img

নতুন দায়িত্ব পেয়েই ইউক্রেন সফরে ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী ক্যামেরন

প্রকাশিত :  ১০:৪৫, ১৬ নভেম্বর ২০২৩

নতুন দায়িত্ব পেয়েই ইউক্রেন সফরে ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী ক্যামেরন

পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে নতুন দায়িত্ব পেয়েই বিদেশ সফরে ইউক্রেন গেছেন। তিনি ইউক্রেনের রাজধানী কিয়েভে দেশটির প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কির সঙ্গে বৈঠক করেছেন। 

গত সোমবার যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী ঋষি সুনাক তাঁর মন্ত্রিসভায় রদবদল আনেন। এই রদবদলের অংশ হিসেবে যুক্তরাজ্যের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরনকে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব দেন সুনাক। কনজারভেটিভ পার্টির নেতা ক্যামেরন ২০১০ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। চলমান রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধে কিয়েভের প্রতি লন্ডনের সমর্থন পুনর্ব্যক্ত করেছেন যুক্তরাজ্যের সফররত পররাষ্ট্রমন্ত্রী ক্যামেরন। তিনি ইউক্রেনের প্রতি যুক্তরাজ্যের নৈতিক, কূটনৈতিক, অর্থনৈতিক, সর্বোপরি সামরিক সমর্থন অব্যাহত রাখার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।

ইউক্রেনের প্রতি যুক্তরাজ্যের অব্যাহত সমর্থনের জন্য ক্যামেরনকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন জেলেনস্কি।

যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর দায়িত্ব পাওয়ায় ক্যামেরনকে অভিনন্দন জানিয়েছেন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট। পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নেওয়ার পর প্রথম আনুষ্ঠানিক বিদেশ সফরের জন্য ইউক্রেনকে বেছে নেওয়ায় ক্যামেরনকে ধন্যবাদ জানান জেলেনস্কি।

মধ্যপ্রাচ্য সংঘাতের প্রতি ইঙ্গিত করে জেলেনস্কি বলেন, বিশেষ করে এখন, যখন বিশ্ব শুধু ইউক্রেনের যুদ্ধক্ষেত্রের পরিস্থিতির দিকে মনোযোগ দিচ্ছে না, তখন ক্যামেরনের কিয়েভ সফর খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

জেলেনস্কি বলেন, ইউক্রেনের প্রতি যুক্তরাজ্যের অবিচল সমর্থনের জন্য তাঁরা কৃতজ্ঞ। যুক্তরাজ্যে ইউক্রেনের নাগরিকদের উষ্ণ অভ্যর্থনার জন্য তাঁরা কৃতজ্ঞ। ক্যামেরন ইউক্রেন সফরে আসায় তাঁরা আনন্দিত।

যুক্তরাজ্য এর আরও খবর

ইংলিশ চ্যানেলে নৌকা ডুবে শিশুসহ নিহত ৫ | JANOMOT | জনমত

img

বৃটেনের পার্লামেন্ট নির্বাচনে মুসলিম ভোটারদের প্রভাব ছিলো অকল্পনীয়

প্রকাশিত :  ০২:২৯, ১৫ জুলাই ২০২৪

জনমত রিপোর্টঃ ৪ জুলাই অনুষ্ঠিত সাধারণ নির্বাচনে যুক্তরাজ্যের যে সকল আসনে সর্বাধিক মুসলিম জনসংখ্যা সেখানে লেবার পার্টি ২০১৯ সালের নির্বাচনে প্রাপ্ত ভোটের তুলনায় এবার অর্ধ মিলিয়নেরও বেশি ভোট হারিয়েছে।

গাজায় নির্বিচার গণহত্যার ব্যাপারে লেবার পার্টির নেতা স্যার কিয়ার স্টারমারের ভূমিকায় বৃটেনের ক্ষুব্ধ মুসলিম ভোটাররা এবারের সাধারণ নির্বাচনে প্রথমবারের মত একটি ‘লক্ষ্যনীয়’ ধাক্কা দিয়েছে বলে মূলধারার বিভিন্ন গণমাধ্যমের বিশ্লেষনে উঠে এসেছে।

