img

‘হু ইজ দেয়ার’: বাংলাদেশী—ব্রিটিশ অস্তিত্বের সংঘাতের প্রতিচ্ছবির এক অনবদ্য নাটক

প্রকাশিত :  ২১:২৬, ০১ ডিসেম্বর ২০২৩
সর্বশেষ আপডেট: ০৬:৪৮, ০২ ডিসেম্বর ২০২৩

‘হু ইজ দেয়ার’: বাংলাদেশী—ব্রিটিশ অস্তিত্বের সংঘাতের প্রতিচ্ছবির এক অনবদ্য নাটক

গত রবিবার লন্ডনের ব্র্যাডি আর্ট সেন্টারে মঞ্চায়িত হয় এই নাটক, যেখানে পঞ্চাশ বছর বয়সী বিশিষ্ট ব্রিটিশ বাংলাদেশি পুরুষদের জীবনের একটি মর্মস্পর্শী অভিব্যক্তি ফুটিয়ে তোলা হয় অত্যন্ত নিপুণতার সাথে। মুরাদ খান, প্রধান অভিনেতা এবং কোরিওগ্রাফার,  সে এই নাটকের মাধ্যমে দুই বিশ্বের (প্রাচ্য এবং পাশ্চাত্য) বেড়াজালে আস্টেপৃষ্টে গোলকধাঁধায় চক্রায়নরত একজন ব্যক্তি হিসাবে তাঁর জীবনের জটিলতাগুলিকে দক্ষতার সাথে পরিবেশন করেছেন। তুলে ধরেছেন কিভাবে সে এই কঠিন পর্বতমালা অতিক্রম করছেন তাঁর সাংস্কৃতিক পরিচয়, সামাজিক চ্যালেঞ্জ এবং ব্যক্তিগত আত্মদর্শনের আখ্যায়নবস্তুকে একীকরণ করে; অতি সূক্ষ্মভাবে নির্বিঘ্নে মিশ্রিত করেছেন তাঁর এই  নাটিকায় অভিনয় — আত্মঅভিব্যক্তি এবং  সংলাপে ও গানে গানে । 

জীবনের জটিল চ্যালেঞ্জ অতীব সূক্ষ্মতার মধ্য দিয়ে বর্ণনার পথটি দর্শকদের সাথে অনুরণিত হয় অভিজ্ঞতার একটি সমৃদ্ধ ট্যাপেস্ট্রি উপস্থাপন করে। মুরাদ খানের অভিনয় শৈলী দক্ষতার সাথে তার বাংলাদেশী শিকড় এবং ব্রিটিশ সাংস্কৃতির মধ্যে গভীর দ্বন্দ্বের সাথে লড়াই করে করে একটি বহুসংস্কৃতির ব্রিটিশ সমাজের সাথে খাপ খাইয়ে নেওয়ার দ্বিধাবিভক্তির প্রতিফলন কঘটিয়েছে সে তাঁর নাটিকায়। পারফরম্যান্সটি আসলে খুঁজতে চেষ্টা করেছে পরিচয়ের একটি অন্বেষন — যা পরিণত হয়েছে দুটি স্বতন্ত্র সংস্কৃতিকে মুখোমুখি (অনেকটা দুই পা দুই নৌকায় দেওয়ার মত) করে এর সারমর্মকে ধারণ করে এবং  তাঁর মনের ও মানসের দ্বৈততাকে প্রকাশ করা।

