img

পেটের মেদ কমাবে এই ৫ পানীয়

প্রকাশিত :  ১২:২৩, ০৩ জুন ২০২৪

পেটের মেদ কমাবে এই ৫ পানীয়

পেটের মেদ প্রধান কারণ অনিয়মিত আর অস্বাস্থ্যকর খাবার, অনিয়মিত ঘুম এবং শরীরচর্চার অভাব। পেটের মেদ বাড়লে দেখতে যে কেবল খারাপ লাগে তাই নয়, সেইসঙ্গে বিভিন্ন অসুখের কারণও হতে পারে। তাই পেটের বাড়তি মেদ ঝরানোর স্বাস্থ্যকর উপায় বেছে নিতে হবে। কিছু উপকারী পানীয় আছে যেগুলো পান করলে এই যাত্রা অনেকটাই সহজ হবে। চলুন জেনে নেওয়া যাক-

১. পালং শাকের জুস

পালং শাকের পুষ্টিগুণ নিয়ে নতুন করে বলার কিছু নেই। এটি আমাদের শরীরের জন্য অত্যন্ত উপকারী। কম ক্যালোরি ও প্রচুর ফাইবার সমৃদ্ধ এই শাক আপনার মেদ কমানোর অন্যতম হাতিয়ার হতে পারে। এই শাকের প্রচুর আয়রনও থাকে। ফলে ওজন কমানো সহজ হয়। পালং শাকের জুস তৈরি করে খেলে তা আপনাকে পেটের মেদ দ্রুত কমাতে সাহায্য করবে।

২. শসা ও মাল্টার জুস

শসায় ৯৫ শতাংশ পানি রয়েছে এবং মাল্টা ভিটামিন সি সমৃদ্ধ। এই দুই উপকরণ একসঙ্গে জুস করে খেলে তা আপনাকে একগুঁয়ে পেটের চর্বি কমাতে সাহায্য করবে এবং সেইসঙ্গে পুষ্টিও দেবে। তাই পেটের মেদ কমাতে এই জুস তৈরি করে খেতে পারেন।

৩. লাউয়ের জুস

লাউয়ে উচ্চ ফাইবার এবং কম ক্যালোরি থাকায় এটি পেটের চর্বি কমানোর জন্য আদর্শ একটি খাবার। লাউয়ের জুস তৈরি করে খেলে এই উপকার পাবেন। পানীয়টি আরও সুস্বাদু এবং ভিটামিন সি সমৃদ্ধ করতে এই রেসিপিটিতে আনারস এবং কমলাও যোগ করতে পারেন।

৪. আমলকির জুস

আমলকির জুস ক্ষারীয় প্রকৃতির এবং এটি আমাদের পাচনতন্ত্রকে সহায়তা করে। এটি বিপাককে উন্নত করতে এবং শরীর থেকে বিষাক্ত পদার্থ বের করে দিতে সাহায্য করে। তাই এই জুস নিয়মিত পান করুন এবং একগুঁয়ে পেটের মেদকে বিদায় জানান। কাঁচা আমলকি চিবিয়ে খেলেও এক্ষেত্রে উপকার পাবেন।

৫. বাঁধাকপির জুস

বাঁধাকপি ভিটামিন এবং খনিজ পদার্থে পরিপূর্ণ যা আমাদের শরীরে পর্যাপ্ত পুষ্টি জোগায়। এটি অন্ত্রের উপরের অংশকে বিশুদ্ধ করতে সাহায্য করে এবং সহজেই শরীর থেকে বর্জ্য পদার্থ অপসারণ করে। বাঁধাকপির জুস আপনার হজম প্রক্রিয়াকে সহজ করে। এটি নিয়মিত পান করলে পেটের মেদ দূর হয়।



img

কিভাবে খুব দ্রুত রোদে পোড়া ত্বক উজ্জ্বল করে তুলতে পারবেন?

প্রকাশিত :  ১১:০৩, ১১ জুলাই ২০২৪

তীব্র তাপদাহে কাজের জন্য বাসা থেকে বের হতেই হয়। অনেকে রোদে বের হওয়ার আগে জেল, ক্রিম, পাউডার, সানস্ক্রিনসহ বিভিন্ন প্রসাধনী ব্যবহার করে থাকে। তবুও অনেকের রোদে পোড়া দাগ দেখা যায়।

রোদে ত্বক পুড়ে গেলে ত্বকের লাবণ্য কমে যায়। এর প্রধান কারণ হলো সূর্যের অতিবেগুনি রশ্মি। এদিকে রোদে পোড়া দাগ নিয়ে অনেকের চিন্তার শেষ নেই। নিয়মিত সানস্ক্রিন লাগানো সত্ত্বেও যাদের ত্বক রোদে পুড়ে গেছে বা ট্যানড হয়ে গেছে, তারা এবার ঘরোয়া উপায়েই ফিরে পেতে পারেন ত্বকের স্বাভাবিক রং। চলুন সে সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নিই-