৪ জুলাইয়ের নির্বাচনে মুসলমান জনগোষ্টির সর্বাধিক অনুপাতের নির্বাচনী এলাকায় নাটকীয়ভাবে লেবার পার্টির পতন হয়েছে। নির্বাচন শেষ হওয়ার পরবর্তী ৩৬ ঘন্টায় প্রাপ্ত ফলাফল নিয়ে একটি গণমাধ্যমের গবেষণায় দেখা গেছে যে, ২১টি আসনে যেখানে জনসংখ্যার ৩০% এর বেশি মুসলিম, সেখানে লেবার পার্টির প্রাপ্ত অংশ ২৯ শতাংশ পয়েন্ট কমেছে। ২০১৯ সালে এই ২১টি আসনে লেবার প্রার্থীরা পেয়েছিলো গড়ে ৬৫%, যা ২০২৪ সালের নির্বাচনে নেমে এসেছে ৩৬ শতাংশে।

এই আসনগুলিতে ভোটদানও গড়ের চেয়ে বেশি (১১.২ শতাংশ পয়েন্ট কম) কমেছে। এই তথ্য এটাই পরিস্কার জানায় যে, কিছু অসন্তুষ্ট মুসলিম নির্বাচকরা ভোট দানে বিরত ছিলেন এবং অন্যরা অন্য প্রার্থীদের ভোট দিয়েছেন। এই আসনগুলিতে, মোট লেবার ভোটের সংখ্যা ২০১৯ সালে ছিলো ৬ লাখেরও বেশি, যা ২০২৪—এ মাত্র ৩ লাখের নীচে নেমে এসেছে৷ এটি দুটি নির্বাচনের মধ্যে লেবার পার্টির ভোটের মোট জাতীয় ড্রপের অর্ধেকেরও বেশি অর্থাৎ ২০১৯ এর তুলনায় লেবার পার্টি ৫৩৭,৬৮৮ ভোট হারিয়েছে।

ভোটের এই মন্দা সত্ত্বেও, লেবার পার্টি ব্রিটেনের অধিকাংশ মুসলিম প্রধান অংশে বৃহত্তম একক দল হিসেবে রয়ে গেছে। ২১টি নির্বাচনী এলাকার মধ্যে ১৭টি আসন তারা ধরে রেখেছে। সবচেয়ে কার্যকর নির্বাচনী চ্যালেঞ্জটি এসেছে ব্রিটেনের ওয়ার্কার্স পার্টি বা গ্রিন পার্টির পরিবর্তে স্থানীয়ভাবে প্রাপ্ত স্বতন্ত্র প্রার্থীদের কাছ থেকে।, যদিও উভয় পার্টি স্বতন্ত্র নির্বাচনী এলাকায় কিছু চিত্তাকর্ষক প্রদর্শনী অর্জন করেছে। বার্মিংহাম পেরি বার, ব্ল্যাকবার্ন, ডিউসবারি এন্ড ব্যাটলি, লিসেস্টার সাউথ, এবং লন্ডনের ইজলিংটন নর্থে স্বতন্ত্ররা নির্বাচিত হন।

কিন্তু স্বতন্ত্র কিংবা ফিলিস্তিন সেন্টিমেন্টকে ধারন করে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী প্রার্থীরা ব্র্যাডফোর্ড ওয়েস্টে ব্যর্থ হয়, যদিও সেই আসনটিতে লেবার ভোট শেয়ারে সবচেয়ে বেশি একক ড্রপ (৪৪.৫ শতাংশ পয়েন্ট) হয়েছে। এর কারণ হিসেবে একই সেন্টিমেন্টের একাধিক প্রার্থী থাকায় বাকি ভোট ভাগ হয়ে যায়। একইভাবে কিছু প্রার্থীর বিতর্কের কারণে বার্মিংহাম লেডিউড আসনটি লেবার ধরে রাখতে সক্ষম হয়। এই আসন থেকে ১৫৫৫৮ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হন বর্তমানে নবনিযুক্ত জাস্টিস সেক্রেটারী শাবানা মাহমুদের। তাঁর সাথে মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন স্বতন্ত্র মোহাম্মদ ইয়াকুব, তিনি পেয়েছেন ১২১৩৭ ভোট।

