img

লম্বা চুলের জন্য যে খনিজ উপকরণগুলো জরুরি

প্রকাশিত :  ০৫:১৬, ০১ এপ্রিল ২০২৪
সর্বশেষ আপডেট: ০৫:১৯, ০১ এপ্রিল ২০২৪

লম্বা চুলের জন্য যে খনিজ উপকরণগুলো জরুরি

চুলের সঠিক মাত্রায় বৃদ্ধির ক্ষেত্রে সাহায্য করে বিভিন্ন ধরনের খনিজ উপকরণ। চুলের স্বাস্থ্যের সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে রয়েছে আমাদের খাদ্যাভ্যাস।

বিভিন্ন ধরনের ভিটামিন এবং মিনারেলস সমৃদ্ধ স্বাস্থ্যসম্মত খাবার খেলে আপনার চুল সঠিক মাত্রায় লম্বায় বৃদ্ধি পাবে এবং সার্বিকভাবে ভাল থাকবে চুলের স্বাস্থ্য। 

জেনে নেওয়া যাক কোন খনিজ উপাদানের কি কাজ আর এটি কতটুকু জরুরি।

জিংক বা দস্তা

জিংক বা দস্তা চুলের সঠিক মাত্রায় বৃদ্ধির জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এছাড়াও চুলের রুক্ষ, শুষ্কভাব দূর করে এই খনিজ উপকরণ। এর পাশাপাশি চুল মাঝখান থেকে ভেঙে যাওয়া, চুলের ডগা ফেটে যাওয়ার মতো সমস্যাও দূর করে জিংক সমৃদ্ধ খাবার।

জিংক সমৃদ্ধ খাবার খেলে হেয়ার ফলিকলের মুখগুলি উন্মুক্ত হবে। ফলে নতুন চুল গজাবে। জিংক সমৃদ্ধ খাবার হিসেবে মাংস, বাদাম, বিভিন্ন বিনজাতীয় শস্য, ডালজাতীয় শস্য এগুলি খেতে পারেন, চুলের বৃদ্ধি ঘটবে।


আয়োডিন

চুলের স্বাস্থ্যের জন্য প্রয়োজনীয় উপকরণ হল আয়োডিন। এই উপকরণ স্ক্যাল্প বা মাথার তালুতে সঠিকভাবে রক্ত সঞ্চালন প্রক্রিয়া সম্পন্ন হতে সাহায্য করে। এছাড়াও সঠিক মাত্রায় থাইরয়েড হরমোনের ক্ষরণে সাহায্য করে যার ফলে নতুন চুল গজাতে পারে, চুল বৃদ্ধি পায় এবং চুলের ঘনত্ব বাড়ে।

খাবারের মধ্যে সঠিক পরিমাণে নুন থাকলেই আপনার শরীরে আর আয়োডিনের ঘাটতি হবে না। তাই বলে খাবারের পাতে কাঁচা নুন খেয়ে আয়োডিনের পরিমাণ বাড়াতে যাবেন না। তার জেরে হিতে বিপরীত হওয়ার সম্ভাবনাই বেশি।


সেলেনিয়াম

এটি আসলে এক ধরনের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যা চুলের অনেক সমস্যা দূর করে। তার মধ্যে চুল পড়া, পাতলা চুল, খুশকি এইসব রয়েছে। এছাড়াও চুলের ঘনত্ব বাড়াতে এবং চুলের সঠিক বৃদ্ধিতেও এই উপকরণ সহায়তা করে।


img

মাঝেমধ্যে একা চুপচাপ বসে থাকাও কেন জরুরি

প্রকাশিত :  ১২:৪৭, ২৪ এপ্রিল ২০২৪
সর্বশেষ আপডেট: ১২:৫৪, ২৪ এপ্রিল ২০২৪

সারাদিন তো কাজ আর কাজ। নিজের জন্য আলাদা করে সময় বের করার সময় পান না। মনোরোগ বিশেষজ্ঞদের মতে,ভালো থাকতে নিজেকে সময় দেওয়া খুবই জরুরি। এজন্য মাঝেমধ্যে একা একাই বসে থাকার চেষ্টা করবেন। এই বসে থাকা মানে শুধুই বসে থাকা। অর্থাৎ আর কোনও কাজ করা নয়। একদম চুপ করে বসে থাকা। গবেষকরা বলছেন, এর বেশ কিছু উপকার রয়েছে। এতে শরীর ও মন দুই-ই ভালো থাকে। 

চুপচাপ কোনও কাজ না করে বসে থাকলে কী কী উপকার হয়-

মেজাজ ভালো থাকে: মনোরোগ বিশেষজ্ঞদের মতে, এতে মন মেজাজ ভালো থাকে। কোনও কারণে মন বিক্ষিপ্ত ও খারাপ থাকলে এভাবে কিছুক্ষণ বসে থাকতে পারেন। নিজেকে সময় দিলে আবার পুরোনো পরিস্থিতিতে ফিরে আসা যায়। 

কাজ করার ক্ষমতা বাড়ে: চুপচাপ একাকী বসে থাকলে কাজ করার ক্ষমতাও বাড়ে। কারণ এতে মনঃসংযোগ করার ক্ষমতা বাড়ে। পাশাপাশি দক্ষতাও বাড়ে।

যে কোনও শিক্ষা গভীর হয়: প্রতিদিনই আমরা কোনো না কোনো অভিজ্ঞতার মধ্যে দিয়ে যাই‌। এসব আমাদের নানা শিক্ষা দেয়। কিন্তু এই শিক্ষাগুলি আত্মস্থ করার জন্য নিজের সঙ্গে নিজের বোঝাপড়া জরুরি। চুপটি করে বসে থেকে কোনও কাজ না করলে মন সেই সময়টা পায়। 

সৃজনশীল ক্ষমতা বাড়ে : একা কিছু না করে বসে থাকলে সৃজনশীল ক্ষমতা বাড়ে। মন নতুন কিছু ভাবতে পারে। 

চাপ কমে:  সারাদিন নানা ধরনের কাজের চাপে মন ও শরীর ক্লান্ত হয়ে পড়ে। চুপ করে বসে থাকলে এ ধরনের কমাতে সাহায্য করে। 

নিজেকে সময় দেওয়া: পরিবার, সংসার, অফিস সবকিছু সামলেও নিজেকে সময় দেওয়া খুব জরুরি। এভাবে কিছুক্ষণ কাজ না করে বসে থাকলে নিজেকে সময় দেওয়া যায়। যা নিজেকে ভালোভাবে গড়ে তুলতে ভুলগুলি শুধরে নিতে জরুরি।