img

ভুল চিকিৎসায় মারা গেলেন আমির খানের 'দঙ্গল' কন্যা

প্রকাশিত :  ১০:১২, ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
সর্বশেষ আপডেট: ১২:০৬, ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

ভুল চিকিৎসায় মারা গেলেন আমির খানের 'দঙ্গল' কন্যা

'দঙ্গল' ছবিতে আমির খান ‘মহাবীর সিং ফোগত’-এর মেয়ে ববিতা ফোগতের চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন সুহানি। কিশোরী বয়সের ববিতার চরিত্রে দেখা গিয়েছিল তাঁকে। জানা যাচ্ছে শনিবার সকালে দিল্লিতে তে মৃত্যু হয়েছে সুহানি ভাটনগরের। মাত্র ১৯ বছর বয়সেই চলে যেতে হল তাঁকে।

টাইমস অব ইন্ডিয়ার প্রতিবেদন অনুযায়ী, শনিবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) সকালে মাত্র ১৯ বছর বয়সে সুহানি ভাটনগরের মৃত্যু হয়েছে। চিকিৎসার জন্য বেশ কিছুদিন ধরে নয়াদিল্লির অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অফ মেডিকেল সায়েন্স (এইমস) হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন সুহানি।

শনিবার ফরিদাবাদে তার শেষকৃত্য সম্পন্ন হয়েছে।

আরেকটি ভারতীয় গণমাধ্যম জাগরণের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কিছুদিন আগেই সুহানি পা ভেঙেছিলেন। দিল্লির একটি হাসপাতালে চিকিৎসা চলছিল তাঁর।

চিকিৎসকের পরামর্শে ওষুধ খেয়েছিলেন তিনি। কয়েকটি ভারতীয় গণমাধ্যমের দাবি, ভুল চিকিৎসায় ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া থেকে সুহানির মৃত্যু হতে পারে।

প্রসঙ্গত, ‘দঙ্গল’ ছবিতে কিশোরী ববিতা ফোগতের চরিত্রে অভিনয় করে প্রশংসিত হন সুহানি। ছবিতে সুপারস্টার আমির খান, সাক্ষী তানওয়ার, ফাতিমা সানা শেখ, সানিয়া মালহোত্রা ও জাইরা ওয়াসিমের সঙ্গে কাজ করেছিলেন তিনি। 

img

‘যেখানেই যাচ্ছি অনেক প্রশংসা পাচ্ছি’

প্রকাশিত :  ১০:২৪, ২৪ এপ্রিল ২০২৪

জনপ্রিয় ইপস্থাপক হানিফ সংকেতের ‘ইত্যাদি’র গানগুলোর কথা, সুর, শিল্পী নির্বাচন ও চিত্রায়ণ বেশ ব্যতিক্রমী হয়। সেই ধারাবাহিকতায় গেল রোজার ঈদের পর্বে একটি গানে কণ্ঠ দেন তাহসান খান ও তাসনিয়া ফারিণ।পেশাদার সংগীতশিল্পী না হয়েও তাহসানের সঙ্গে খুব চমৎকারভাবেই গানটি গেয়েছেন ফারিণ।

অভিনয়ে জনপ্রিয় ফারিণের টিভিতে গাওয়া এটিই প্রথম গান। প্রথম গানেই মাত করে দিয়েছেন তাসনিয়া ফারিণ। সামাজিক মাধ্যমে তাসনিয়া ফারিণের প্রশংসা করছেন নেটিজেনরা।

এ বিষয়ে ফারিণ নিজের ফেসবুকে লিখেছেন, ‘সত্যিই আপনাদের ভালোবাসায় আমি অভিভূত। গানটি এত এত ভালোবাসা পাবে, সেটা ভাবিনি। অনেক রিলস-ভিডিওর পাশাপাশি যেখানেই যাচ্ছি, অনেক প্রশংসা পাচ্ছি। অনেক কৃতজ্ঞতা।’ 

‘রঙে রঙে রঙিন হব’ শিরোনামে তাহসান-ফারিনের গাওয়া এ গানটির কথা লিখেছেন কবির বকুল এবং সুর ও সংগীতায়োজন করেছেন ইমরান মাহমুদুল।