পরাজিত লেবার প্রার্থীদের মধ্যে রয়েছেন, বার্মিংহাম পেরি বারে খালিদ মাহমুদ, যিনি ২০০৩ সালে ইরাক যুদ্ধের সময় একমাত্র ইংরেজ মুসলিম এমপি ছিলেন। অন্যান্য লেবার এমপিদের বিরুদ্ধেও প্রচণ্ড ক্ষোভ ছিল ভোটারদের মনে। যদিও গাজায় যুদ্ধ বন্ধে পার্টির অবস্থানের বিরুদ্ধে যারা ফ্রন্ট বেঞ্চ ছেড়েছিলেন (যেমন জেস ফিলিপস এবং ইমরান হুসেন), তারা অন্যদের তুলনায় কম ভোট হারিয়েছেন। লন্ডনের বাঙালি ও মুসলমান অধ্যুষিত টাওয়ার হ্যামলেটস বরার গাজায় গণহত্যার বিরুদ্ধে সোচ্চার লেবার প্রার্থী আপসানা বেগম পপলার এন্ড লাইমহাউসে গত নির্বাচনের তুলনায় এবার ১৭.৩ শতাংশ ভোট হারিয়েছেন। পক্ষান্তরে প্রতিবেশী বেথনাল গ্রিন এবং স্টেপনি আসনে লেবার দলীয় প্রার্থী রুশনারা আলী হারিয়েছেন ৩৯.৪ শতাংশ ভোট।

ছোট মুসলিম সম্প্রদায়ের কিছু আসনে মুসলিম ভোট হারানোও লেবারদের জন্য উল্লেখ করার মত সমস্যা ছিল। পরবর্তী ৪৩টি মুসলিম অধ্যুষিত নির্বাচনী এলাকায় (জনসংখ্যার ১৫% এবং ৩০% এর মধ্যে), লেবার পার্টি আরও ৩০০,০০০ ভোট হারিয়েছে। তার মানে ২০১৯ সাল তুলনায় লেবার পার্টির ভোটের পুরো জাতীয় ড্রপের সমান এই ৬৪টি “সবচেয়ে বেশি মুসলিম” আসনে ঘটেছে।

একইভাবে, লেবার নির্বাচনের দিন ৪৩টি আসনের মধ্যে ৪০টিতে জয়লাভ করেছে, শুধুমাত্র জটিল এবং বৈচিত্র্যময় লেস্টার ইস্ট আসনে কনজারভেটিভ পার্টির কাছে হারিয়েছে এবং মার্জিনাল সিট (কম ব্যবধান) কেইগলি এন্ড ইল্কলি (যা ২০১৭ সালে লেবার জিতেছিলো) এবং হ্যারো ইস্ট টোরি পার্টি থেকে ছিনিয়ে আনতে ব্যর্থ হয়েছে। লেবার প্রার্থী প্রাক্তন সাংসদ জন গ্রোগান সুপরিচিত হওয়া সত্ত্বেও কেইগলি এন্ড ইল্কলে আসনে লেবার ভোটপ্রাপ্তির হিসাবে সবচেয়ে খারাপ ফলাফল করেছে। কম সুইং এবং জর্জ গ্যালওয়ের ওয়ার্কার্স পার্টির বেশি পরিমাণ ভোট পাওয়ায় পিটারবারার আসন লেবার প্রায় হারাতে বসেছিলো এবং হেন্ডন এবং উইকম্ব আসনের সুইং ভোট গড়ের চেয়ে অনেক কম ছিল।

এবারের নির্বাচনে মুসলিম ভোটের সবচেয়ে বেশি সুবিধা পেয়েছে লিব ডেম এবং গ্রীন পার্টি। লিবারেল ডেমোক্র্যাট পার্টি তাদের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি সংখ্যক ৭২ সিট পেয়ে, পার্লামেন্টে তৃতীয় বৃহত্তম দল হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে। আর গ্রীণ পার্টি প্রথম বারের মত পেয়েছে ৪টি আসন। 

