img

আশুলিয়ায় নিজ ঘরে স্বামী-স্ত্রী ও সন্তানের গলাকাটা লাশ

প্রকাশিত :  ০৬:১৯, ০১ অক্টোবর ২০২৩
সর্বশেষ আপডেট: ০৬:৩৩, ০১ অক্টোবর ২০২৩

আশুলিয়ায় নিজ ঘরে স্বামী-স্ত্রী ও সন্তানের গলাকাটা লাশ

আশুলিয়ায় নিজ ঘর থেকে স্বামী-স্ত্রী ও সন্তানের গলাকাটা লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শনিবার রাত ১০টায় আশুলিয়ার ইউনিক ফকিরবাড়ি এলাকার মেহেদী হাসানের বাড়ি থেকে তাদের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। 

নিহত মা শাহিদা বেগম (৪০), বাবা মোক্তার হোসেন (৫০) ও ছেলে মেহেদী হাসান (১২)। 

মোক্তার হোসেন ঠাকুরগাঁও জেলার পীরগঞ্জের বাসিন্দা। সাহিদা বেগম রাজশাহী জেলার বাসিন্দা। তারা আশুলিয়ায় ইউনিক এলাকার মেহেদী হাসানের বাড়িতে ভাড়া থেকে একটি পোশাক কারখানায় চাকরি করতেন। ছেলে মেহেদী হাসান লেখাপড়া করত। 

স্থানীয়রা জানান, দুই দিন ধরে তাদের ঘরের দরজা বন্ধ থাকায় এবং তাদের কোনো সাড়াশব্দ না পেয়ে ওই বাড়ির অন্য ভাড়াটিয়ারা পুলিশে খবর দেন। খবর পেয়ে আশুলিয়া থানার এসআই জোহাব আলি গিয়ে দরজা খুলে ভেতরে তিনজনের গলাকাটা লাশ দেখতে পান। 

পুলিশ ধারণা করছে, পূর্ব শত্রুতার জের ধরে তাদের হত্যা করা হয়েছে। কারা কীভাবে হত্যা করেছে, সে তথ্য এখনো উদ্ঘাটন করতে পারেনি পুলিশ। নিহতদের লাশ ঢাকা সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের মর্গে পাঠানোর প্রস্তুতি চলছে। 

আশুলিয়া থানার এসআই জোহাব আলী বলেন, স্থানীয়দের কাছ থেকে খবর পেয়ে আমরা ঘটনাস্থলে এসে বিছানার ওপর মা ও ছেলের লাশ দেখতে পাই। পরে পাশের ঘর থেকে আরেকজনের লাশ উদ্ধার করেছি। মনে হয় এটি মোক্তার হোসেনের লাশ। ঘরে প্রচণ্ড দুর্গন্ধ। ধারণা করা হচ্ছে, তিন দিন আগে তাদের হত্যা করা হয়েছে।

img

তিস্তায় নৌকাডুবি, ৫ জনের মরদেহ উদ্ধার

প্রকাশিত :  ১৮:৫৪, ১৯ জুন ২০২৪

কুড়িগ্রামের তিস্তা নদীতে ২৬ জন যাত্রী নিয়ে নৌকা ডুবে গেছে। নৌকাডুবির এই ঘটনায় পাঁচজনের মরেদহ উদ্ধার করা হয়েছে। বুধবার (১৯ জুন) সন্ধ্যা ৭টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। 

জানা গেছে, ডুবে যাওয়া নৌকায় ২৬ জন যাত্রী ছিলেন। এর মধ্যে ১৮ জনকে জীবিত উদ্ধার করা হয়েছিল। নিখোঁজ ছিলেন আটজন। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিস ঘটনাস্থলে গিয়ে পাঁচজনের মরদেহ উদ্ধার করেছে। তবে নিহতদের পরিচয় জানা যায়নি।

উলিপুর ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন ইনচার্জ আব্বাস বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, আমরা ঘটনাস্থলেই আছি। এখন পর্যন্ত শিশুসহ ৫ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

উলিপুর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম মর্তুজা বলেন, আমরা ঘটনাস্থলেই আছি। ঠিক কতজন নিখোঁজ তা বলা যাচ্ছে না। তবে স্থানীয়রা বলছেন ৫-৮ জন নিখোঁজ থাকতে পারেন।

বজরা ইউনিয়ন পরিষদের ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল কাইয়ুম সরদার বলেন, নৌকা ডুবির ঘটনাটি ঘটেছে সন্ধ্যা ৭টার দিকে। আমি যতটুকু শুনেছি তারা নৌকা যোগে দাওয়াত খেতে যাচ্ছিলেন। তবে কতজন নিখোঁজ রয়েছেন সেই তথ্য আমার জানা নেই।