নাটকটিতে খানের চরিত্রটি কাজের সংস্কৃতি সম্পর্কে তার অনুভূতি প্রকাশ করা থেকে, তার ঐতিহ্য এবং যে পরিবেশে তিনি নিজেকে খুঁজে পাচ্ছেন  তার মধ্যে গতিশীল ইন্টারপ্লে  উদ্ভূত চ্যালেঞ্জ এবং উত্তেজনাগুলিকে তুলে ধরেছেন দারুণ অভিনয় এর মাধ্যমে। স্ক্রিপ্টটি দক্ষতার সাথে পরিবেশ দূষণ, ট্রাফিক জ্যামের বিশৃঙ্খলা এবং দ্রুত পরিবর্তনশীল বিশ্বে সান্ত্বনার জন্য নায়কের অনুসন্ধানকে একত্রিত করেছে। খানের অভিনয়ের মাধ্যমে, দর্শকদেরকে প্রাকৃতিক পরিবেশের সাথে আচরণ করারও এক শিক্ষা দেবার প্রয়াস  করা  হয়। এটি একটি অনুস্মারক যে মানুষের সংযোগ এবং আবেগগুলি কখনও কখনও আধুনিক জীবনের তাড়াহুড়ার মধ্যে প্রতিছায়া ফেলে। পরিবেশগত বক্তব্যটি সে প্রতিভাসিত করেন সাট্যায়ার (কৌতুক) এর মাধ্যমে খুবই সুক্ষ্য ক্যারিকাচার দিয়ে।

এই ধরনের নাটকীয় শুধু গল্প বলা বা বিনোদন নয়; এটি সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য সংরক্ষণের একটি চেষ্টা এবং আগামী প্রজন্মের জন্য তাদের ঐতিহ্যের জটিলতাগুলি অন্বেষণ এবং বোঝার একটি সুযোগ ‘হু ইজ দেয়ার’ আবার প্রমাণ করেছে কিভাবে স্টেজ অ্যাক্টস ভিজ্যুয়াল এবং অভিনয় আগমনী প্রজন্মের জন্য নতুন পথ খুলে দিতে পারে তার একটি আকর্ষণীয় উদাহরণ, একটি ট্যাপেস্ট্রি তৈরি করার মাধ্যমে যা সাংস্কৃতিক বর্ণনাকে সংরক্ষণ এবং সমৃদ্ধ করতে পারে আগামীতে।

মুরাদ খানের একক অভিনয় “হু ইজ দেয়ার” শুধুমাত্র সাংস্কৃতিক পরিচয়ের একটি আকর্ষক অন্বেষণ হিসেবেই কাজ করে না বরং সোশ্যাল মিডিয়ার অপ্রকাশিত অঞ্চলের দিকেও দৃষ্টি আকর্ষণ করে তাঁর এই ম্যাসেজ তাক লাগিয়ে দেয় সবাইকে, যেখানে ঘৃণার দালালরা সোশ্যাল মিডিয়াতে স্বেচ্ছাচারী মিথ্যা — বানোয়াট গল্প প্রবাহ ছড়িয়ে দেয়, মতপ্রকাশের স্বাধীনতাকে ক্ষুণ্ণ করে এবং আলোচনার অর্থপূর্ণ স্থায়িত্বকে ব্যাহত করে। এই আকর্ষক গল্পের নায়ক ডিজিটাল জগতে একটি নিরলস আক্রমণের মুখোমুখি হয়, ভার্চুয়াল ল্যান্ডস্কেপকে ঘৃণা—জ্বালানি এবং কখনও কখনও সহিংসতার হুমকির একটি উচ্ছ্বসিত সঙ্গীতে রূপান্তরিত করে ঐ সব র‌্যাডিক্যাল গ্রুপের সদস্যরা ।


মুরাদ খানের অভিনয়ের বুদ্ধিমত্তা উজ্জ্বল হয় যখন তিনি এই ডিজিটাল আক্রমণের বিরুদ্ধে নায়কের সংগ্রামকে তুলে ধরেন। একক অভিনয়শিল্পী নিখুঁতভাবে মানসিক অশান্তিকে নেভিগেট করেন, অনলাইন ঘৃণা দ্বারা ঘেরা একটি চরিত্রের ব্যালাডকে মূর্ত করে তোলে তাঁর এই নাটিকাটিতে। খানের উপস্থাপনা সেই ব্যক্তিদের মুখোমুখি হওয়া কঠোর বাস্তবতাকে তুলে ধরে যাদের কণ্ঠস্বর স্থিতাবস্থাকে চ্যালেঞ্জ করে কারণ তারা সাইবার বুলিং এবং ভয় দেখানোর লক্ষ্যে পরিণত হয়।