২০১৯ সালের নির্বাচনে যারা ম্যাজরিটির (নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বীর চেয়ে ভোট ব্যবধান) রেকর্ড গড়েছিলেন, এবার তারা হারিয়েছেন সিংহভাগ ভোট। যেমন বেথনাল গ্রিন এন্ড স্টেপনিতে ভোটের ব্যবধান ৩৭,৫২৪ থেকে কমে এবার দাঁড়িয়েছে ১৬৮৯ ভোট। ইলফোর্ড নর্থ আসনে ভোটের ব্যবধান এবার মাত্র ৫০০। বার্মিহাম ইয়ার্ডলিতে ভোটের ব্যবধান গত নির্বাচনে ছিলো ১২,৭২০, যা এবার নেমে এসেছে মাত্র ৭০০ ভোটে। বার্মিংহাম লেডিউড আসনে ২৮৫৮২ ভোটের ম্যাজরিটি এবার হয়েছে ৩৪০০ ভোট।

এক গবেষণায় দেখা গেছে, স্বতন্ত্র প্রার্থীদের মধ্যে ভোট ভাগাভাগি যদি না হত তাহলে কমপক্ষে ১০টি আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থীরা জিততে পারতেন।

আরও বড় ছবি

মুসলিম ভোটারদের মধ্যে চরম অসন্তোষ ২০২৪ সালে একটি বৃহত্তর প্যাটার্নের একটি জলজ্যান্ত উদাহরণ হলোঃ সরকারের পছন্দের বিভাজন লাইনের চারপাশে ভোটারদের বৃহৎ, অন্তর্ভুক্তিমূলক জোট তৈরি করতে বড় দলগুলির (কনজারভেটিভ পার্টি নাটকীয়ভাবে এবং কিছুটা লেবার) উভয়ের ব্যর্থতা।

রাজনৈতিক ইস্যু এবং পরিচয়ে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে কমিউনিটিগুলি — দ্যা রিফোর্ম ইউক এর ভোট অন্তত গাজার স্বাধীন ভোটের মতোই পরিচিতিমূলক ছিল, মেট্রোপলিটান উদারপন্থীরা (এবং কিছু মুসলিম, যেমন হাডার্সফিল্ডে) গ্রিন পার্টিকে বেছে নিয়েছিল, এবং এমনকি লিবারেল ডেমোক্র্যাটরা সরকার গঠনের প্রস্তাব না দিয়ে প্রচারণায় স্থানীয় প্রতিনিধিদের গুরুত্ব দিয়েছিলো।

২০২৪ সালের নির্বাচনের আরেকটি দিক হল যে দলীয় রাজনীতি ব্রিটেনের বৈচিত্র্যের আরও বেশি প্রতিনিধি হয়ে উঠেছে। জাতিগত সংখ্যালঘু পটভূমি থেকে ৮৯ জন সংসদ সদস্য (তাদের মধ্যে ৬৬ জন লেবার) নির্বাচিত হয়েছেন। এর ফলে বলা যায় হাউজ অব কমন্সে মোটামুটিভাবে জনসংখ্যার প্রতিফলন ঘটেছে।

বেশ কিছু মুসলিম সংসদ সদস্য শুধুমাত্র ছোট মুসলিম কমিউনিটি নির্বাচনী এলাকার প্রতিনিধিত্ব করেন, যেমন নর্থ সামরসেটে নবনির্বাচিত লেবার এমপি সাদিক আল—হাসান এবং সাসেক্স ওয়েলডে টোরি পার্টি নুসরাত ঘানি। রাজনৈতিক অবস্থানের বিপরীতে স্বতন্ত্র প্রার্থীর বিশ্বাস ভোটারদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ বলে কোনো প্রমাণ নেই বলে মনে হয় (উদাহরণস্বরূপ, অমুসলিম জেরেমি করবিন এবং জর্জ গ্যালোওয়েকে সমর্থনকারী মুসলিম ভোটারদের ক্ষেত্রেও একই কথা সত্য)।

