img

যুক্তরাজ্যে পড়তে যাওয়া শিক্ষার্থীদের জন্য দুঃসংবাদ, বাড়ল ফি

প্রকাশিত :  ১৫:৪২, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২৩

যুক্তরাজ্যে পড়তে যাওয়া শিক্ষার্থীদের জন্য দুঃসংবাদ, বাড়ল ফি

যুক্তরাজ্যে ঘুরতে যাওয়া দর্শনার্থী ও শিক্ষার্থীদের জন্য ভিসা ফি বাড়ানোর ঘোষণা দিয়েছে দেশটির সরকার। এ বর্ধিত এ ফি আগামী ৪ অক্টোবর থেকে কার্যকর হবে। দ্য ইকোনমিক টাইমস ও যুক্তরাজ্য সরকারে ওয়েবসাইট থেকে এ তথ্য জানা যায়।

নতুন নির্ধারিত ফি মতে, যারা যুক্তরাজ্যের ৬ মাসের ভ্রমণ ভিসার জন্য আবেদন করবেন, তাদের ফি ১৫ থেকে বাড়িয়ে ১১৫ ব্রিটিশ পাউন্ড করা হয়েছে। বাংলাদেশি মুদ্রায় ১৫ হাজার ৬০৭ টাকা (আজ ১৭ সেপ্টেম্বরের হিসাবে ১ পাউন্ড সমান ১৩৫ দশমিক ৭১ টাকা ধরলে)। স্টুডেন্ট ভিসার জন্য গুনতে হবে ৪৯০ পাউন্ড। আগে এটা ছিল ১২৭ পাউন্ড। যা বাংলাদেশি মুদ্রায় ৬৬ হাজার ৪৯৯ টাকা।

দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, ফি বৃদ্ধির বিষয়টি আগে পার্লামেন্টে পাস হতে হবে। এরপর এটি আগামী ৪ অক্টোবর থেকে কার্যকর হবে।

গত জুলাইয়ে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ঋষি সুনাক ভিসা ফি বাড়ানোর ঘোষণা দেন। সরকারি কর্মচারীদের বেতন বৃদ্ধির ব্যয় মেটাতে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। 

সূত্র: দ্য ইকোনমিক টাইমস

শিক্ষা এর আরও খবর

কোটা সংস্কার আন্দোলন

img

বৃহস্পতিবার সারা দেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ কর্মসূচি ঘোষণা

প্রকাশিত :  ১৬:০২, ১৭ জুলাই ২০২৪
সর্বশেষ আপডেট: ১৯:৪৬, ১৭ জুলাই ২০২৪

দেশব্যাপী চলমান কোটা সংস্কার আন্দোলনে ছাত্রলীগের হামলা, সাধারণ শিক্ষার্থীদের হত্যা এবং ঢাবি প্রশাসনের নির্দেশে শিক্ষার্থীদের ওপর পুলিশের নির্বিচার হামলার প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার সারা দেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ কর্মসূচি ঘোষণা করেছে বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলন।

বুধবার (১৭ জুলাই) রাত পৌনে ৮টায় সংগঠনের অন্যতম সমন্বয়ক আসিফ মাহমুদ তার ফেসবুক আইডিতে দেওয়া এক বিবৃতিতে এ কর্মসূচি ঘোষণা করেন।

কর্মসূচি অনুযায়ী, আগামীকাল হাসপাতাল ও জরুরি সেবা প্রতিষ্ঠান ছাড়া সবকিছু বন্ধ থাকবে এবং রাস্তায় অ্যাম্বুলেন্স ছাড়া কোনো যানবাহন চলবে না বলে জানানো হয়।

বিবৃতিতে বলা হয়, “শিক্ষার্থীদের শান্তিপূর্ণ আন্দোলনের ওপর পুলিশ, বিজিবি, র‍্যাব, সোয়াটের ন্যাক্কারজনক হামলা, খুনের প্রতিবাদ, খুনিদের বিচার, সন্ত্রাসমুক্ত ক্যাম্পাস নিশ্চিত করা এবং কোটা সংস্কারের এক দফা দাবিতে আগামীকাল (১৮ জুলাই) সারা দেশে ‘কমপ্লিট  শাটডাউন’ ঘোষণা করছি।”

দেশের সব প্রতিষ্ঠানকে কর্মসূচি সফল করতে আহ্বান জানিয়ে বলা হয়, “শুধুমাত্র হাসপাতাল ও জরুরি সেবা ব্যতীত কোনো প্রতিষ্ঠানের দরজা খুলবে না, অ্যাম্বুলেন্স ব্যতীত সড়কে কোনো গাড়ি চলবে না। সারা দেশের প্রতিটি স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়, প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়, মাদরাসা শিক্ষার্থীদের আহ্বান জানাচ্ছি, আগামীকালের কর্মসূচি সফল করুন।”

প্রসঙ্গত, চলমান কোটা সংস্কার আন্দোলন মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) বেশ সহিংস রূপ নেয়। এদিন ঢাকাসহ বিভিন্ন স্থানে সংঘর্ষে ৬ জন মারা যান। আহত হন কয়েকশ আন্দোলনকারী শিক্ষার্থী ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মী।

এ অবস্থায় মঙ্গলবারই সারা দেশের স্কুল-কলেজ বন্ধ ঘোষণা করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। আজ বুধবার বন্ধ ঘোষণা করা হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ দেশের সব সরকারি-বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়। তবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা হল ও ক্যাম্পাস ত্যাগ না করার ঘোষণা দিয়েছেন। হলগুলোর ভেতরে অবস্থান করছেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা। বেশিরভাগ হল থেকে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের বের করে দেওয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত রোববার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কোটা প্রসঙ্গে কথা বলার সময় মন্তব্য করেন ‘মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে এত ক্ষোভ কেন? মুক্তিযোদ্ধার নাতিপুতিরা কিছুই পাবে না, রাজাকারের নাতিপুতিরা সব পাবে?’

প্রধানমন্ত্রীর এ মন্তব্যে ক্ষিপ্ত হন কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীরা। তারা ধরে নিয়েছেন ‘রাজাকারের নাতিপুতি’ তাদেরকেই বলা হয়েছে। তাই প্রধানমন্ত্রীর মন্তব্য প্রত্যাহারের দাবিতে এবং কোটা সংস্কারের এক দফা দাবিতে রোববার মধ্যরাত থেকেই আন্দোলনে নামেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা। সেই আন্দোলন এখনো চলছে। আজ বুধবারও ঢাকা ও ঢাকার বাইরে বিভিন্ন স্থানে সড়ক ও রেলপথ অবরোধ করেছেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা।

সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাজধানী ঢাকাসহ ৬ জেলায় মঙ্গলবার সন্ধ্যা থেকে বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে।

শিক্ষা এর আরও খবর