img

প্রতি শ্রেণিতেই সনদ পাবে শিক্ষার্থীরা

প্রকাশিত :  ০৯:৩২, ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২৩

আগামী বছর ষষ্ঠ শ্রেণি থেকেই শিক্ষার্থী রেজিস্ট্রেশন

প্রতি শ্রেণিতেই সনদ পাবে শিক্ষার্থীরা

শুধু অষ্টম বা নবম শ্রেণিতে গিয়ে নয়, আগামী বছর ষষ্ঠ শ্রেণি থেকেই শুরু হবে শিক্ষার্থীদের রেজিস্ট্রেশন। এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে শিক্ষা বোর্ডগুলো। এ লক্ষ্যে কার্যক্রম শুরু হয়েছে এবং নতুন একটি অ্যাপস তৈরি করা হচ্ছে। এই অ্যাপস ব্যবহার করে শিক্ষার্থীদের পারদর্শিতার তথ্য রেকর্ড রাখা হবে এবং বছর শেষে একটি সনদ দেওয়া হবে।

আগে শুধু নবম শ্রেণিতে গিয়ে শিক্ষার্থীদের রেজিস্ট্রেশন করানো হতো। জেএসসি চালুর পর অষ্টম শ্রেণিতে রেজিস্ট্রেশন করা হতো এবং অষ্টম শ্রেণি শেষে সনদ পেত শিক্ষার্থীরা।               

তথ্য অনুযায়ী, নির্ধারিত ফি দিয়ে সব শিক্ষার্থীকে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। স্কুল কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে এই রেজিস্ট্রেশন করা হবে। এই রেজিস্ট্রেশনের মাধ্যমে প্রতিটি শিক্ষার্থী শনাক্ত করা হবে।

ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক তপন কুমার সরকার ইত্তেফাককে বলেন, ‘প্রতিটি বোর্ড শিক্ষার্থীদের রেজিস্ট্রেশন করবে। আগামী বছর থেকেই এই কার্যক্রম শুরু হবে। এতে কী সংখ্যক শিক্ষার্থী কোন শ্রেণিতে রয়েছে, তার একটি সুস্পষ্ট চিত্র আমাদের কাছে থাকবে। ফলে পাবলিক পরীক্ষার আগে গিয়ে শিক্ষার্থীদের রেজিস্ট্রেশনের যে চাপ তৈরি হয়, তা আর থাকবে না। এছাড়া এই রেজিস্ট্রেশনের ফলে শিক্ষার্থীদের মূল্যায়ন করাও সম্ভব হবে।’

রেজিস্ট্রেশনকৃত প্রতিটি শিক্ষার্থীর তথ্য নতুন একটি অ্যাপসে যুক্ত করা হবে। আর এই অ্যাপস তৈরি করছে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড।

চলতি শিক্ষাবর্ষ থেকে সপ্তম ও ষষ্ঠ শ্রেণিতে নতুন কারিকুলাম শুরু হয়েছে। এতে কোনো পুরোনো আদলে কোনো পরীক্ষা হচ্ছে না। শিক্ষার্থীদের ধারাবাহিকভাবে মূল্যায়ন করা হচ্ছে। এই মূল্যায়ন যাতে বোর্ডে সংরক্ষিত করা যায়, সে লক্ষ্যেই এনসিটিবি কাজ করছে।

জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের সদস্য (কারিকুলাম) অধ্যাপক মশিউজ্জামান বলেন, ‘শিক্ষার্থীদের রেজিস্ট্রেশন কার্যক্রম করবে শিক্ষা বোর্ডগুলো। আর শিক্ষার্থীদের পারফরমেন্স রেকর্ড রাখার জন্য একটি অ্যাপস তৈরি করা হচ্ছে। রেজিস্ট্রেশনের তথ্য অ্যাপসে যুক্ত করা হবে। এই অ্যাপসে শিক্ষার্থীর পারদর্শিতার তথ্য শিক্ষকরা আপলোড করবেন। সেটা একটি কেন্দ্রীয় সার্ভারে এসে যুক্ত হবে। বছর শেষে শিক্ষার্থীদের পারদর্শিতার ওপর সনদ তৈরি হবে। শিক্ষার্থীরা ওয়েবসাইট বা অ্যাপস থেকে এই সনদ ডাউনলোড করতে পারবে।’

