img

কোভিডের চেয়েও ১০০ গুণ খারাপ হতে পারে বার্ড ফ্লু !

প্রকাশিত :  ০৯:৪৮, ১৭ এপ্রিল ২০২৪
সর্বশেষ আপডেট: ০৯:৫৫, ১৭ এপ্রিল ২০২৪

কোভিডের চেয়েও ১০০ গুণ খারাপ হতে পারে বার্ড ফ্লু !

পুরো বিশ্ব এখনও করোনাভাইরাস মহামারি থেকে পুরোপুরি বেরিয়ে আসেনি। এরই মধ্যে এখন এইচফাইভএনওয়ান অর্থাৎ বার্ড ফ্লু মহামারি ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা দেখছেন বিজ্ঞানীরা। এটি কোভিড-১৯ এর থেকেও মারাত্মক একটি রোগ। বিজ্ঞানীরা এবং বিশেষজ্ঞরা এ বিষয়েই সতর্ক করে জানিয়েছেন যে বার্ড ফ্লু মহামারী করোনার চেয়ে ১০০ গুণ বেশি বিপজ্জনক হতে পারে এবং এর ফলে সংক্রামিতদের ৫০ শতাংশের মৃত্যুও হতে পারে।

সাম্প্রতিক এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বার্ড ফ্লু মহামারি দ্রুত ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা। তাঁরা বলছেন, এইচফাইভএনওয়ান ভাইরাস কোভিড-১৯-এর চেয়ে বহুগুণ বেশি ধ্বংসাত্মক হতে পারে। ব্রিটেন ভিত্তিক ট্যাবলয়েড ডেইলি মেইলের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বার্ড ফ্লুর এইচফাইভএনওয়ান স্ট্রেন ভাইরাস বিশ্বব্যাপী মহামারি হয়ে উঠতে পারে। এমনটাই নাকি ইঙ্গিত দিয়েছেন ভাইরাস নিয়ে গবেষণাকারী বিজ্ঞানীরা।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, গত দুই দশকে বার্ড ফ্লু সংক্রমণের কারণে ৪৬০ জনেরও বেশি মানুষ মারা গিয়েছেন। আক্রান্তদের বেশিরভাগই সরাসরি পাখি থেকে সংক্রমিত পেয়েছিলেন। জানা গিয়েছে, ইতিমধ্যেই গরু, বিড়াল এবং মানুষ সহ বিভিন্ন স্তন্যপায়ী প্রাণীর মধ্যে বেশ কিছু এইচফাইভএনওয়ান সংক্রমণ পাওয়া গিয়েছে। এই ভাইরাস এখন দ্রুতগতিতে মানুষের মধ্যেও ছড়াতে শুরু করেছে। সম্প্রতি, টেক্সাসে ঘটে যাওয়া একটি ঘটনা তারই জ্বলন্ত উদাহরণ।

স্তন্যপায়ী প্রাণীর থেকে হতে পারে সংক্রমণ

টেক্সাসে গরুর সংস্পর্শে আসা এক ব্যক্তি বার্ড ফ্লুতে আক্রান্ত হয়েছেন। রোগীকে অ্যান্টিভাইরাল ওষুধ দেওয়া হচ্ছে। এই ব্যক্তির বার্ড ফ্লুর একমাত্র লক্ষণ হিসাবে তাঁর চোখ লাল হতে দেখা গিয়েছিল। বার্ড ফ্লু, যা এভিয়ান ইনফ্লুয়েঞ্জা নামেও পরিচিত, একটি ভাইরাস যা প্রাথমিকভাবে পাখিদের প্রভাবিত করে। এদিকে গরুর থেকে এই সংক্রমণ হওয়ায় স্বাস্থ্য আধিকারিকরা তাই বলেছেন যে বিশ্বব্যাপী কোনও স্তন্যপায়ী প্রাণী থেকে এই ধরণের বার্ড ফ্লু সংক্রমণের এটি প্রথম পরিচিত ঘটনা।

