img

সিলেটে ওসমানী মেডিকেলে হাঁটু পানি, দুর্ভোগে রোগীরা

প্রকাশিত :  ০২:০৩, ০৪ জুন ২০২৪

সিলেটে ওসমানী মেডিকেলে হাঁটু পানি, দুর্ভোগে রোগীরা

ভারী বৃষ্টিপাতে তীব্র জলাবদ্ধতায় দুর্ভোগে পড়েছেন সিলেট নগরবাসী। নগরীর সুরমা তীরবর্তী বাসা-বাড়িতে পানি জমেছে। এছাড়া তুলনামূলক নিচু এলাকার পাড়া-মহল্লার বাসা-বাড়ির নিচতলায় পানি উঠেছে। অনেক সড়ক ডুবে যানবাহন চলাচলও বন্ধ হয়ে পড়েছে। বাসা-বাড়ি, দোকানপাটের মূল্যবান জিনিসপত্র ভিজে নষ্ট হয়েছে।

গতকাল রোববার রাত ১টার দিকে ভারী বৃষ্টি শুরু হয়ে একটানা চলে কয়েকঘণ্টা। আর এতেই সৃষ্টি হয় তীব্র জলাবদ্ধতার। রাত ২টার দিকেই অনেকের বাসায় পানি উঠতে শুরু করে। সময়ের সঙ্গে বাড়তে থাকে পানির উচ্চতা। ফলে নির্ঘুম রাত কাটিয়েছেন নগরীর কয়েক হাজার মানুষ। 

সোমবার (৩ জুন) সকালেও বৃষ্টি অব্যাহত থাকায় পানি আরও বাড়তে থাকে। সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের নীচতলায়ও পানি উঠে যায়। এতে অনেক রোগীকে স্থানান্তর করতে হয়েছে। বহির্বিভাগে চিকিৎসা নিতে আসা লোকজনও দুর্ভোগে পড়েন। একইসঙ্গে জলমগ্ন ওয়ার্ডগুলোতে দেখা দিয়েছে বিশুদ্ধ পানির সংকটও। সিলেটের সুরমা-কুশিয়ারা নদীর পানি কয়েকটি পয়েন্টে বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

তবে দুপুরের দিকে বৃষ্টি বন্ধ হলে ধীরে ধীরে কমতে থাকে নগরীর কিছু এলাকার পানি। সিলেট আবহাওয়া অফিস জানায়, সোমবার সকাল ৬টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত নগরীতে ৪৭ দশমিক ২ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে। এর আগের ২৪ ঘণ্টায় সিলেটে ২২৬ দশমিক ৬ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়।

সোমবার সকালে দেখা যায়, নগরীর শাহজালাল উপশহর, সোবহানীঘাট, তেররতন, যতরপুর, মাছিমপুর, ছড়ারপাড়, চালিবন্দর, মিরাবাজার, তালতলা, জামতলা,  ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, বেতেরবাজার, বাগবাড়ি, শেখঘাট, কাজিরবাজার, কলাপাড়া, বাদামবাগিচা, ইলাশকান্দিসহ আরও বিভিন্ন এলাকার বাসাবাড়ি, দোকানপাট, সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে ভেতর-বাইরে পানি জমেছে। শাহজালাল উপশহরের অনেক জায়গায় হাঁটু থেকে কোমর পর্যন্ত পানি উঠেছে। অনেকে বাধ্য হয়ে নোংরা পানি মাড়িয়ে নিরাপদ আশ্রয়ে ছুটেছেন। জলাবদ্ধতা নিয়ে নগরবাসীর মধ্যে ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। তারা বলছেন, পরিকল্পিত পানি নিষ্কাষণ ব্যবস্থা না থাকায় প্রতি বর্ষায় তাদেরকে এই দুর্ভোগে পড়তে হয়। অথচ সিলেট সিটি করপোরেশন নগরীর জলাবদ্ধতা নিরসনে প্রতিবছর বিপুল অর্থ খরচ করে। কিন্তু এতে কোন সুফলই মিলছে না। 

সরেজমিনে গিয়ে কয়েকটি গণমাধ্যমের সংবাদকর্মীরা দেখতে পান, ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের প্রবেশ ফটক থেকে শুরু করে প্রশাসনিক ভবন, কলেজ ফটক, ছাত্রীনিবাস ও ছাত্রাবাসেও পানি উঠেছে। ফলে রোগী, স্বজন ও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

জেলা প্রশাসন জানায়, সিলেট সিটি করপোরেশনের ২৮টি ওয়ার্ডসহ ৯টি উপজেলার ৫৮টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভা বন্যা কবলিত হয়েছে। এছাড়া ৯টি উপজেলার ৭৬১টি গ্রামের ৬ লাখ ১৪ হাজার ২৮২ জন বন্যায় আক্রান্ত হয়েছেন। 