ভোটের মন্দা সত্ত্বেও, লেবার ব্রিটিশ মুসলমানদের প্রধান দল হিসেবে রয়ে গেছে, সামগ্রিক ভোট ভাগে এগিয়ে রয়েছে এবং বৃহত্তম মুসলিম কমিউনিটি রয়েছে এমন ৬৪টি নির্বাচনী এলাকার মধ্যে ৫৭টি প্রতিনিধিত্ব করছে। ব্রিটেনের বেশিরভাগ মুসলমান — এবং কেন্দ্রীভূত মুসলিম সম্প্রদায়ের মধ্যে তাদের আরও বেশি অংশ — ওয়েস্টমিনস্টারে লেবার এমপিরা তাদের পক্ষে কথা বলছেন।


পার্লামেন্টে এই সংসদ সদস্যদের থাকা লেবারকে স্থানীয় পর্যায়ে শ্রমসাধ্য সেতু নির্মাণের সুযোগ এনে দিয়েছে বলে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করছেন।

লেবার পার্টি কী সেতু নির্মাণ করতে পারব?

সরকারে থাকা লেবার পার্টি মুসলিম ভোটারদের সাথে দলের সম্পর্কের জাতীয় পর্যায়ের ক্ষতির কিছুটা মেরামত করতে সক্ষম হতে পারে বলে অনেকে ধারনা করছেন। সর্বোপরি, ২০০৩ সালের ইরাকে ব্লেয়ারের আক্রমণের প্রতিক্রিয়ায় ২০০৫ এবং ২০১০ এর মধ্যে ব্যালট বাক্সে মুসলিম বিদ্রোহের পরে যা ঘটেছিল — ২০১০ সালের নির্বাচনে জাতীয়ভাবে লেবারদের ক্ষতি হওয়া সত্ত্বেও, পার্টির ভোট মুসলিম নির্বাচনী এলাকায় বেড়েছে।

এটি আংশিকভাবে ইরাক ইস্যুটি ম্লান হয়ে যাওয়ার কারণে হয়েছিল, যদিও অনুভূতি শক্তিশালী ছিল এবং সেই বছর ব্রিটেন যখন নির্বাচনে গিয়েছিল তখন ইরাকে কিছু ব্রিটিশ সৈন্য মোতায়েন ছিল। কিন্তু এটি ২০০৫ এবং ২০১০ সালের মধ্যে মুসলমানদের স্বার্থের অভ্যন্তরীণ নীতি বিষয়ক লেবার রেকর্ডের কারণেও ছিলঃ সমতা আইন, উদাহরণস্বরূপ, সেইসাথে দারিদ্র্য হ্রাস এবং এনএইচএস গড়ে তোলার ক্ষেত্রে অর্জন। মুসলিম ভোটারদের দৃষ্টিকোণ থেকে, বৈদেশিক নীতি প্রস্তাবটি কলঙ্কিত এবং নিখুঁত থেকে কম হতে পারে, তবে গর্ডন ব্রাউনের নেতৃত্বে সেই দলটির সম্পর্কে আবার ইতিবাচক বোধ করার জন্য দেশীয় রেকর্ড যথেষ্ট ভাল ছিল।

২০০৫ থেকে ২০১০ পর্যন্ত সমীকরণের অন্য দিকটি ছিল মুসলিম ভোটারদের কাছে লেবার বিরোধী শক্তির ক্ষয়িষ্ণু আবেদন। লিবারেল ডেমোক্র্যাটরা নিক ক্লেগের অধীনে ডানদিকে সরে যায় এবং ইরাকে পার্টির অবস্থান কম প্রাসঙ্গিক হয়ে পড়ে। ২০০৭ সালে জর্জ গ্যালোওয়ের রেসপেক্ট পার্টির বিভাজন এবং বিদ্বেষগুলি সেই রাজনৈতিক অবস্থানের একটি দুর্বল প্রতিনিধিত্ব ছিল।

