img

ব্রিটেন-আমেরিকায় পাল্টা হামলার হুমকি হুথিদের

প্রকাশিত :  ১৯:৩৪, ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

ব্রিটেন-আমেরিকায় পাল্টা হামলার হুমকি হুথিদের

এবার ব্রিটেন ও আমেরিকায় পাল্টা হামলার হুমকি দিলো ইয়েমেনের হুথি বিদ্রোহীরা। তাদের ৩৬টি লক্ষবস্তুতে আমেরিকা–যুক্তরাজ্যের হামলার প্রতিক্রিয়ায় হুথি গোষ্ঠী এই পাল্টা হামলার হুমকি দিলো। 

রোববার গোষ্ঠীটির রাজনৈতিক ব্যুরোর সদস্য মোহাম্মদ আল–বুখাইতি এ হুশিয়ারি দেন। খবর ওয়াশিংটন পোস্টের। আল বুখাইতি বলেন, ‘এই যৌথ হামলার প্রত্যুত্তর দেওয়া হবে। প্রতিটি হামলার সমুচিত জবাব দেওয়া হবে।’

এর আগে আমেরিকার প্রতিরক্ষামন্ত্রী লয়েড অস্টিন জানান, ইয়েমেনে ১৩টি স্থানে হুতিদের অস্ত্র ও অন্যান্য মজুতাগারের ৩৬টি লক্ষ্যে হামলা চালানো হয়েছে। লোহিত সাগরে বাণিজ্যিক ও সামরিক জাহাজে একের পর এক হামলার প্রতিক্রিয়ায় এ হামলা চালানো হয়েছে।

প্রসঙ্গত, গাজায় ইসরাইলি হামলার প্রতিক্রিয়ায় ইয়েমেনের ইরান সমর্থিত গোষ্ঠী হুথিরা এই হামলা শুরু করে। সে সময় তারা জানিয়েছিল, গাজায় ইসরাইলি হামলা যতদিন চলবে, ততদিন এই হামলা তারা করবে।

এর আগে জর্ডানে মার্কিন সেনা নিহতের প্রতিশোধ নিতে শুক্রবার সিরিয়ায় ও ইরাকে থাকা ইরানি স্থাপনার হামলা চালায় আমেরিকা। এর এক দিন পরই ইয়েমেনে এই যৌথ হামলা। আমেরিকার স্থানীয় সময় রোববার ভোর ৪টার দিকে এই যৌথ হামলা চালানো হয়। হামলার লক্ষ্য হিসেবে হুতিদের কাছে থাকা ক্রুস ক্ষেপণাস্ত্রের কথা উল্লেখ করা হয়।

মার্কিন প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় জানায়, এই ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্রগুলো লোহিত সাগরে বিভিন্ন জাহাজে হামলা চালানোর জন্য মজুত করা হয়েছিল। এগুলো মার্কিন নৌবাহিনীর জন্য এক বড় হুমকি।

যুক্তরাজ্য এর আরও খবর

img

ইরানের ওপর ব্রিটেন-আমেরিকার নতুন নিষেধাজ্ঞা

প্রকাশিত :  ১৮:২২, ১৮ এপ্রিল ২০২৪
সর্বশেষ আপডেট: ০৪:০২, ১৯ এপ্রিল ২০২৪

ইহুদিবাদী ইসরায়েলের প্রধান মিত্রদেশ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্য ইরানের ওপর ফের নিষেধাজ্ঞা আরোপের ঘোষণা দিয়েছে। ইসরায়েলে ইরানের হামলার পর পাল্টা প্রতিক্রিয়া হিসেবে এই নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে দেশ দুটি। খবর পলিটিকো ইইউ ও আল জাজিরার।

যুক্তরাষ্ট্রের অর্থ মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, ইরানের ইউএভি (ড্রোন) উৎপাদনের সঙ্গে যুক্ত ১৬ ব্যক্তি এবং ২টি প্রতিষ্ঠানের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে। এরা ইরানের শাহেদ ড্রোন নির্মাণের সঙ্গে যুক্ত। ওই ড্রোন ১৩ এপ্রিলের হামলায় ব্যবহার করা হয়েছে।

যুক্তরাজ্যও ইরানের ড্রোন ও ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র তৈরির সঙ্গে যুক্ত দেশটির সামরিক বাহিনী-সংশ্লিষ্ট বেশ কয়েকটি সংস্থা, ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের ওপর নিষেধাজ্ঞা দিচ্ছে।

শনিবার রাতে ইসরাইলে প্রত্যাশিত ও অভাবনীয় হামলা চালায় ইরান। ১ এপ্রিল সিরিয়ার রাজধানী দামেস্কে ইরানের কনস্যুলেটে ইসরাইলের বিমান হামলায় কয়েকজন জ্যেষ্ঠ সেনা কর্মকর্তা নিহতের প্রতিশোদ হিসেবে ওই হামলা চালানো হয়।

এ হামলায় তিন শতাধিক ড্রোন ও ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবহার করে ইরান। এগুলোর বেশির ভাগই আকাশে ধ্বংস করার দাবি করেছে ইসরাইল। এ হামলা রুখতে ইসরাইলকে সহায়তা করে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স ও জর্ডান।

এ হামলার জবাবে ইরানে পাল্টা হামলা চালানোর ঘোষণা দিয়েছে ইসরাইল। দেশটির প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু বলেছেন, নিজেদের সুরক্ষার অধিকার ইসরাইলের রয়েছে।

ইরানের ওপর নিষেধাজ্ঞার ঘোষণা দিয়ে এক বিবৃতিতে যুক্তরাষ্ট্রের অর্থমন্ত্রী জ্যানেট ইয়েলেন বলেছেন, আজকে যুক্তরাজ্যের সঙ্গে সমন্বয় এবং অংশীদার ও মিত্রদের সঙ্গে আলোচনার মাধ্যমে আমরা ইসরাইলে ইরানের নজিরবিহীন হামলার জবাব দিতে দ্রুত ও সুনির্দিষ্ট পদক্ষেপ নিচ্ছি।

ইরানের মারাত্মক কর্মকাণ্ডের গুরুত্বপূর্ণ দিকগুলো ব্যাহত ও নস্যাৎ করার লক্ষ্যে যুক্তরাষ্ট্রের অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থনৈতিক উপকরণগুলো (টুল) ব্যবহার করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন তিনি। আগামীতে ইরানের ওপর আরও নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার লক্ষ্যে কর্তৃপক্ষগুলোর তৎপরতা অব্যাহত থাকবে বলেও জানিয়েছেন তিনি।