বাসযোগ্য সুপার আর্থের সন্ধান পেলেন বিজ্ঞানীরা

প্রকাশিত :  ১৫:৩৩, ০৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

বাসযোগ্য সুপার আর্থের সন্ধান পেলেন বিজ্ঞানীরা

বহু আগে থেকেই সৌরজগতের বাইরে আর কোনো বাসযোগ্য গ্রহ আছে কি না, তা নিয়ে অনুসন্ধান চলছে। কিছু কিছু ক্ষেত্রে আংশিক সফল হয়েছেন বিজ্ঞানীরা। এবার আরও একটি সম্ভাব্য বাসযোগ্য গ্রহের সন্ধান পেয়েছেন বিজ্ঞানীরা। পৃথিবী থেকে ১৩৭ আলোকবর্ষ দূরে সন্ধান পাওয়া এই গ্রহকে সুপার আর্থ বলছেন বিজ্ঞানীরা। 

বিজ্ঞানবিষয়ক সংবাদমাধ্যম সায়েন্স অ্যালার্টের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ট্রানজিটিং এক্সোপ্ল্যানেটারি সার্ভে স্যাটেলাইট এই গ্রহটিকে শনাক্ত করেছে। ব্রিটেনের রয়্যাল অ্যাস্ট্রোনমিক্যাল সোসাইটির বিজ্ঞানীরা এই গ্রহের নাম দিয়েছেন টিওআই-৭১৫ বি। গ্রহটির ব্যাসার্ধ পৃথিবীর ব্যাসার্ধের ১ দশমিক ৫৫ গুণ। 

গ্রহটি টিওআই-৭১৫ নামে একটি লাল বামন বা রেড ডোয়ার্ফ তারাকে কেন্দ্র করে আবর্তিত হচ্ছে। তবে তারকাটি থেকে এটি যে দূরত্বে অবস্থিত, সেই বিবেচনায় তা বাসযোগ্য হওয়ার সমূহ সম্ভাবনা রাখে। ওই সৌরজগতে অন্য কোনো বাসযোগ্য গ্রহ নেই বলেও জানিয়েছেন বিজ্ঞানীরা। 

টিওআই-৭১৫ খুবই সাধারণ গড়নের একটি লাল বামন তারকা। এটি ভরের দিক থেকে সূর্যের এক-চতুর্থাংশ এবং ব্যাসার্ধের দিক থেকেও প্রায় এক-চতুর্থাংশ। নতুন আবিষ্কৃত গ্রহটি এর সূর্যের বেশ কাছাকাছি এবং এটি এই তারকাকে প্রদক্ষিণ করতে মাত্র ১৯ দিন সময় নেয়। যেহেতু লাল বামন তারকাগুলো সূর্যের তুলনায় অনেক বেশি ম্লান, তাই এর আশপাশে থাকা গ্রহগুলোর বাসযোগ্য হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে।

এর আগে গত বছর বিজ্ঞানীরা আমরা ছায়াপথ মিল্কিওয়ে বা আকাশগঙ্গায় এক সুসংহত সৌরজগৎ আবিষ্কার করেন। এই সৌরজগতে গ্রহের সংখ্যা ছয়। বিজ্ঞানীরা এ গ্রহগুলোর ঘূর্ণনে এত বেশি ভারসাম্য খুঁজে পেয়েছেন, তারা এই সৌরজগৎকে অনেক বেশি সুসংহত বলেই মনে করছেন। 

তাদের দাবি, এই সৌরজগৎ সৃষ্টির পর কয়েকশ কোটি বছর ধরে বাইরের কোনো শক্তির কারণে ভারসাম্যহীন হয়নি।

বিজ্ঞানীরা বলছেন, এইচডি ১১০০৬৭ নামে পরিচিত এই তারকার আশপাশে আপাতত ছয়টি গ্রহের দেখা মিলেছে। এই ছয় গ্রহই আমাদের পৃথিবীর আকারের চেয়ে দুই বা তিন গুণ বেশি বড়। তবে এই গ্রহগুলোর ঘনত্ব আমাদের সৌরজগতের গ্যাসীয় গ্রহগুলোর ঘনত্বের প্রায় সমান। গ্রহগুলো এইচডি ১১০০৬৭ নামে তারকাকে কেন্দ্র করে ৯ থেকে ৫৪ দিনে একবার আবর্তন করে। ফলে স্বাভাবিকভাবে এই গ্রহগুলো নক্ষত্রটির খুবই কাছে হওয়ায় সেগুলো অনেক বেশি গরম। 

