টঙ্গীতে ট্রেন-ট্রাক সংঘর্ষ, নিহত ১

প্রকাশিত :  ০৩:৩৯, ১২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

টঙ্গীতে ট্রেন-ট্রাক সংঘর্ষ, নিহত ১

গাজীপুরের টঙ্গীতে ঢাকা থেকে কুড়িগ্রাম গামী আন্তঃনগর কুড়িগ্রাম এক্সপ্রেস ট্রেনের সঙ্গে সিটি করপোরেশনের ময়লা বহনকারী ড্রাম ট্রাকের সংঘর্ষে এক অটোরিকশা চালক নিহত হয়েছেন। নিহত অটো রিকশা চালক নবীন (১৮) নেত্রকোণার পূর্বধলা থানা ধলা গ্রামের দুদু মিয়ার ছেলে।

রোববার (১১ জানুয়ারি) রাত ১১টায় ঢাকা-জয়দেবপুর রেলসড়কের মধুমিতা রেলক্রসিং এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটনা ঘটে।  এ ঘটনায় ঘটনাস্থলে থাকা এক অটোরিকশাচালক নিহত এবং দুইজন গুরুতর আহত হয়েছেন। ঘটনার পর থেকে রাত পৌনে ১টা পর্যন্ত ঢাকার সঙ্গে আপলাইনে রেল চলাচল বন্ধ থাকে। পরে রেকার দিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত ট্রাকটি সরিয়ে নিলে রেল চলাচল স্বাভাবিক হয়।

স্থানীয়রা জানান, রেললাইনের পাশে সিটি করপোরেশনের একটি ময়লার ট্রাক ও বালুর ট্রাক পার্ক করা ছিল। রাত ১১টার দিকে ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা কুড়িগ্রাম এক্সপ্রেস ট্রেনটি মধুমিতা রেলক্রসিং পার হচ্ছিল। এ সময় ট্রেনের ইঞ্জিনের সাথে দাঁড়িয়ে থাকা ময়লার ট্রাকের ধাক্কা লাগে। এতে ময়লা ও বালুর ট্রাক দুটি দুমড়ে মুচড়ে যায়। ড্রাম ট্রাকের নিচে একটি অটোরিকশা চাপা পড়ে। নবীন ছিলেন সেই রিকশার চালক আর গুরুতর আহত দু’জন ছিলেন সেটির যাত্রী।

আহতদের উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। তাৎক্ষনিক ভাবে তাদের নাম পরিচয় জানা যায়নি।

টঙ্গী রেলওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ ছোটন শর্মা জানান, টঙ্গীতে ট্রেনের সাথে ড্রাম ট্রাক ও বালুর ট্রাকের সংঘর্ষ হয়েছে। পরে ট্রেনের ধাক্কায় ড্রাম ট্রাক উল্টে গিয়ে পাশে একটি অটো রিকশার উপর গিয়ে পরে। এতে অটোরিকশা চালক নবীনসহ ৩ জন আহত হয়। গুরুতর আহত অবস্থায় তাদের উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে কর্তব্যরত চিকিৎসক নবীনকে মৃত ঘোষণা করেন।

তিনি আরো বলেন, ট্রেন দুর্ঘটনার পর থেকে রাত পৌনে ১টা পর্যন্ত ঢাকার সঙ্গে আপ লাইনে রেল চলাচল বন্ধ ছিল। পরে রেকার দিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত ট্রাকটি সরিয়ে নিলে রেল চলাচল স্বাভাবিক হয়। এ ঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে তিনি জানান।

Leave Your Comments


আল্লামা লুৎফুর রহমানের ইন্তেকাল

প্রকাশিত :  ০৯:৫০, ০৩ মার্চ ২০২৪
সর্বশেষ আপডেট: ১০:০৭, ০৩ মার্চ ২০২৪

বাংলাদেশ মাজলিসুল মুফাসসিরিনের কেন্দ্রীয় সভাপতি ও আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন মোফাসসিরে কোরআন আল্লামা লুৎফুর রহমান মারা গছেনে (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

রোববার (৩ ফেব্রুয়ারি) দুপুর ২টা ৫৪ মিনিটে রাজধানীর ইবনে সিনা হাসপাতালে তিনি মারা যান। গণমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন তার ছোট ছেলে আবু সালমান মোহাম্মদ আম্মার।

এর আগে, গত ১৪ ফেব্রুয়ারি সকাল পৌনে ১০টায় লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ উপজেলার নিজবাড়িতে ব্রেনস্ট্রোক করেন মাওলানা লুৎফুর রহমান। সঙ্গে সঙ্গে বাড়ির লোকজন তাকে লক্ষ্মীপুর আধুনিক হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক জানান তিনি ব্রেন স্ট্রোকে আক্রান্ত হয়েছেন। পরে সেখান থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় আনা হয়।

প্রখ্যাত এ আলেমে আল্লামা লুৎফর রহমান একজন আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন ইসলামি বক্তা। একজন স্বনামধন্য বক্তা হিসেবে দেশে-বিদেশে তার অনেক পরিচিতি রয়েছে।

ব্যক্তিজীবনে মাওলানা লুৎফর রহমান ৫ কন্যা ও ২ ছেলের জনক। কর্মজীবনে তিনি রাজখালি আলিয়া মাদরাসার অধ্যক্ষ হিসেবে অত্যন্ত সুনামের সঙ্গে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি ১৯৯১ ও ১৯৯৬ সালে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে লক্ষ্মীপুর রামগঞ্জ নির্বাচনী এলাকার প্রার্থী হিসেবে অংশ নেন।

img