এনসিটিবির এই কর্মকর্তা বলেন, ‘চলতি বছর থেকে ষষ্ঠ ও সপ্তম শ্রেণিতে নতুন কারিকুলাম শুরু হয়েছে। এই শিক্ষার্থীদেরও পারদর্শিতার তথ্য সংগ্রহ করা হবে। তাও এই অ্যাপসে যুক্ত করা হবে।’

আগামী বছর দ্বিতীয়, তৃতীয়, অষ্টম ও নবম শ্রেণিতে নতুন কারিকুলাম চালু হবে। নতুন কারিকুলামের আলোকে নতুন বইও ছাপানো হচ্ছে। ফলে এসব শ্রেণিতেই মূল্যায়নের ধরনে পরিবর্তন আসবে।

নতুন কারিকুলামে বলা হয়েছে, মূল্যায়ন শিক্ষাক্রমের একটি অপরিহার্য ও অবিচ্ছিন্ন অংশ। এই শিক্ষাক্রম রূপরেখায় মূল্যায়নকে কেবল শিক্ষার্থীর শিখন মূল্যায়নের মধ্যে সীমাবদ্ধ না রেখে পুরো শিক্ষাব্যবস্থার কার্যকারিতা মূল্যায়ন, শিখন পরিবেশের মূল্যায়ন ও সেই সঙ্গে শিখনের মূল্যায়নের ওপর জোর দেওয়া হয়েছে। প্রচলিত মূল্যায়ন ব্যবস্থার ব্যাপক সংস্কারের মাধ্যমে মুখস্থবিদ্যাভিত্তিক পরীক্ষা পদ্ধতি থেকে সরে এসে বহুমাত্রিক মূল্যায়নের মাধ্যমে শিক্ষার্থীর বিভিন্ন মাত্রার জ্ঞান, দক্ষতা, মূল্যবোধ, দৃষ্টিভঙ্গি ও চেতনা বিকাশের ধারাকে মূল্যায়নের আওতায় আনা হয়েছে। সব ধরনের শিখন মূল্যায়নের ভিত্তি হচ্ছে যোগ্যতা।

শিক্ষাক্রম রূপরেখায় মূল্যায়নের যে কৌশল নির্ধারণ করা হয়েছে, সেখানে বলা হয়েছে, শিখনকালীন মূল্যায়নের ওপর গুরুত্ব দিয়ে বহুমাত্রিক উপায়ে মূল্যায়ন, শিখনের জন্য মূল্যায়ন এবং মূল্যায়নের মাধ্যমে শিখন, পর্যবেক্ষণ, প্রতিফলনভিত্তিক ও প্রক্রিয়ানির্ভর মূল্যায়ন, ধারাবাহিক মূল্যায়ন, সতীর্থ মূল্যায়ন, অংশীজন মূল্যায়ন, মূল্যায়নে টেকনোলজির (অ্যাপস) ব্যবহার, মূল্যায়নে জ্ঞান, দক্ষতা ও দৃষ্টিভঙ্গি বিবেচনা করা এবং ইতিবাচক ফলাবর্তন প্রদান।

তবে যে আদলে মূল্যায়ন চলছে, তাতে সন্তুষ্ট নন শিক্ষার্থী, অভিভাবক এবং শিক্ষকদের একটি অংশ। তারা বলছেন, এই আদলের মূল্যায়নে শিক্ষার্থী পড়াশোনায় মনোযোগী হচ্ছে না। তবে শিক্ষা প্রশাসন থেকে বলা হচ্ছে, এই কারিকুলামের সুফল পেতে কিছুটা সময় লাগবে।


শিক্ষা এর আরও খবর

কোটা সংস্কার আন্দোলন

img

বৃহস্পতিবার সারা দেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ কর্মসূচি ঘোষণা

