img

বেলগো বাংলা কালচারাল এসোসিয়েশনের ৫ম বর্ষে পর্দাপণ

প্রকাশিত :  ০৯:৪৭, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২৩

বেলগো বাংলা কালচারাল এসোসিয়েশনের ৫ম বর্ষে পর্দাপণ

দেখতে দেখতে ৫ম বর্ষে পর্দাপন করলো বেলজিয়ামে বসবাসরত প্রবাসী বাংলাদেশিদের সাংস্কৃতিক সংগঠন বেলগোবাংলা কালচারাল এসোসিয়েশন। 

জীবন আর জীবিকার তাগিদে দূর প্রবাসে শত ব্যস্ততার মাঝেও মন চায় দেশীয় সংষ্কৃতি, কৃষ্টির আবহকে ধরে রাখতে। সেই লক্ষে প্রবাসে মাটিতে গড়ে তোলা হয় বেলগো বাংলা কালচারাল এসোসিয়েশন। 

বছরের পর বছর অনেক চড়াই, উতরাই পেরিয়ে পাঁচবছর পূর্ণ করলো বেলগো বাংলা কালচারাল এসোসিয়েশন। এ উপলক্ষে বেলগো বাংলার আয়োজনে পয়লা বৈশাখ, পিঠা উৎসব, বনভোজন, বিভিন্ন সামাজিক ও জাতীয় অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। 

সারা বেলজিয়ামে ছড়িয়ে থাকা বিভিন্ন শ্রেণিপেশার প্রবাসী বাংলাদেশিদের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহন ছিল বেলগো বাংলার  নিরন্তর প্রেরণার উৎস। পাশাপাশি স্থানীয় বেলজিয়াম এবং পার্শ্ববর্তী দেশসমূহ থেকে আগত অতিথিবৃন্দ এই অনুষ্ঠানকে দেয় সার্বজনীনতা। 

পঞ্চম বর্ষে পর্দাপন উপলক্ষে বেলগোবাংলার সদস্যদের উপস্থিতিতে কেক কেটে দিনটি উদযাপন করা হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন, সংগঠনের সদস্য সাইদুর রহমান লিটন, তপন রায়, শরিফুল ইসলাম মনজু, চয়ন রায়, হাবিবুল হাসান সোহাগ, জসিম উদ্দিন, মহসিন হোসেন, মান্নান মিয়া, রোমান মিয়া, মাহফুজ সিকদার, আশীষ শীল ও জুয়েল মিয়াসহ আরও অনেকে।

কমিউনিটি এর আরও খবর

img

ওয়াশিংটনে বাংলাদেশ দূতাবাসে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালিত

প্রকাশিত :  ১২:০২, ২০ এপ্রিল ২০২৪

১৯৭১ সালের ১৭ এপ্রিল স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম সরকারের আনুষ্ঠানিক শপথ গ্রহণের ঐতিহাসিক ঘটনাকে স্মরণ করে  গত বুধবার,১৭ এপিরীর ২০২৪,ওয়াশিংটন ডিসিতে অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাসে যথাযোগ্য মর্যাদায় ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালিত হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাসের বঙ্গবন্ধু কর্ণারে অবস্থিত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আবক্ষ ভাস্কর্যে পুষ্পস্তবক অর্পনের মাধ্যমে দিনের কর্মসূচী শুরু হয়। এ সময় দূতাবাসের কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। পরে বঙ্গবন্ধু মিলনায়তনে দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মোঃ সাহাবুদ্দিন ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রদত্ত বাণী পাঠ করে শোনান মিনিস্টার (কর্মাস) সেলিম রেজা ও ফার্স্ট সেক্রেটারি অহিদুজ্জামান নুর।

বাংলাদেশের প্রথম রাজধানী’ শীর্ষক একটি প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শন করা হয় এবং দিবসটির তাৎপর্য তুলে ধরে ‘বাংলাদেশের অভ্যূদয়ে মুজিবনগর সরকার’ শীর্ষক একটি সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়।

সেমিনারের আলোচনায় অংশ নিয়ে রাষ্ট্রদূত ইমরান জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, জাতীয় চার নেতা এবং ত্রিশ লক্ষ শহিদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। তিনি বলেন, মুজিবনগর দিবস বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রাম ও মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে অনন্য এক দিন এবং মুজিবনগর বাঙালি জাতির বীরত্বের প্রতীক।প্রতীক।

রাষ্ট্রদূত ইমরান আরো বলেন, স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম সরকার মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্বদানের ক্ষেত্রে তাদের ওপর অর্পিত দায়িত্ব অত্যন্ত নিষ্ঠা, দক্ষতা এবং আন্তরিকতার সঙ্গে পালন করেছে এবং স্বাধীন বাংলাদেশের পক্ষে আন্তর্জাতিক মতামতকে সুসংহত করেছে।

রাষ্ট্রদূত বলেন, মুজিবনগর সরকার ও বাংলাদেশের স্বাধীনতা একই সূত্রে গাঁথা, এবং মুজিবনগর সরকারের সাফল্যের ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশ সকল ক্ষেত্রে অভাবনীয় অগ্রগতি অর্জন করেছে। তিনি প্রবাসী বাংলাদেশিসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে এই সাফল্য গাঁথা সারা বিশ্বে ছড়িয়ে দেওয়ার আহ্বান জানান।

রাষ্ট্রদূত ইমরান বাঙালি জাতির হাজার বছরের গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাস নতুন প্রজন্মসহ সকলের ভালোভাবে জানার ওপর গুরুত্বারোপ করে বলেন, এটি জাতিকে মাথা উঁচু করে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার শক্তি ও প্রেরণা জোগাবে। তিনি মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও বঙ্গবন্ধুর আদর্শে উদ্বুদ্ধ হয়ে ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত উন্নত ও সমৃদ্ধ সোনার বাংলা ও স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে সবাইকে একসাথে কাজ করার অনুরোধ জানান।

কাউন্সেলর (পলিটিক্যাল) আরিফা রহমান রুমা সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন এবং ঐতিহাসিক এই দিবসের প্রেক্ষাপট ও গুরুত্ব বিস্তারিতভাবে তুলে ধরেন। তিনি মন্তব্য করেন বাংলার শোষিত, নিপীড়িত ও নির্যাতিত মানুষের মুক্তির আকাঙ্ক্ষাকে সঠিক খাতে প্রবাহিত করে অভ্যন্তরীণ ও বৈদেশিক সমর্থনের মাধ্যমে স্বাধীনতা অর্জন ছিল মুজিবনগর সরকারের সবচেয়ে বড় সাফল্য।

এরপর জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, জাতীয় চারনেতা এবং মুক্তিযুদ্ধে জীবনদানকারী সকল শহিদের আত্মার শান্তি ও মাগফেরাত এবং বাংলাদেশের উত্তরোত্তর শান্তি, সমৃদ্ধি ও অগ্রগতি কামনা করে একটি বিশেষ মোনাজাতের মাধ্যমে দিনের কর্মসূচী শেষ হয়। কর্মসূচী পরিচালনা করেন ফার্স্ট সেক্রেটারি আতাউর রহমান।

কমিউনিটি এর আরও খবর