গ্যাসীয় গ্রহ হলেও বিজ্ঞানীরা ধারণা করছেন, এই গ্রহগুলোর কেন্দ্রভাগ পাথর, ধাতব পদার্থ বা বরফে গঠিত, যার ওপরে রয়েছে হাইড্রোজেনের বিশাল আস্তরণ। তবে গ্রহগুলোর বায়ুমণ্ডল কেমন, সে বিষয়ে জানতে হলে আরও গবেষণার প্রয়োজন বলে জানিয়েছেন বিজ্ঞানীরা। 

গবেষণা নিবন্ধটির সহযোগী লেখক ও স্পেনের ক্যানারি দ্বীপপুঞ্জের ইনস্টিটিউট অব অ্যাস্ট্রোফিজিকসের গবেষক এনরিক প্যালে বলেন, এ গ্রহগুলো তাদের তারকাকে কেন্দ্র করে একটি নির্দিষ্ট তালে আবর্তিত হচ্ছে। আরও নির্দিষ্ট করে বললে, খুবই সুশৃঙ্খলভাবে আবর্তিত হচ্ছে।

Leave Your Comments


ফ্রিতে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স-এর কোর্স করাচ্ছে গুগল

প্রকাশিত :  ১১:০১, ০৩ মার্চ ২০২৪

আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স বা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা জোয়ার এনেছে প্রযুক্তির জগতে। ইতিমধ্যেই এআই-র দৌলতে চাকরি হারিয়েছেন হাজার হাজার মানুষ। আগামী কয়েক বছর পর চাকরি পেতে গেলে বা চাকরি টিকিয়ে রাখতে গেলে অবশ্যই প্রয়োজন কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা বা আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স সম্পর্কে সম্যক জ্ঞান।

আমরা ডিজিটাল যুগে রয়েছি। ঘুম থেকে ওঠা থেকে ঘুমোতে যাওয়া অবধি, দৈনন্দিন সমস্ত কাজেই আমরা যন্ত্রনির্ভর হয়ে উঠছি। ডিজিটাল স্ক্রিনে বন্দি সকলে। যত সময় এগোচ্ছে, ততই অত্যাধুনিক হচ্ছে প্রযুক্তি। নিত্যদিনই নতুন নতুন জিনিস আবিষ্কার হচ্ছে। তবে সম্প্রতি প্রযুক্তির জগতে জোয়ার এনেছে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স বা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা।  লাখ লাখ টাকা দিয়ে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্সের কোর্স করাচ্ছে বেশ কিছু প্রতিষ্ঠান, কিন্তু আপনি কি জানেন বিনামূল্যেই আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্সের কোর্স করা যায়?

বিনামূল্যে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্সের কোর্স করার সুযোগ দিচ্ছে গুগল। চাইলে আপনিও এই কোর্স করতে পারেন। কী কী এই কোর্স, জেনে নিন—

১. ইন্ট্রোডাকশন টু জেনেরেটিভ এআই-জেনেরেটিভ আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্সের মূল বিষয়বস্তুর সঙ্গে আপনার পরিচয় করায় এই কোর্স। অপারেশনাল মেকানিজম নিয়ে শিক্ষা দেয় এই কোর্স।

২. ইন্ট্রোডাকশন টু লার্জ ল্যাঙ্গুয়েজ মডেল—এন্ট্রি লেভেলে মাইক্রো লার্নিং নিয়ে কোর্স এটি।

৩. ইন্ট্রোডাকশন টু রেসপন্সিবল এআই কীভাবে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স ব্যবহার করা হয় এবং গুগল কীভাবে তাদের বিভিন্ন প্রোডাক্টে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স ব্যবহার করে, তা নিয়েই গুগল এই কোর্স  তৈরি করেছে।

৪. জেনারেটিভ এআই ফান্ডামেন্টাল-জেনারেটিভ এআই, লার্জ ল্যাঙ্গুয়েজ মডেল ও রেসপন্সিবল এআই নিয়ে তৈরি গুগলের এই কোর্স। কোর্স শেষে গুগলের তরফে একটি ব্যাজও দেওয়া হবে।

৫. ইন্ট্রোডাকশন টু ইমেজ জেনেরেশন—ছবিতে কীভাবে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স ব্যবহার করা হয়, সে সম্পর্কে শিক্ষা দেবে গুগলের এই কোর্স।

img