প্রকাশিত :  ১৬:০২, ১৭ জুলাই ২০২৪
সর্বশেষ আপডেট: ১৯:৪৬, ১৭ জুলাই ২০২৪

দেশব্যাপী চলমান কোটা সংস্কার আন্দোলনে ছাত্রলীগের হামলা, সাধারণ শিক্ষার্থীদের হত্যা এবং ঢাবি প্রশাসনের নির্দেশে শিক্ষার্থীদের ওপর পুলিশের নির্বিচার হামলার প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার সারা দেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ কর্মসূচি ঘোষণা করেছে বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলন।

বুধবার (১৭ জুলাই) রাত পৌনে ৮টায় সংগঠনের অন্যতম সমন্বয়ক আসিফ মাহমুদ তার ফেসবুক আইডিতে দেওয়া এক বিবৃতিতে এ কর্মসূচি ঘোষণা করেন।

কর্মসূচি অনুযায়ী, আগামীকাল হাসপাতাল ও জরুরি সেবা প্রতিষ্ঠান ছাড়া সবকিছু বন্ধ থাকবে এবং রাস্তায় অ্যাম্বুলেন্স ছাড়া কোনো যানবাহন চলবে না বলে জানানো হয়।

বিবৃতিতে বলা হয়, “শিক্ষার্থীদের শান্তিপূর্ণ আন্দোলনের ওপর পুলিশ, বিজিবি, র‍্যাব, সোয়াটের ন্যাক্কারজনক হামলা, খুনের প্রতিবাদ, খুনিদের বিচার, সন্ত্রাসমুক্ত ক্যাম্পাস নিশ্চিত করা এবং কোটা সংস্কারের এক দফা দাবিতে আগামীকাল (১৮ জুলাই) সারা দেশে ‘কমপ্লিট  শাটডাউন’ ঘোষণা করছি।”

দেশের সব প্রতিষ্ঠানকে কর্মসূচি সফল করতে আহ্বান জানিয়ে বলা হয়, “শুধুমাত্র হাসপাতাল ও জরুরি সেবা ব্যতীত কোনো প্রতিষ্ঠানের দরজা খুলবে না, অ্যাম্বুলেন্স ব্যতীত সড়কে কোনো গাড়ি চলবে না। সারা দেশের প্রতিটি স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়, প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়, মাদরাসা শিক্ষার্থীদের আহ্বান জানাচ্ছি, আগামীকালের কর্মসূচি সফল করুন।”

প্রসঙ্গত, চলমান কোটা সংস্কার আন্দোলন মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) বেশ সহিংস রূপ নেয়। এদিন ঢাকাসহ বিভিন্ন স্থানে সংঘর্ষে ৬ জন মারা যান। আহত হন কয়েকশ আন্দোলনকারী শিক্ষার্থী ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মী।

এ অবস্থায় মঙ্গলবারই সারা দেশের স্কুল-কলেজ বন্ধ ঘোষণা করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। আজ বুধবার বন্ধ ঘোষণা করা হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ দেশের সব সরকারি-বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়। তবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা হল ও ক্যাম্পাস ত্যাগ না করার ঘোষণা দিয়েছেন। হলগুলোর ভেতরে অবস্থান করছেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা। বেশিরভাগ হল থেকে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের বের করে দেওয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত রোববার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কোটা প্রসঙ্গে কথা বলার সময় মন্তব্য করেন ‘মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে এত ক্ষোভ কেন? মুক্তিযোদ্ধার নাতিপুতিরা কিছুই পাবে না, রাজাকারের নাতিপুতিরা সব পাবে?’

প্রধানমন্ত্রীর এ মন্তব্যে ক্ষিপ্ত হন কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীরা। তারা ধরে নিয়েছেন ‘রাজাকারের নাতিপুতি’ তাদেরকেই বলা হয়েছে। তাই প্রধানমন্ত্রীর মন্তব্য প্রত্যাহারের দাবিতে এবং কোটা সংস্কারের এক দফা দাবিতে রোববার মধ্যরাত থেকেই আন্দোলনে নামেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা। সেই আন্দোলন এখনো চলছে। আজ বুধবারও ঢাকা ও ঢাকার বাইরে বিভিন্ন স্থানে সড়ক ও রেলপথ অবরোধ করেছেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা।

সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাজধানী ঢাকাসহ ৬ জেলায় মঙ্গলবার সন্ধ্যা থেকে বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে।

শিক্ষা এর আরও খবর