img

ট্রাম্পের জেল চান স্টর্মি ড্যানিয়েলস

প্রকাশিত :  ১৪:১৯, ০২ জুন ২০২৪

ট্রাম্পের জেল চান স্টর্মি ড্যানিয়েলস

আদালতে যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প দোষী সাব্যস্ত হওয়ার পর তার জেল দাবি করেছেন সাবেক পর্নো তারকা স্টর্মি ড্যানিয়েলস (৪৫)। এবার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রিপাবলিকান দল থেকে প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প। তাকে স্টর্মি ড্যানিয়েলস সতর্ক করে বলেছেন, এই প্রেসিডেন্ট প্রার্থী পরিপূর্ণভাবে এবং আক্ষরিক অর্থে বাস্তবতার বাইরে। খবর দ্য গার্ডিয়ানের

স্টর্মি ড্যানিয়েলসের অভিযোগ, তার সঙ্গে ডোনাল্ড ট্রাম্প শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করেছিলেন। এরপর ২০১৬ সালে প্রথম তিনি প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হন। সে সময় স্টর্মি ড্যানিয়েলস যাতে এ সম্পর্ক নিয়ে মুখ না খোলেন সে জন্য তাকে এক লাখ ৩০ হাজার ডলার দিয়েছিলেন ট্রাম্প। এ অভিযোগের সঙ্গে মোট ৩৪টি অভিযোগেই ট্রাম্পকে দোষী সাব্যস্ত করেছে আদালত। স্টর্মি ড্যানিয়েলস বলেছেন, আমি মনে করি ট্রাম্পকে জেল দেওয়া উচিত। 

নিউইয়র্কের আদালত তার সাক্ষ্যকে বিশ্বাস করে ট্রাম্পকে দ্রুততার সঙ্গে অভিযুক্ত করেছে। এটা দেখে স্টর্মি ড্যানিয়েলস বিস্ময় প্রকাশ করেছেন। তিনি মনে করেন, এজন্য ট্রাম্পের সমর্থকদের কাছ থেকে তিনি হত্যার হুমকি থেকে মুক্তি নাও পেতে পারেন। ট্রাম্পের সে সময়কার আইনজীবী মাইকেল কোহেন তাকে অর্থ দিয়েছেন, এ নিয়ে যখন থেকে তিনি মুখ খুলেছেন, তখন থেকেই এমন হুমকি পাচ্ছেন ড্যানিয়েলস। 

তিনি বলেছেন, আদালতে আমি পুরো সময়ই সত্য কথা বলেছি। বিষয়টি শেষ হয়ে যায়নি। আমার জীবন থেকে এটা কখনোই সরে যাবে না। ট্রাম্প হয়তো দোষী হয়েছেন। কিন্তু এই লিগ্যাসি নিয়েই আমাকে বেঁচে থাকতে হবে।

img

‘বাংলাদেশের বর্তমান অবস্থায় চুপ করে বসে থাকতে পারি না’

প্রকাশিত :  ১১:০২, ১৮ জুলাই ২০২৪

বাংলাদেশের কোটা সংস্কার আন্দোলন নিয়ে সরব হলেন ভারতীয় সংগীতশিল্পী কবীর সুমন। আজ বৃহস্পতিবার সকালে এক ফেসবুক পোস্টে সব পক্ষকে হানাহানি বন্ধের অনুরোধ করেছেন তিনি।

কবীর সুমন লিখেছেন, ‘...বাংলাদেশের বর্তমান অবস্থায় চুপ করে বসে থাকতে পারি না। থেকেছি কয়েক দিন, আর পারছি না। কিন্তু অবস্থাটা যে ঠিক কী, কী কী কারণে এমন হলো এবং হচ্ছে, কারা যে এতে জড়িত, তা–ও তো ঠিকমতো জানি না। তা–ও করজোড়ে সব পক্ষকে মিনতি করছি, অনুগ্রহ করে হিংসা, হানাহানি বন্ধ করুন। ঢাকা সরকারকে অনুরোধ করছি, বাংলা ভাষার কসম, শান্তি রক্ষার চেষ্টা অব্যাহত রাখুন। আপনাদের ছাত্রবাহিনী যেন হিংসার আশ্রয় না নেয়।’

