হাসপাতালে অভিনেতা মিঠুন চক্রবর্তী

প্রকাশিত :  ০৬:৩১, ১০ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

হাসপাতালে অভিনেতা মিঠুন চক্রবর্তী

গুরুতর অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি মিঠুন চক্রবর্তী। টলিউড, বলিউড— সর্বত্র সমান জনপ্রিয়তা মিঠুন চক্রবর্তীর। ভক্তরা ভালোবেসে তাকে গুরু বলে ডাকেন। ভারতের রাজনীতিতেও বেশ দাপট তার।  

আজ শনিবার সকালে কলকাতার এক বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয় মিঠুনকে। অভিনেতার ঘনিষ্ঠ সূত্র জানিয়েছে, সকালে বুকে ব্যথা শুরু হয় তার। সেইসঙ্গে বোধ করতে থাকেন অসস্তি। সে সময় তড়িঘড়ি করে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় তাকে। বর্তমানে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন তিনি।

সূত্রের খবর, প্রাথমিকভাবে মিঠুনের এমআরআই করা হচ্ছে। এরপর পরবর্তী চিকিৎসার সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। জানা গেছে তাকে সোহম চক্রবর্তী হাসপাতালে নিয়ে যান।

উত্তর কলকাতার মধ্যবিত্ত পরিবারের ছেলে মুম্বাইয়ে গিয়ে বলিউডে নতুন ট্রেন্ড শুরু করেছিল মিঠুন। ভক্তদের চোখের মণি হয়ে উঠেছিলেন তিনি। তবে সফলতা পেতে কম পরিশ্রম করতে হয়নি তাকে। এক সময় সালমান খানের মায়ের সহকারীর কাজ করেছেন। ব্যাগ টানতে হয়েছে অমিতাভ বচ্চন, রেখার মতো তারকাদের। 

ভারতের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারসহ একাধিক সম্মাননা রয়েছে মিঠুনের ঝুলিতে। সম্প্রতি দেশটির দ্বিতীয় সর্বোচ্চ নাগরিক সম্মান পদ্মভূষণে ভূষিত করা হয়েছে তাকে। ভারতীয় চলচ্চিত্রে অসামান্য অবদান রাখায় এ পুরস্কারে ভূষিত করা হয় তাকে।

Leave Your Comments


স্বামী রকিবের সাথে ভিডিও দিয়ে যা বললেন মাহি

প্রকাশিত :  ০৯:৩৪, ০৩ মার্চ ২০২৪

বেশ কিছুদিন ধরেই আলোচনায় রয়েছেন চিত্রনায়িকা মাহিয়া মাহি ও তার স্বামী রকিব সরকার। গত ১৬ ফেব্রুয়ারি হঠাৎ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বিচ্ছেদের ঘোষণা দিয়ে বসেন ঢাকাই সিনেমার আলোচিত চিত্রনায়িকা মাহিয়া মাহি। তবে স্বামী রকিব সরকারের সঙ্গে সংসার ভাঙার খবর জানালেও কারণ স্পষ্ট করেননি এ নায়িকা। এরপর স্বামীর পদবিও মুছে ফেলেন তিনি। বর্তমানে ছেলেকে নিয়ে আলাদাই থাকছেন এই নায়িকা।  

তবে বিচ্ছেদের ঘোষণা দিলেও স্বামীর প্রতি সম্মান আর ভালোবাসা যেন একই রয়ে গেছে মাহির। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে মাঝেমধ্যে ঢুঁ মারলেই তার চিহ্ন পাওয়া যায়। আবার অন্যদিকে একাকিত্বে ভুগছেন বলেও প্রতিনিয়ত ফেসবুকে জানান দেন এই নায়িকা।

রোববার (৩ মার্চ) নিজের ফেসবুকে স্বামীর সঙ্গে একটি ভিডিও শেয়ার করেছেন মাহি। ক্যাপশনে নায়িকা লিখেছেন— ‘যদিও এটি আমাদের মধ্যে শেষ হয়ে গেছে, এবং আমি তোমাকে আমার জীবনে ফিরে পেতে চাই না, এই ভালোবাসা আমাদের ইতিহাসের অংশ হয়ে যাবে। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত স্মৃতি হয়ে থাকবে।’

আগের মতো এখন চলচ্চিত্রে নিয়মিত নন মাহি। রাজনীতিতেও নিজের শক্ত অবস্থান গড়তে পারলেন না। একদিকে দ্বিতীয় সংসারও ভাঙল, অন্যদিকে অভিনেত্রীর ছেলের গায়ের রং নিয়েও রয়েছে নানান সমালোচনা। সব মিলিয়ে বলা যায়, বিষণ্নতায় ভুগছেন মাহি।

প্রসঙ্গত, ২০১৬ সালের ২৪ মে সিলেটের ব্যবসায়ী পারভেজ মাহমুদ অপুকে বিয়ে করেছিলেন মাহি। এর কয়েক বছর পরেই ২০২০ সালে মে মাসে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে দেওয়া এক পোস্টে পারভেজ মাহমুদ অপুর সঙ্গে বিচ্ছেদের কথা জানান তিনি। পরে ২০২১ সালে রাজনীতিবিদ ও ব্যবসায়ী কামরুজ্জামান সরকার রকিবকে বিয়ে করেন মাহিয়া মাহি।

img