img

দোনেৎস্কে ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় ৬০ রুশ সেনা নিহত

প্রকাশিত :  ১৬:১৭, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

দোনেৎস্কে ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় ৬০ রুশ সেনা নিহত

অধিকৃত পূর্ব ইউক্রেনের একটি প্রশিক্ষণ এলাকায় দুইটি ক্ষেপণাস্ত্রের আঘাতে অন্তত ৬০ রুশ সেনা নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছে আরও অনেক জন। খবর বিবিসি।

বুধবার পূর্ব ইউক্রেনের দনেৎস্ক অঞ্চলে রাশিয়া নিয়ন্ত্রিত প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় হতাহতের এই ঘটনা ঘটেছে।

ইউক্রেনের নিরাপত্তা সূত্রের বরাত দিয়ে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানানো হয়েছে। হামলার ঘটনার বিষয়ে অবগত একাধিক সূত্র বিবিসিকে বলেছে, রাশিয়ার সামরিক বাহিনীর জ্যেষ্ঠ একজন কমান্ডার দনেৎস্ক অঞ্চলে পৌঁছানোর কথা ছিল। তার আগে সেখানকার একটি প্রশিক্ষণ শিবিরে রুশ সৈন্যরা জড়ো হয়েছিলেন।

প্রশিক্ষণ শিবিরের ভিডিও ফুটেজে দেখা যায়, ঘটনাস্থলে অনেকের মরদেহ পড়ে আছে। রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সাথে দেশটির প্রতিরক্ষামন্ত্রী সের্গেই শোইগুর সাক্ষাতের কয়েক ঘণ্টা আগে হামলার এই ঘটনা ঘটেছে।

পরে পুতিনের সাথে বৈঠকে দনেৎস্কের ওই অঞ্চলসহ কয়েকটি এলাকায় রাশিয়ার সামরিক বাহিনী সফল হয়েছে। সম্প্রতি ইউক্রেনের সামরিক বাহিনীর কাছ থেকে রুশ সৈন্যদের আভদিভকা শহরের নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার বিষয়ে আলোচনা করেছেন তারা।

তবে দনেৎস্কের ট্রুডোভস্কি গ্রামের কাছের এই হামলার বিষয়ে রাশিয়া অথবা ইউক্রেন— কোনও দেশই আনুষ্ঠানিকভাবে কোনও মন্তব্য করেনি।

স্থানীয় গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, রাশিয়ার ৩৬তম মোটরচালিত রাইফেল ব্রিগেডের সদস্যরা সাইবেরিয়ার ট্রান্সবাইকাল অঞ্চলে অবস্থিত পূর্ব সামরিক অঞ্চলের ২৯তম সেনা কমান্ডের মেজর জেনারেল ওলেগ মোইসিয়েভের জন্য অপেক্ষা করছিলেন।

হামলায় বেঁচে যাওয়া একজন সৈন্য বলেছেন, ৩৬তম রাইফেল ব্রিগেডের কমান্ডাররা সৈন্যদের উন্মুক্ত স্থানে দাঁড়িয়ে থাকতে বাধ্য করেছিলেন। যুক্তরাষ্ট্রের তৈরি হাইমারস ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণ ব্যবস্থার মাধ্যমে সৈন্যদের লক্ষ্য করে দুটি ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়া হয়েছে।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে আসা ভিডিওতে দেখা যায়, হামলার পর ঘটনাস্থলে কয়েক ডজন সৈন্যের মরদেহ পড়ে আছে। হামলায় আহত দুই সৈন্য বলেছেন, অন্তত ৬০ জন নিহত হয়েছেন।

তবে হামলার এসব ভিডিওর সত্যতা এখনও যাচাই করা যায়নি বলে জানিয়েছে বিবিসি।

img

ইসরায়েলে সত্যিই হামলা চালাতে পারে ইরান: যুক্তরাষ্ট্র

প্রকাশিত :  ১৭:৩১, ১২ এপ্রিল ২০২৪
সর্বশেষ আপডেট: ১৯:১৫, ১২ এপ্রিল ২০২৪

ইহুদীবাদী রাষ্ট্র ইসরায়েলের ওপর ইরানের সরাসরি হামলার হুমকি নিছক কথার কথা নয়। বরং ইরানের এই হুমকি ‘বিশ্বাসযোগ্য এবং কার্যকর’ বলে মনে করছে হোয়াইট হাউস। 

ইসরায়েলের সামরিক সাইটগুলোতে ইরান ক্ষেপণাস্ত্র ও ড্রোন হামলা চালাতে পারে- এমন সংবাদ প্রচারের পরে হোয়াইট হাউস এই অভিমত ব্যক্ত করল। খবর দ্যা জেরুজালেম পোস্টের। 

মার্কিন জাতীয় নিরাপত্তা যোগাযোগ উপদেষ্টা জন কিরবি বলেছেন, ওয়াশিংটন অবশ্যই জনসাধারণের বিষয়ে সচেতন। ইরানের সম্ভাব্য হামলার হুমকিকে আমরা অত্যন্ত বিশ্বাসযোগ্য বলে মনে করি।

উপদেষ্টা জন কিরবি আরো বলেন, মার্কিন কর্মকর্তারা ইসরায়েলি কর্মকর্তাদের সঙ্গে নিরবচ্ছিন্ন যোগাযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন। যাতে তারা যেকোনো হামলা থেকে নিজেদের রক্ষা করতে পারে। আমরা এবং ইসরায়েলিরা বিষয়টিকে (ইরানের হুমকি) গুরুত্বসহকারে নিচ্ছি।

ইসরায়েলি প্রতিরক্ষামন্ত্রী ইয়োভ গ্যালান্ট শুক্রবার আইএএফ হাতজোর বিমানঘাঁটিতে মার্কিন কেন্দ্রীয় কমান্ডের কমান্ডার প্রধান জেনারেল মাইকেল এরিক কুরিলার সঙ্গে সাক্ষাতের সময় বলেন, আমরা আমাদের অংশীদারদের ঘনিষ্ঠ সহযোগিতায় জমিন ও আকাশে নিজেদের রক্ষা করতে প্রস্তুত। কীভাবে আমরা (হুমকি হামলার) প্রতিক্রিয়া জানাতে পারি, তা আমাদের জানা থাকবে।

ইরান দুয়েক দিনের মধ্যেই ইসরায়েলে হামলা চালাতে পারে , এমনটা বলছে যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দা তথ্য। হামলার ভয়ে শুক্রবার সতর্ক অবস্থায় রয়েছে ইহুদিবাদী দেশটি। মধ্য ইসরায়েলের একটি বিমানঘাঁটি পরিদর্শনের সময় দেশটির প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু বলেছেন, তারা একাধিক ফ্রন্টে ‘চ্যালেঞ্জিং সময়’ পার করছেন।

দুই দেশের মধ্যে ক্রমবর্ধমান উত্তেজনার মধ্যেই ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু বলেছেন, তার দেশ গাজা উপত্যকায় যুদ্ধ চালানোর পাশাপাশি অন্যান্য এলাকায় পরিস্থিতি মোকাবিলার জন্যও প্রস্তুতি নিচ্ছে। ইরানের প্রতিশোধমূলক হামলার আশঙ্কার মধ্যে বৃহস্পতিবার তিনি এ কথা বলেন।