নায়ক বহুসংস্কৃতির অস্তিত্বের চ্যালেঞ্জ এবং সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মের ছায়ায় লুকিয়ে থাকা অশুভ শক্তিগুলির সাথে লড়াই করার সময় আখ্যানটি প্রকাশ পায়। নাটকটি একটি শক্তিশালী সামাজিক ভাষ্য হয়ে ওঠার চেষ্টা বৈ কিছু নয়, যা অনিয়ন্ত্রিত ঘৃণাত্মক বক্তব্যের বিপদের উপর আলোকপাত করে যা অর্থপূর্ণ কথোপকথনকে নিমজ্জিত করার এবং মতপ্রকাশের স্বাধীনতাকে রুদ্ধ করার হুমকি দিচ্ছে সর্বদা । 

ঘৃণা— গ্লানি উচ্ছ্বাসের মুখে, “হু ইজ দেয়ার” সংশোধনের জন্য একটি মর্মস্পর্শী গীতিকাব্য হিসাবে আবির্ভূত হয় আমার কাছে। মুরাদ খানের পারফরম্যান্স একটি বিশাল সামাজিক বার্তা পাঠাবার চেষ্টা করেছে, সমাজকে অনলাইন ঘৃণার বিপদের মোকাবিলা করার জন্য এবং আরও সহানুভূতিশীল এবং অন্তর্ভুক্তিমূলক ডিজিটাল বক্তৃতার জন্য জ্ঞানও দেয়। নাটকটি সোশ্যাল মিডিয়া স্পেসগুলির সংশোধনের জন্য বা যা বোঝার সাথে ঘৃণা, সহানুভূতির সাথে সাইবার বুলিং এবং শান্তিপূর্ণ সংলাপের প্রতিশ্রুতি দিয়ে সহিংসতার হুমকির প্রতি জোর দেওয়ার প্রয়োজনীয়তার উপর জোরও দেয়।

নায়ক এই ডিজিটাল চ্যালেঞ্জগুলির সাথে লড়াই করার সময়,  তাঁর একক পারফরম্যান্স এ  অর্থপূর্ণ পরিবর্তনের জন্য একটি কল টু অ্যাকশনও দিয়েছেন। মুরাদ খানের শিল্প মঞ্চ অতিক্রম করে, একটি ভার্চুয়াল পরিবেশ গড়ে তোলার তাগিদকে প্রতিফলিত করে যেখানে মতপ্রকাশের স্বাধীনতা উদযাপন করা হয় এবং আলোচনাগুলি ঘৃণা ছিনতাই ছাড়াই বিকাশ লাভ করে। 

“হু ইজ দেয়ার” শুধু একটি নাটক নয়; এটি একটি কন্টেম্পোরারি সামাজিক আখ্যান, একটি ডিজিটাল বিশ্ব গঠনে আমাদের দায়িত্বের কথা মনে করিয়ে দেয় যা কথোপকথন, সহানুভূতি এবং ধারণার অর্থপূর্ণ বিনিময়কে উত্সাহিত করা উচিত।

উপসংহারে, মুরাদ খানের ‘হু ইজ দেয়ার?’ একক নাটক গল্প বলার এবং পারফরম্যান্স শিল্পে একটি উজ্জ্বল বাতিঘর। এর বিনোদন মূল্যের বাইরে, প্রযোজনাটি আত্মদর্শনের জন্য একটি শক্তিশালী অনুঘটক হিসাবে কাজ করতে পারে, দর্শকদের ব্যক্তিগত পরিচয়ের জটিলতা এবং বহুসাংস্কৃতিক অস্তিত্বের ক্রসরোডে নেভিগেট করার সাথে জড়িত ভয়ঙ্কর চ্যালেঞ্জগুলি প্রতিফলিত করার জন্য অনুরোধ করা হয়েছে এখানে। নায়কের যাত্রা — পুঁথি এবং মঞ্চ নাটকের অভিনয়  করার ক্ষেত্রে খানের বুদ্ধিমত্তা, মঞ্চে এবং ডিজিটাল জগতে উভয়ই, তার শিল্পের গভীর প্রভাবকে তুলে ধরে।

