img

ঘরেই বানিয়ে ফেলুন জিভে জল আনা হালিম

প্রকাশিত :  ১১:৩৬, ০১ এপ্রিল ২০২৪

ঘরেই বানিয়ে ফেলুন জিভে জল আনা হালিম

মাংস, কয়েক রকম ডাল, চাল ও নানা ধরনের মসলা সহযোগে তৈরি এই খাবার খেতে অত্যন্ত সুস্বাদু। বলছি হালিমের কথা। ঝাল স্বাদের এই খাবার খেতে ভালোবাসেন না, এমন মানুষ কমই পাওয়া যাবে। দিনভর রোজা রাখার পর ইফতারে কত কিছুই না খেতে মন চায়। হালিম ইফতারে ভিন্ন মাত্রা যোগ করে। মজাদার হালিমের কথা মনে হলে জিভে জল এসে যায়। 

স্বাস্থ্যকর উপায়ে ঘরেই বানিয়ে ফেলতে পারেন হালিম। হালিমের রেসিপি সম্পর্কে জেনে নিন-

তেল গরম করে ১ কাপ পেঁয়াজ কুচি ভাজুন। হালকা বাদামি হয়ে আসলে ১ চা চামচ হলুদ গুঁড়া, ১ চা চামচ মরিচ গুঁড়া, আড়াই টেবিল চামচ হালিমের মসলা, আধা চা চামচ আদা বাটা ও আধা চা চামচ রসুন বাটা দিন। 

স্বাদ মতো লবণ দিয়ে কষিয়ে নিন মসলা। ১ কেজি গরুর মাংস ছোট টুকরা করে দিয়ে দিন। নেড়েচেড়ে ঢাকনা দিয়ে ঢেকে দিন হাঁড়ি। ১০ মিনিট পর মাংস থেকে পানি বের হয়ে গেলে আবারও নেড়ে দিন। ২ কাপ পানি দিয়ে মাঝারি আঁচে সেদ্ধ করুন মাংস।

এরমধ্যে ১/৪ কাপ গম, আধা কাপ বুটের ডাল, কোয়ার্টার কাপ মুগ ডাল, কোয়ার্টার কাপ একসঙ্গে  ধুয়ে সামান্য পানি দিয়ে পেস্ট করে নিন। একদম মিহি করার প্রয়োজন নেই। মাংস খানিকটা সেদ্ধ হলে চাল-ডালের মিশ্রণ দিয়ে নেড়েচেড়ে ৫ কাপ পানি দিয়ে দিন। ঘনঘন নাড়ুন। 

একটু পাতলা থাকাবস্থায় নামিয়ে ফেলুন। নামানোর আগে ২ টেবিল চামচ তেঁতুলের পানি দিন। লেবু, ধনেপাতা কুচি, পেঁয়াজ বেরেস্তা ও আদা কুচি করে উপরে ছিটিয়ে পরিবেশন করুন গরম গরম। 

পাত্রে শশা-টমোটের মিশ্রণ রাখতে পারেন। হালিমের সঙ্গে এই সালাদ স্বাদ বৃদ্ধি করবে।

img

ঈদের পর ফিট থাকতে করণীয়

প্রকাশিত :  ১১:২৩, ২০ জুন ২০২৪

উৎসব মানেই যেন পেট পুরে খাওয়া। ফিটনেস বা সুঠাম দেহ বলে যে একটা বিষয় আছে, তা আমরা ভুলে যাই। ভুললেই কিন্তু বিপত্তি! শরীর যেন বিগড়ে না যায়, সেদিকে খেয়াল রাখা জরুরি। ঈদের পর ফিটনেস সচেতনদের ভাবতে হয় অনেক কিছুই। জেনে নিন বিরতির পর কীভাবে শুরু করবেন ব্যায়াম।  

শরীরচর্চায় ছন্দপতন হলে, একটু একটু করে আবার ব্যায়াম শুরু করুন। কারণ হুট করে আগের মতো ছন্দে ফেরাটা কঠিন। ব্যায়ামের শুরুতেই অল্প দূরত্বে দৌড়ে নিলে শরীর উষ্ণ হবে। এক্ষেত্রে অবশ্য সাইক্লিং, দড়ি লাফানো খুব ভালো ব্যায়াম। দ্রুত ওজন কমাতে বেঞ্চ বেলি, পুশআপ দিতে পারেন। প্রথম দিকে অল্পতে কষ্ট হলেও নিয়মিত করলে আগের অবস্থানে ফিরে যেতে বেশি সময়ের প্রয়োজন হবে না।

অনেক দিন বিরতির পর টানা ব্যায়াম করবেন না। দরকার হলে মিনিট দশ করার পর বিশ্রাম নিন। দিনের শুরুতে ব্যায়াম করার চেষ্টা করবনে। মানে, ঘুম থেকে উঠে নাশতা খাওয়ার আগে শরীরচর্চা করার চেষ্টা করলে বেশি উপকার পাবেন। 

গরমে কারণে প্রচুর পরিমাণে পানি পান করবেন। দিনে ভারী খাবারের পাশাপাশি ফলজাতীয় খাবারের পরিমাণ বাড়িয়ে দিন। মাংস, পোলাও, খিচুড়ি, বিরিয়ানি, কাবাব আর বোরহানি-কোমল পানীয় না খেয়ে শাকসবজি খাওয়া বাড়িয়ে দিন। 

হৃদরোগ, উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস, স্থূলতা, আর্থ্রাইটিস থেকে রক্ষা পেতে শরীরচর্চার কোনো বিকল্প এখন অবধি আবিষ্কার হয়নি। দীর্ঘ বিরতির পর শরীরচর্চা শুরু করলে মাংসপেশিতে ব্যথা ও ইনজুরি হতে পারে, হৃৎপিণ্ডও হঠাৎ তাল মেলাতে পারবে না। তাই ক্ষেত্রবিশেষে প্রয়োজন মনে করলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে পারেন।