img

দক্ষিণ আফ্রিকাকে রেকর্ড রানে হারাল নিউজিল্যান্ড

প্রকাশিত :  ০৯:২৪, ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
সর্বশেষ আপডেট: ১০:৩০, ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

দক্ষিণ আফ্রিকাকে রেকর্ড রানে হারাল নিউজিল্যান্ড

মাউন্ট মঙ্গানুই টেস্ট জিততে রেকর্ড গড়তে হতো দক্ষিণ আফ্রিকাকে। আজ টেস্টের চতুর্থ দিনে ৫২৯ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে দক্ষিণ আফ্রিকা দ্বিতীয় ইনিংসে অলআউট হয়েছে ২৪৭ রানে। স্বাগতিক নিউজিল্যান্ড ম্যাচটা জিতেছে ২৮১ রানে যা প্রোটিয়াদের বিপক্ষে রানের বিচারে নিউজিল্যান্ডের সবচেয়ে বড় জয়।

এই ম্যাচে কিউইদের সামনে দাঁড়াতেই পারেনি দক্ষিণ আফ্রিকা। দুই ইনিংসে তাদের রান যথাক্রমে ১৬২ ও ২৪৭, যা যোগ করলে হয় ৪০৯। বিপরীতে নিউজিল্যান্ড প্রথম ইনিংসেই করেছিল ৫১১ রান। যদিও ফলোঅনে না ফেলে কিউইরা দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নামায় ইনিংস হারের লজ্জা থেকে রক্ষা পেয়েছে প্রোটিয়ারা।

দ্বিতীয় ইনিংসে ৪ উইকেটে ১৭৯ রান তুলে তৃতীয় দিন শেষেই ৫২৮ রানে এগিয়ে গিয়েছিল নিউজিল্যান্ড। চতুর্থ দিন আর ব্যাট করতে না নামায় প্রোটিয়াদের সামনে লক্ষ্য দাঁড়ায় ৫২৯ রানের। যা রেকর্ড গড়েই জিততে হতো তাদের। কেননা ক্রিকেট ইতিহাসে চতুর্থ ইনিংসে এতো রান তাড়া করে আগে কখনো জেতেনি কোনো দল।

আরও পড়ুন: হংকংয়ে খেলেননি মেসি, ক্ষোভ দর্শকদের

আগের ইনিংসে মাত্র ১৬২ রানে গুটিয়ে যাওয়া দক্ষিণ আফ্রিকার জন্য লক্ষ্যটা ছিল তাই আকাশ সমান। এই লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে আবার ৫ রানেই হারিয়ে ফেলে ২ উইকেট। ফলে পায়ের নিচের মাটি অনেকটাই সরে যায় দক্ষিণ আফ্রিকার।

যদিও যোবায়ের হামজা ও রাইয়ার্ড ফন টন্ডারের ৬৩ রানের জুটি শুরুর সেই ধাক্কা সামাল দেয়। তবে কিউই পেসার কাইল জেমিসন তাদের জুটিকে ভয়ংকর হতে দেননি। টন্ডারকে ৩১ রানে আর হামজাকে ৩৬ রানের মাথায় ফেরান তিনি।

এরপর দলের হাল ধরার চেষ্টা করেন কিগান পিটারসন ও ডেভিড বেডিংহাম। ১৪৩ বলে ১০৫ রানের জুটি করেন তারা। জুটি ভাঙে ৯৬ বলে ৮৭ করে জেমিসনের শিকার হয়ে বেডিংহাম প্যাভিলিয়নে ফিরলে। পিটারসেন করেন ১৬ রান। তাছাড়া ৩৪ রান আসে ডি সোয়ার্টের ব্যাটে৷

স্যান্টনার পেয়েছেন ৩ উইকেট। তবে ৪ উইকেট নিয়েছেন কাইল জেমিসন।

এই জয়ে দুই ম্যাচ সিরিজে ১-০ তে এগিয়ে গেল কিউইরা। সিরিজের দ্বিতীয় টেস্ট শুরু হবে আগামী মঙ্গলবার, ভেন্যু হ্যামিল্টন।

img

ইতিহাস গড়লেন বাংলাদেশি নারী বক্সার জিন্নাত ফেরদৌস

প্রকাশিত :  ০৯:১২, ২৪ এপ্রিল ২০২৪
সর্বশেষ আপডেট: ০৯:৫৬, ২৪ এপ্রিল ২০২৪

বক্সিংয়ে ইতিহাস গড়েছেন যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী জিন্নাত ফেরদৌস। প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে আফ্রিকার ডারবানে জিতেছেন ম্যান্ডেলা কাপের স্বর্ণপদক। এটিকে গেল দেড় দশকে দেশের বক্সিংয়ে সেরা সাফল্য মনে করেন ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক। 

দক্ষিণ আফ্রিকায় অনুষ্ঠিত নেলসন ম্যান্ডেলা কাপ আন্তর্জাতিক বক্সিং প্রতিযোগিতায় গতকাল সোনা জয় করেছেন বাংলাদেশের যুক্তরাষ্ট্রপ্রবাসী বক্সার জিনাত ফেরদৌস। ৫০ কেজি ওজন শ্রেণিতে তিনি ফাইনালে হারিয়েছেন ইথিওপিয়ার প্রতিযোগীকে। বিদেশের মাটিতে এমন সফলতার পর গর্বিত দেশের বক্সিং সংশ্লিষ্টরা।

জিন্নাত ফেরদৌসের বক্সিংয়ে আবির্ভাব গত বছর হঠাৎ করেই। তিনি লাল-সবুজের হয়ে অংশ নেন এশিয়ান গেমসেও। সেখানে যদিও প্রথম বিশ্বমঞ্চে তেমন ভালো কিছু করতে পারেননি।

এরপর যুক্তরাষ্ট্রে ব্যক্তিগত কোচের কাছে ট্রেনিং চালিয়ে যান জিন্নাত। তার ঝুলিতে অবশেষে সাফল্য ধরা দিয়েছে। দক্ষিণ আফ্রিকায় ম্যান্ডেলা কাপে গোল্ড জিতেছেন যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী জিন্নাত।

বক্সিং ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক মাজহারুল ইসলাম তুহিন বলেছেন, জিন্নাতের স্বর্ণপদক জয় দেশের বক্সিংয়ের জন্য অনেক বড় একটি সফলতা। তার স্বর্ণ জয়ই দেশের সেরা সাফল্য। জিন্নাতের পারফরম্যান্স, অভিজ্ঞতা ও ফাইটিং দক্ষতা খুবই ভালো। আগামী মাসের ২৫ তারিখ থেকে শুরু হওয়া ফাইটে ভালো কিছু আশা করতে পারি।’