নাটকটি একটি মনোমুগ্ধকর গল্প এবং একটি সমসাময়িক  সামাজিক আখ্যান হিসাবে আবির্ভূত হয়। অনলাইন অপবক্তব্য এর বিরুদ্ধে নায়কের সংগ্রাম সংশোধনের জন্য একটি মর্মস্পর্শী সংগীত হয়ে ওঠে, সমাজকে অচেক করা ঘৃণাত্মক বক্তব্য এবং সাইবার বুলিং এর বিপদের মোকাবিলা করতে চ্যালেঞ্জ করে। মুরাদ খানের পরিশেন  মঞ্চের সীমানা ছাড়িয়ে আরও বেশি সহানুভূতিশীল এবং অন্তর্ভুক্তিমূলক ডিজিটাল বক্তৃতার জন্য অ্যাকশনের আহ্বান হয়ে ওঠে। এই নাটকীয় পর্বটি সাংস্কৃতিক কথোপকথনে গুরুত্বপূর্ণ অবদানের জন্য প্রশংসার দাবি রাখে, আমাদের সময়ের গুরুত্বপূর্ণ সমস্যাগুলিকে সুন্দরভাবে এবং শক্তিশালীভাবে সমাধান করতে চেষ্টা করেছে । 

মুরাদ খানের একক নাটক ‘হু ইজ দেয়ার?’ গল্প বলার এবং পারফরম্যান্স শিল্পের সমৃদ্ধ টেপেস্ট্রিতে একটি সমসাময়িক বিজয়ের প্রতিনিধিত্ব করে এবং বাঙালি সংস্কৃতিতে গভীরভাবে এমবেড করা একটি ঐতিহাসিক উত্তরাধিকারের ধারাবাহিকতা। মঞ্চ নাটক, গীতিনাট্য, পুথি, নাটক, একক পরিবেশনা, পুতুল নাচ এবং যাত্রার ঐতিহ্য আমাদের পূর্বপুরুষের ইতিহাসের বর্ণনাকে উল্লেখযোগ্যভাবে রূপ দিয়েছে।

আমি আন্তরিকভাবে প্রার্থনা করি এবং আশা করি যে আমাদের বর্তমান এবং ভবিষ্যত প্রবাসী প্রজন্ম কেবল এই চারুকলার প্রশংসাই করবে না বরং সক্রিয়ভাবে অনুসরণ করবে, একটি সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের ধারাবাহিকতা নিশ্চিত করে যা সময়ের পরীক্ষায় টিকে থাকতে পারে। তারা যেন তাদের পূর্বপুরুষদের পদচিহ্ন থেকে অনুপ্রেরণা পায়, বাঙালি সংস্কৃতির চলমান আখ্যানে অবদান রাখে এবং আগামী প্রজন্মের জন্য শৈল্পিক অভিব্যক্তির অমূল্য উত্তরাধিকার সংরক্ষণ করে।


কমিউনিটি এর আরও খবর

img

লন্ডনে ‘ডিজিটাল থেকে স্মার্ট বাংলাদেশ অগ্রযাত্রায় আমাদের করণীয়’ শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত :  ১৯:৪০, ২২ জুন ২০২৪
সর্বশেষ আপডেট: ২০:২৬, ২২ জুন ২০২৪