অ্যালোভেরা

আপনার ত্বক রোদে পুড়ে গেলে আপনি অ্যালোভেরা ব্যবহার করতে পারেন। আপনি অ্যালোভেরা দিয়ে আইসকিউব তৈরি করে সেটি নিয়মিত ত্বকে ব্যবহার করতে পারেন। এটি আপানার ত্বকের জ্বালা বন্ধে বেশ কার্যকরী।

অ্যাপল সিডার ভিনেগার

ত্বক রোদে পুড়ে গেলে বা জ্বালা করলে ভরসা রাখুন অ্যাপল সিডার ভিনেগারের উপর। এর জন্য পরিমাণমতো অ্যাপল সিডার ভিনেগারের সাথে পানি মিশিয়ে নিন। মিশ্রণটি এক টুকরা পরিষ্কার কাপড় ভিজিয়ে রোদে পোড়া ত্বক মুছে নিন। অথবা স্প্রে বোতলে নিয়ে প্রয়োজনমতো স্প্রে করতে পারেন।

মধু

মধুর অ্যান্টিসেপটিক গুণ রোদে পোড়া ক্ষতিগ্রস্ত ত্বকের খুবই উপযোগী। রোদে পোড়া ত্বকে মধু লাগিয়ে আলতো করে গজ ব্যান্ডেজ দিয়ে ঢেকে দিন, নিমেষে আরাম পাবেন।

কালো চা

চায়ের ট্যানিক অ্যাসিড ত্বকের পিএইচ ব্যালান্স বজায় রাখে, জ্বালাভাব কমিয়ে ত্বক শীতল করে। টি ব্যাগ দিয়ে চা তৈরি করে নেয়ার পর ব্যাগগুলো ফ্রিজে রেখে ঠান্ডা করুন। তারপর রোদে পোড়া ত্বকে চেপে চেপে লাগিয়ে নিন ঠান্ডা চা। জ্বালাভাব আর ত্বকের ট্যান দুটোই কমবে।

আলুর রস

ত্বকের যেকোনো কালো দাগ দূর করে, চোখের চারপাশের কালচেভাব কমাতে সাহায্য করে আলুর রস। আলু ত্বকে আরাম দেয়ার পাশাপাশি এতে থাকা ব্লিচিং উপাদান ত্বককে উজ্জ্বল করতেও সাহায্য করে। রোদে পোড়া দাগ দূর করতে আলুর রস সরাসরি ত্বকে ব্যবহার করা যায়। অথবা আলু পাতলা করে কেটে তা চোখের ওপরের অংশ ও দাগের ওপর ব্যবহার করা যেতে পারে।

 চালের আটা, টমেটো ও চিনি

টমেটোতে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট রয়েছে। টমেটোর সাথে চালের আটা ও চিনি মিশিয়ে আপনি স্ক্রাব করতে পারেন। এতে মুহূর্তেই আপনার ত্বক উজ্জল দেখাবে। এর পাশাপাশি আপনার ত্বকের মরা কোষগুলোও রিমুভ হবে।

চিনি, গ্লিসারিন ও লেবু

রোদে পোড়া ত্বকের জন্য চিনি, গ্লিসারিন ও লেবুর মিশ্রণ বেশ ভালো কাজ করে। এক টেবিল চামচ চিনির সঙ্গে আধা চা চামচ গ্লিসারিন ও এক টেবিল চামচ লেবুর রস মেশান। এটি ঘষে ঘষে লাগান স্ক্রাবের মতো। এই মিশ্রণটি ত্বকে কিছুক্ষণ রেখে ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে দুই থেকে তিনবার ব্যবহার করুন।

লেবুর খোসা ও দুধ

লেবু অথবা কমলার খোসা ত্বক ফরসা করতে সাহায্য করে। এগুলোর খোসা শুকিয়ে গুঁড়া করে রাখতে পারেন। এক টেবিল চামচ লেবু কিংবা কমলার খোসা গুঁড়ার সঙ্গে এক টেবিল চামচ কাঁচা দুধ মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। রোদে পোড়া ত্বকে লাগান মিশ্রণটি। শুকিয়ে গেলে ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে দুই থেকে তিনবার ব্যবহার করতে পারেন এই ফেসপ্যাক।

কলা, লেবু ও দুধ

অর্ধেক কলা চটকে এক চা চামচ লেবুর রস ও এক চা চামচ দুধ মেশান। রোদে পোড়া ত্বকে ১৫ মিনিট লাগিয়ে রাখুন মিশ্রণটি। কুসুম গরম পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

দই ও মধু

দুই টেবিল চামচ টক দইয়ের সঙ্গে এক চা চামচ মধু মিশিয়ে নিন। মিশ্রণটি পুরু করে লাগান রোদে কালচে হয়ে যাওয়া ত্বকে। শুকিয়ে গেলে ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এক দিন পর পরই ব্যবহার করতে পারেন এই ফেসপ্যাক।

শসা ও লেবু

অর্ধেক শসা কুচি করে কয়েক ফোঁটা লেবুর রস মেশান। চাইলে ব্লেন্ড করে নিতে পারেন মিশ্রণটি। এটি নিয়মিত ব্যবহারে দূর হবে ত্বকের রোদে পোড়া দাগ।

সূত্র: ফেমিনা