২০২৪ সালে, পাঁচজন স্বতন্ত্র প্রার্থী নির্বাচিত হয়েছেন। এরা হলেন শওকত আদম (লিচেস্টার সাউথ), আদনান হোসেন (ব্ল্যাকবার্ন), ইকবাল মাহমুদ (ডেওসবারি), আইয়ূব খান (পেরি বার) এবং জেরেমি কর্বিন (ইজলিংটন নর্থ)। তারা রিফর্ম ইউকে—এর সমান সংখ্যক সিট পেলেও মিডিয়া কভারেজ অনেক কম পাচ্ছে।

এই স্বতন্ত্র এমপিদের বেশিরভাগ কীভাবে কাজ করেন এবং তারা একে অপরের সাথে কতটা সমন্বয় করেন তা এখন দেখার বিষয়। প্যালেস্টাইনের ইস্যুতে ঐক্য থাকতে পারে, কিন্তু অভ্যন্তরীণ সমস্যা, লেবার সরকারের সাথে কীভাবে সম্পর্ক স্থাপন করা যায় এবং যেকোন সংখ্যক ব্যক্তিগত বিষয় নিয়ে সম্ভাব্য সমস্যা দেখা দিতে পারে।

২০২৪ সালে অনেক মুসলমানের কাছে, ফিলিস্তিনের প্রতি সমর্থনের ইঙ্গিত এবং অভ্যন্তরীণ নীতি এজেন্ডাকে এগিয়ে নেওয়ার মধ্যে ভারসাম্য বজায় রাখা হয়েছিল। অনেকের মনে হচ্ছে প্যালেস্টাইন জরুরি ছিল এবং লেবার এর অভ্যন্তরীণ প্রস্তাব যথেষ্ট আবেদনময় ছিল না (এবং অন্য ভোটাররা যেভাবেই হোক সরকার পরিবর্তন নিশ্চিত করবে)।

স্টারমার যদি ডেলিভারি এবং অভ্যন্তরীন নীতির ব্যাপারে যতটা সিরিয়াস হন, যতটা তিনি মনে করেন, তাহলে পরবর্তী নির্বাচনে সন্দেহপ্রবণ মুসলিম ভোটারদের সঙ্গে লেবারকে আরও ভাল জায়গায় থাকতে পারে। অ্যাটর্নি জেনারেল হিসেবে রিচার্ড হার্মারের প্রাথমিক নিয়োগও আন্তর্জাতিক বিষয়ে আইনের শাসন সম্পর্কে গুরুত্বের ইঙ্গিত দেয়।

স্টারমারকে সর্বোপরি একজন সমস্যা—সমাধানকারী রাজনীতিবিদ হিসেবে দেখা হয়ে থাকে এবং একটি সমস্যা মোকাবেলা করার সময় তিনি ক্রমান্বয়ে আরও কট্টরপন্থী হতে ইচ্ছুক। ২০২৪ সালের নির্বাচন একটি সমস্যা চিহ্নিত করেছিল, যেখানে মুসলিম ভোটারদের লেবার জোটের জন্য একটি বিল্ডিং ব্লক হিসাবে গ্রহণ করার জন্য প্রস্তুত ছিল না। সমাধানটি লেবারদের হাতেঃ দলটি জাতীয় সরকারে এবং স্থানীয়ভাবে নির্বাচন করতে এবং অর্জনগুলি সরবরাহ করতে পারে, যা ভবিষ্যতে মুসলিম ভোটারদের কাছ থেকে আরও বেশি সমর্থন আকর্ষণ করবে, যেমনটি ২০০৫ থেকে ২০১০ পর্যন্ত হয়েছিল৷ ২০২৯ সালে নির্বাচনী ল্যান্ডস্কেপ ভিন্ন দেখাবে, এবং লেবার এবং মুসলিম ভোটারদের আবার একে অপরের প্রয়োজন হতে পারে।

সূত্রঃ হাইপেন ডটকম এ প্রকাশিত লুইস বসটন এর মূল্যায়ন প্রতিবেদন

যুক্তরাজ্য এর আরও খবর