এই ভাইরাসের লক্ষণ

জ্বর, কাশি, গলা ব্যথা, পেশী ব্যথা, ক্লান্তি, মাথাব্যথা, ডায়রিয়া, বমি, শ্বাসকষ্ট, নিউমোনিয়া ইত্যাদি।

কীভাবে রেহাই পাবেন

১) সংক্রামিত পাখির সংস্পর্শ এড়িয়ে চলুন

২) মৃত পাখি স্পর্শ করবেন না।

৩) পোল্ট্রি পণ্য পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে রান্না করুন।

৪) ঘন ঘন হাত ধোবেন।

৫) কাশি বা হাঁচির সময় মুখ ও নাক ঢেকে রাখুন।

৬) আপনি অসুস্থ হলে, একজন ডাক্তারের সঙ্গে যোগাযোগ করুন এবং অন্য ব্যক্তিদের থেকে দূরে থাকুন।

মানুষের মধ্যে বার্ড ফ্লু সনাক্ত করা কঠিন

২০২০ সাল থেকে, বার্ড ফ্লু ভাইরাস বিভিন্ন দেশে কুকুর, বিড়াল, ভাল্লুক এমনকি সীলের মতো প্রাণীদের মধ্যেও ছড়িয়ে পড়ছে। সাবেক সিডিসি মহামারী বিশেষজ্ঞ ডাঃ আলী খান এ প্রসঙ্গে বলেছেন, আমেরিকান প্রাণীদের মধ্যে এই রোগ শনাক্ত করা সহজ নয়। ১৯৯৭ সালে হংকংয়ে ছড়িয়ে পড়ার সময় এই বার্ড ফ্লু ভাইরাসটি প্রথম মানুষের জন্য হুমকি হতে পারে, তা জানা গিয়েছিল।


img

মস্তিষ্কের বয়স কমানোর যোগসূত্র পেয়েছেন বিজ্ঞানীরা

প্রকাশিত :  ১০:১০, ২৭ মে ২০২৪
সর্বশেষ আপডেট: ১০:১২, ২৭ মে ২০২৪

যুক্তরাষ্ট্রের বিজ্ঞানীরা নতুন এক গবেষণায় খাদ্যের পুষ্টি উপাদানের সঙ্গে মস্তিষ্কের বয়স বাড়ার গতি কমানোর যোগসূত্র পেয়েছেন।

ইউনিভার্সিটি অব ইলিনয় ও নেব্রাস্কা-লিংকন বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকেরা এই গবেষণা পরিচালনা করেন। নির্দিষ্ট খাদ্য ও মস্তিষ্কের বয়স বাড়ার গতি কমানোর মধ্যে সংযোগ খোঁজার জন্য পুষ্টিকর উপাদান গ্রহণের বিপরীতে ৬৫ থেকে ৭৫ বছর বয়সী ১০০ জন স্বেচ্ছাসেবকের মস্তিষ্কের স্ক্যান করেন গবেষকেরা।

মস্তিষ্কের বয়স বাড়ার দুটি স্বতন্ত্র ধরন শনাক্ত করেন তারা। এর মধ্যে ধীর গতিতে মস্তিষ্কের বয়স বাড়ার সঙ্গে পুষ্টিকর উপাদানের সম্পর্ক পাওয়া গেছে। এসব উপাদান ভূমধ্যসাগরীয় খাবারে পাওয়া যায়। আর আগের গবেষণায় দেখা যায়, এই ধরনের খাবার মানুষের দেহের জন্য সবচেয়ে ভালো।

ইলিনয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নিউরোসায়েন্টিস্ট অ্যারন বারবে বলেন, ‘আমরা নির্দিষ্ট পুষ্টির বায়োমার্কারগুলো (জৈবিক অবস্থার অবস্থার পরিমাপযোগ্য সূচক) পর্যবেক্ষণ করেছি। যেমন–ফ্যাটি অ্যাসিড, যা পুষ্টিবিজ্ঞানে বিভিন্ন স্বাস্থ্য সুবিধা প্রদানের জন্য পরিচিত।