আশ্রয়কেন্দ্রগুলোতে ১ হাজার ৩৮৪ জন অবস্থান করছেন। গত ১২ ঘণ্টায় ২৭৮ জন আশ্রয়কেন্দ্র ছেড়ে নিজেদের ঘরে ফিরে গেছেন। জেলা প্রশাসনের ব্যবস্থাপনায় এরই মধ্যে ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয় থেকে প্রাপ্ত ৪০০ মেট্রিক টন চাল, ১৫ লাখ ৫০ হাজার টাকা, ১ হাজার ৪০০ বস্তা শুকনো খাবার, শিশু খাদ্যের জন্য ৯ লাখ টাকা ও গো খাদ্যের জন্য ৯ লাখ টাকা উপজেলা প্রশাসনের অনুকূলে উপবরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। আর সিটি করপোরেশন এলাকার জন্য ২৫ মেট্রিক টন চাল ও ২ লাখ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।’q

পানি উন্নয়ন বোর্ডের তথ্যমতে, সিলেটের সুরমা-কুশিয়ারা নদীর পানি চারটি পয়েন্টে বিপদসীমার ওপরে অবস্থান করছে। এর মধ্যে সুরমা নদীর পানি কানাইঘাট পয়েন্টে বিপদসীমার ৫৮ সেন্টিমিটার ও সিলেট পয়েন্টে বিপৎসীমার ১৩ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এছাড়া কুশিশয়ারা নদীর অমলশিদ পয়েন্টে পানির বিপদসীমা ১৫ দশমিক ৪০ সেন্টিমিটার। সেখানে সোমবার সকাল ৯টায় ১৫ দশমিক ৯৩ সেন্টিমিটারে অবস্থান করছিল। কুশিয়ারা নদীর ফেঞ্চুগঞ্জ পয়েন্টে বিপদসীমা ৯ দশমিক ৪৫ সেন্টিমিটার। সেখানে সোমবার সকাল ৯টায় ৯ দশমিক ৬২ সেন্টিমিটারে অবস্থান করছিল পানি।

নগরীর জামতলা এলাকার বাসিন্দা ও সিলেট সম্মিলিত নাট্য পরিষদের সভাপতি রজতকান্তি গুপ্ত জানান, রোববার রাতে তার ঘরে পানি ঢুকতে শুরু করে। এর আগে ২০২২ সালের বন্যার সময়ও পানি ঢুকেছিল। অথচ তখন বন্যা মোকাবিলায় কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়া হলে বার—বার এই দুর্ভোগ পোহাতে হত না।

মির্জাজাঙ্গাল এলাকার বাসিন্দা আইনজীবী দেবব্রত চৌধুরী লিটন বলেন, ‘আতঙ্ক আর উৎকণ্ঠায় আরেকটি নির্ঘুম রাত কাটল রোববার। রাত একটায় একবার ঘরে পানি ঢুকে। ঘরের সবাই মিলে পানি সেচে বের করি। ভোর ৪ টার দিকে আবার ঘরে পানি ঢুকে পড়ে। ঘরের সব আসবাবপত্র নষ্ট হয়েছে।’

নগরীর যতরপুর এলাকার বাসিন্দা সুমন মিয়া বলেন, ‘গত কয়েকদিন ধরেই রাস্তাঘাটে পানি ছিল। কিন্তু গতকাল রাতের বৃষ্টির পর এখন বাসার ভেতরেও পানি ঢুকে পড়েছে। রাত থেকেই বাচ্চাদের নিয়ে কষ্ট করছি। পানি কমার কোন লক্ষণ নেই, কেবল বেড়েই চলছে’।

নগরীর শাহজালাল উপশহরের ডি ব্লকের বাসিন্দা শাহাজান আহমদ জানান, তার ঘরের ভেতরে হাঁটু পানি, সড়কে কোমর সমান পানি। না ঘরে থাকতে পারছেন, না বাইরে বের হতে পারছেন। পরিবারের সবাইকে নিয়ে বিপাকে পড়েছেন।

সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ ডা. শিশির রঞ্জন চক্রবর্তী জানান, মেডিকেল কলেজ ক্যাম্পাসের ভেতরে পানি জমে থাকায় সোমবারের ক্লাস ও পরীক্ষা বাতিল করা হয়েছে। অবস্থা অনুযায়ী পরবর্তী সময়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

সিলেট সিটি করপোরেশনের জনসংযোগ কর্মকর্তা সাজলু লস্কর জানান, রোববার মধ্যরাত থেকে ভারি বৃষ্টি হচ্ছে। এর মধ্যে বন্যার কারণে সুরমা নদীর পানিও বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এতে নগরের পানি ছড়া—খাল দিয়ে নদীতে গিয়ে নামতে পারছে না। কোথাও কোথাও বরং নদীর পানি ছড়া দিয়ে নগরে ঢুকেছে। এতে সৃষ্টি হয়েছে জলাবদ্ধতা। তিনি আরও জানান, পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করে প্রয়োজন অনুযায়ী আশ্রয়কেন্দ্র চালু, শুকনো খাবার বিতরণসহ অন্যান্য পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে সিটি করপোরেশন।

img

শাবি শিক্ষার্থীদের সড়ক অবরোধ, পুলিশের সাথে বাকবিতণ্ডা

প্রকাশিত :  ০৯:১০, ১৮ জুলাই ২০২৪

কোটা সংস্কার নিয়ে নিয়ে আন্দোলনরত শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা সিলেট-সুনামগঞ্জ মহাসড়কে অবস্থান নিয়েছেন। বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১ টা থেকে শাবি ফটকের সামনে এই সড়কে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ শুরু করেন শিক্ষার্থীরা। এতে সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে পড়েছে।

আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা বৃহস্পতিবার সারা দেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ কর্মসূচি ডেকেছেন। এতে সকাল থেকে সিলেটে যান চলাচল কম। দূরপাল্লার বাস প্রায় বন্ধ রয়েছে। শিক্ষার্থীদের অবরোধের কারণে সিলেট-সুনামগঞ্জ সড়কে জরুরী প্রয়োজনেও কেউ যাতায়াত করতে পারছেন না।

এদিকে, বৃহস্পতিবার সকাল থেকে শাবি ক্যাম্পাসে অবস্থান নেয় বিপুল সংখ্যক পুলিশ।

 সিলেট মহানগর পুলিশের (এসএমপি) ক্রাইসিস রেসপন্স টিমের (সিআরটি) সদস্যরাও ক্যাম্পাসের বিভিন্ন রাস্তা ও মোড়ে অবস্থান নিয়েছেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন হলের সামনেও পুলিশ মোতায়েন করা হয়। পুলিশ শিক্ষার্থীদের হল ও ক্যাম্পাস থেকে বের করে দেয়।

সকাল ১১ টার দিকে কিছু শিক্ষার্থী ক্যাম্পাসে প্রবেশ করতে চাইলে ফটকে তাদের আটকে দেয় পুলিশ। এসময় পুলিশের সাথে তাদের উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় ও কিছু ধস্তাধস্তি হয়।

এরপর সিলেট-সুনামগঞ্জ সড়কে অবস্থান নেন শিক্ষার্থীরা। তীব্র গরমের মধ্যে শিক্ষার্থীরা রাস্তায় অবস্থান নিয়ে কোটা, সরকার ও পুলিশবিরোধী নানা স্লোগান দিচ্ছেন। অবস্থানকালে শাবি ফটকের সামনে এক প্লাটুন বিজিবি আসলে তাদের গাড়ির সামনে শিক্ষার্থীরা ‘ভুয়া ভুয়া’ বলে স্লোগান দিতে শুরু করেন তারা। পরে বিজিবি কিছুটা দূরে গিয়ে অবস্থান নেয়।

এই আন্দোলনের শাবি শাখার সমন্বয়ক আসাদুল্লাহ আল গালিব বলেন, পুলিশ সকাল থেকে হলে হলে গিয়ে শিক্ষার্থীদের হল ছাড়ার জন্য চাপ দিচ্ছে। তবে সব ভয় ও চাপ উপেক্ষা করে আমরা আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছি। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চলবে।

সিলেটে যান ও মানুষ চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে এবং এছাড়া মানুষের জান-মালের নিরাপত্তার জন্য সতর্ক অবস্থানে রয়েছে পুলিশ।

তবে পরিবহন শ্রমিক নেতারা জানিয়েছেন, অনেক চালক ভয়ে বাস বা অন্যান্য গাড়ি নিয়ে সড়কে বের হননি। তবে দূর পাল্লার ও আঞ্চলিক সড়কের কিছু বাস চলাচল করছে।

সিলেট জেলা বাস-মিনিবাস শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি ময়নুল ইসলাম বলেন- আমরা চালকদের চালকদের গাড়ি না চালাতে কোনো নির্দেশনা দিইনি। তবে ভয়ে অনেক চালক গাড়ি নিয়ে রাস্তায় বের হননি। তাই সিলেটে গণপরিবহন চলাচল কিছুটা কম। তবে দূরপাল্লার ও আঞ্চলিক সড়কে কিছু যানবাহন চলাচল করছে।

সড়কে পুলিশের নিরাপত্তা ব্যবস্থা কম দেখতে পাচ্ছেন বলে জানান ময়নুল ইসলাম।

 সিলেট মহানগর পুলিশের (এসএমপি) অতিরিক্ত উপ-কমিশনার মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম (গণমাধ্যম) বলেন, অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঠেকাতে শাবিসহ  সিলেটের সব বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজ এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করে রাখা হয়েছে। এছাড়া মহানগরের গুরুত্বপূর্ণ এলাকা ও মোড়ে রয়েছে পুলিশ। সাধারণ মানুষের জান-মালের নিরাপত্তায় পুলিশ তৎপর রয়েছে।

সিলেটের খবর এর আরও খবর