ্কার করতে ১৫ বছর সময় লাগবে বলে ইউনাইটেড নেশনস রিলিফ অ্যান্ড ওয়ার্কস এজেন্সি ফর প্যালেস্টাইন রিফিউজিস (ইউএনআরডব্লিউএ) জানিয়েছে।

জাতিসংঘের পরিবেশ কর্মসূচির (ইউএনইপি) একটি মূল্যায়নের বরাত দিয়ে সোমবার সংস্থাটি বলেছে, অবরুদ্ধ এই উপত্যকাটির পরিচ্ছন্নতার জন্য ৪০ মিলিয়ন টন ধ্বংসস্তূপ অপসারণের প্রয়োজন হবে।

ইউএনআরডব্লিউএ বলেছে, বিভিন্ন অবকাঠামোর এসব ধ্বংসাবশেষ ও ধ্বংসস্তুপ গাজা উপত্যকার মানুষের জন্য মারাত্মক হুমকি সৃষ্টি করেছে, কারণ এতে অবিস্ফোরিত বহু বোমা এবং ক্ষতিকারক বিভিন্ন পদার্থ থাকতে পারে।

সংস্থাটি বলেছে, ধ্বংসস্তুপ অপসারণের জন্য ১০০টিরও বেশি ট্রাকের প্রয়োজন হবে এবং ৫০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলারেরও বেশি খরচ হবে।

অন্যদিকে ইউএনইপি বলেছে, গাজার কিছু ধ্বংসাবশেষ অ্যাসবেস্টস দ্বারা দূষিত। বিষাক্ত এই খনিজ ক্যান্সারসহ ফুসফুসের রোগ সৃষ্টি করে। সংস্থাটি আরও বলেছে, গাজার ভবনগুলোর ধ্বংসাবশেষের নিচে বিপুল সংখ্যক মানুষের দেহাবশেষ চাপা পড়ে আছে।

এদিকে সোমবার দক্ষিণ ও মধ্য গাজায় হামলা চালিয়েছে ইসরাইল। গত শনিবার ‘নিরাপদ অঞ্চল’ হিসেবে বিবেচিত হওয়া আল-মাওয়াসিতে হামলা চালায় ইসরাইলি বাহিনী। এই হামলার দুইদিন না যেতেই আবার হামলা চালিয়েছে ইসরাইল। 

বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, ফিলিস্তিনি প্রতিরোধ আন্দোলন হামাসের উপর আরো চাপ সৃষ্টির জন্যই এই কৌশল নিয়েছে দেশটি।

গাজা উপত্যকার আল-মাওয়াসিতে হাজারো বাস্তুচ্যুত ফিলিস্তিনি আশ্রয় নিয়েছিল। জায়গাটি ছিল তাঁবুতে পরিপূর্ণ। শনিবার ইসরাইলের আকস্মিক হামলায় ৯০ জন নিহত এবং অন্তত ৩ শতাধিক আহত হওয়ার খবর পাওয়া যায়। সোমবারের হামলায় ঠিক কতজন নিহত হয়েছে তা নির্দিষ্ট করে নিশ্চিত করেনি রয়টার্স।

বাস্তুচ্যুত ব্যক্তিরা রয়টার্সকে বলেছেন, চতুর্দিকে ধ্বংস্তুপের মধ্যে তারা এখন কোথায় যাবে সে সম্পর্কে কোন ধারণা নেই।