গবেষকেরা শুধুমাত্র অংশগ্রহণকারীদের নিজেদের দেওয়া খাদ্যের গ্রহণের প্রতিবেদনের ওপর নির্ভর করেননি। এর পরিবর্তে পুষ্টির বায়োমার্কারগুলো সন্ধান করার জন্য রক্তের নমুনা বিশ্লেষণ করেন। বয়স্ক ব্যক্তিরা কী খাচ্ছেন ও পান করছেন তার জন্য শক্ত বৈজ্ঞানিক প্রমাণ হলো এসব বায়োমার্কার।

মাছ ও জলপাইয়ের তেলের থাকা ফ্যাটি অ্যাসিড এবং পালং শাক ও বাদামে উপস্থিত ভিটামিন ই-এর মতো অ্যান্টিঅক্সিডেন্টগুলো উপকারী বায়োমার্কার হিসেবে চিহ্নিত করার মধ্যে রয়েছে। পাশাপাশি গাজর ও কুমড়ায় পাওয়া ক্যারোটিনয়েড শরীরের প্রদাহ কমায় ও কোষকে রক্ষা করে। 

ধীর গতিতে বয়স বাড়ার সঙ্গে কোলিন নামের আরেকটি বায়োমার্কারের সম্পর্ক পাওয়া গেছে। এটি ডিমের কুসুম ও কাঁচা সয়াবিনে উচ্চ ঘনত্বে থাকে। 

মস্তিষ্কের এমআরআই স্ক্যান এবং বুদ্ধিবৃত্তিক মূল্যায়ন উভয়ের মাধ্যমে মস্তিষ্কের বয়স বাড়ার বিষয়টি পর্যবেক্ষণ করেছেন গবেষকেরা। দুই পদ্ধতি একই সঙ্গে ব্যবহারের ফলে মস্তিষ্কের নিউরনগুলো কার্যক্রম ও মানসিক তৎপরতার একটি বিস্তৃত চিত্র উঠে এসেছে। 

বারবে বলেন, আমরা একই সঙ্গে মস্তিষ্কের গঠন, কার্যক্রম ও বিপাকক্রিয়া পর্যবেক্ষণ করি। মস্তিষ্কের বৈশিষ্ট্য ও জ্ঞানীয় ক্ষমতার মধ্যে যোগসূত্র রয়েছে তা এর মাধ্যমে বোঝা যায়। মস্তিষ্কের বয়স বাড়ার গতি কমাতে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে পুষ্টি। 

মস্তিষ্ক কীভাবে শরীরের প্রতিটি অংশ ও কাজের সঙ্গে ঘনিষ্ঠভাবে সংযুক্ত তা সম্পর্কে আরও অন্তর্দৃষ্টি প্রদান করতে সহায়তা করে প্রতিটি নতুন গবেষণা।

শুধুমাত্র একটি অংশ তুলে ধরেছে এই গবেষণা। গবেষণাটি কারণ ও প্রভাব প্রমাণ করার জন্য যথেষ্ট নয়। ২০২৩ সালের একটি গবেষণায় একই রকম ফলাফল পাওয়া গিয়েছিল। সেই গবেষণায় ১২ বছর ধরে অংশগ্রহণকারীদের পর্যবেক্ষণ করা হয়। ভূমধ্যসাগরীয় খাদ্য ও বুদ্ধিবৃত্তিক ক্ষমতার মধ্যে সম্পর্ক খুঁজে পাওয়া গিয়েছিল এই গবেষণায়। 

খাদ্য ও পুষ্টি মস্তিষ্কের বয়স বাড়ার গতিতে কীভাবে প্রভাবিত করতে পারে তার জন্য ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল (মানুষের ওপর পরীক্ষা) শুরু করতে চায় গবেষকরা। পুষ্টিকর খাবার আলঝেইমার বা স্মৃতিভ্রমের মতো নিউরোডিজেনারেটিভ রোগের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করতে পারে। 


গবেষণাটি নেচার জার্নালে এনপিজি অ্যাজিং বিভাগে প্রকাশিত হয়েছে।