প্রতিযোগিতামূলক বিশ্বে তথ্য প্রযুক্তির উন্নয়ন ছাড়া কোন দেশ বা জাতির ভাগ্য পরিবর্তন সম্ভব নয়। এ মন্তব্য বাংলাদেশ সরকারের মন্ত্রী পরিষদ ও আইসিটি মন্ত্রনালয়ের এটুআই এর কৌশলগত যোগাযোগ ডিরেক্টর আশফাক জামানের। ২১ জুন শুক্রবার সন্ধ্যায় লন্ডন বাংলা প্রেসক্লাব মিলনায়তনে ‘বঙ্গবন্ধু লেখক ও সাংবাদিক ফোরাম’ ইউকে আয়োজিত ’বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা : ডিজিটাল থেকে স্মার্ট বাংলাদেশ অগ্রযত্রায় আমাদের করনীয় শীর্ষ’ সেমিনারে কীনোট স্পীকারের বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

আশফাক জামান বলেন, জাতির জনকের স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়তে তারই সুযোগ্য উত্তরসূরী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে ডিজিটাল থেকে স্মার্ট বাংলাদেশে রূপান্তরে কাজ করছেন। বাংলাদেশ এখন তথ্য প্রযুক্তিতে অনেক এগিয়ে গেছে। এর সুফল যাতে সকলে ভোগ করতে পারে এজন্য আমাদের সকলকে কাজ করতে হবে।

সেমিনারের হোষ্ট বঙ্গবন্ধু লেখক সাংবাদিক ফোরামের সেক্রেটারী সাংবাদিক শাহ মোস্তাফিজুর রহমান বেলালের সঞ্চালনায় ও লন্ডনবাংলা প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি জনমত সম্পাদক সৈয়দ নাহাস পাশার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সেমিনারে আলোচক হিসেবে বক্তব্য রাখেন ব্রিজইন্ডিয়া ফাউন্ডেশনের পরিচালক প্রতীক দাতানি, ওয়েষ্ট লন্ডন চেম্বার অফ কমার্সের নির্বাহী পরিচালক অ্যালান রাইডস (গ্রাড), ভূ-রাজনৈতিক বিশ্লেষক প্রিয়জিত দেব সরকার।

এছাড়াও প্রশ্নউত্তর পর্বে অংশ নেন লন্ডন বাংলা প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সেক্রেটারী প্রবীণ সাংবাদিক নজরুল ইসলাম বাসন, ইউকে বাংলা রিপোর্টারাস ইউনিটির সদ্যসাবেক সভাপতি প্রবীণ সাংবাদিক মতিয়ার চৌধুরী, প্রবীণ সাংবাদিক হামিদ মোহাম্মদ, স্বদেশ-বিদেশ সম্পাদক বাতিরুল হক সরদার, সাংবাদিক আজিজুল আম্বিয়া, টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিলের মিডিয়া অফিসার মাহবুবুর রহমান, সাংবাদিক রহমত আলী।

সেমিনারে অংশ নেন ইউকে বাংলা রিপোর্টার্স ইউনিটির প্রেসিডেন্ট আনসার আহমেদ উল্লাহ, সাংবাদিক মোসলেহ উদ্দিন আহমদ, সাংবাদিক মোস্তাক বাবুল, সাংবাদিক হেফাজুল করিম রাকিব, সাংবাদিক বদরুদ্দোজা বাবুল, সাংবাদিক আব্দুল কাদির চৌধুরী মুরাদ, সাংবাদিক আসাদুজ্জামান মুকুল, টিভি প্রেজেন্টার হাফসা ইসলাম, কবি মুজিবুল হক মনি, টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিলের সাবেক স্পীকার আহবাব হোসেন, জালালাবাদ ফাউন্ডেশন ইউকের সাধারন সম্পাদক আব্দুল বাছির, সাংবাদিক আহাদ চৌধুরী বাবু, শামীম আহমদ, আরিয়ান খান প্রমুখ।

বঙ্গবন্ধু লেখক সাংবাদিক ফোরামের পক্ষ থেকে আলোচক বৃন্দ ও প্রবীণ সাংবাদিক মতিয়ার চৌধুরীর হাতে সম্মাননা ক্রেষ্ট তুলে দেন সেমিনারের সভাপতি সৈয়দ নাহাস পাশা।

কমিউনিটি এর আরও খবর