ভারতের গণ্ডি পেরিয়ে বাংলাদেশের শ্রোতাদের মধ্যেও জনপ্রিয়তা রয়েছে কবীর সুমনের। তিনি লিখেছেন, ‘আর কী বলি, আমি তো সশরীর যেতে পারছি না ঢাকায়, পারলে যেতাম। রাস্তায় বসে পড়ে সবাইকে শান্তিরক্ষার জন্য আহ্বান করতাম।’

দীর্ঘ পোস্টের শুরুতে তিনি লেখেন, ‘আমি ভারতের নাগরিক। বাংলাদেশ আমাদের প্রতিবেশী। তার বিষয়–আসয়ে নাক গলানোর অধিকার আমার নেই। সেটা করতে চাইও না। তবু বাংলাদেশের অনেকের কাছ থেকে যে ভালোবাসা আমি পেয়েছি, তা ভুলে থাকতেও পারছি না। ভুলবই–বা কেন। ছবি দেখছি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের। মিছিল করছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র–ছাত্রীরা। নেপথ্যে শোনা যাচ্ছে কাজী নজরুল ইসলামের ‘কারার ঐ লৌহ–কবাট/ ভেঙে ফেল্ কর্‌রে লোপাট’; মনে হচ্ছে, গানটি এডিট করে বসানো হয়েছে ভিডিওর সঙ্গে। ঠিক কাজই করা হয়েছে। কত সময়ে দেখেছি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র–ছাত্রীরা আমার গানের লাইন লিখে দিয়েছেন দেয়ালে। পশ্চিমবঙ্গে সে তুলনায় কিছুই দেখিনি। বলতে দ্বিধা নেই, মনে মনে আমি বাংলাদেশেরও নাগরিক।’

কবীর সুমনের ভাষ্যে, ‘আমার জীবনের সেরা কাজ এবং আমার জীবনসায়াহ্নের প্রধান কাজ বাংলা খেয়াল বাংলাদেশে চর্চা করা হয়ে থাকে। বাংলাদেশের শিল্পী মরহুম আজাদ রহমান বেশ কিছু বাংলা খেয়াল রচনা করে গেছেন বিভিন্ন রাগে। বাংলা ভাষা আর বাংলা খেয়ালের মাধ্যমে বাংলাদেশের সঙ্গে আমি বাঁধা ভালোবাসার বন্ধনে।’

পোস্টের শেষভাগে তিনি লিখেছেন, ‘হানাহানি বন্ধ হোক। বন্ধ হোক উল্টোপাল্টা কথা বলে দেওয়া। বাঁচুক বাংলাদেশ। বাঁচুন বাংলাদেশের সবাই। জয় বাংলাদেশ, জয় মুক্তিযুদ্ধ, জয় অসংখ্য বাংলাদেশির শাহাদাত ও অপূরণীয় ক্ষতিস্বীকার। জয় বীরাঙ্গনার। জয় বাংলা ভাষার।’

১৯৯২ সালে ‘তোমাকে চাই’ অ্যালবাম প্রকাশ করে জনপ্রিয়তার তুঙ্গে উঠে আসেন কবীর সুমন। একসময় স্থানীয় রাজনীতিতে সক্রিয় হন নিজের মতো করে। নন্দীগ্রাম আর সিঙ্গুর আন্দোলনে দাঁড়িয়েছিলেন মমতার পাশে।

তারপর যাদবপুর কেন্দ্র থেকে তৃণমূলের টিকিটে সংসদ সদস্য হন। কিন্তু বনিবনা না হওয়ায় পরে তৃণমূল ছাড়েন। তাঁর জন্ম ভারতের ওডিশায়, ১৯৪৯ সালের ১৬ মার্চ।