img

শ্যুটিংয়ে মল্লিকাকে শ্বাসরোধ করার অভিযোগ! ২০ বছর পর মুখ খুললেন অস্মিত

প্রকাশিত :  ১০:০৩, ০৯ জুন ২০২৪
সর্বশেষ আপডেট: ১০:১২, ০৯ জুন ২০২৪

	 শ্যুটিংয়ে মল্লিকাকে শ্বাসরোধ করার অভিযোগ! ২০ বছর পর মুখ খুললেন অস্মিত

বলিউড অভিনেতা অস্মিত প্যাটেল বলেছেন, অভিনেত্রী মল্লিকা শেরাওয়াত তাঁর বিরুদ্ধে শ্বাসরোধের অভিযোগ এনেছিলেন। 'মার্ডার'-এর একটি দৃশ্যের সময় অস্মিতকে অভিনেত্রীর শ্বাসরোধ করার একটি দৃশ্যে অভিনয় করতে হয়েছিল। মহেশ ভট্টকে ফোন করা হলে তিনি অস্মিতকে মল্লিকার কাছে ক্ষমা চাইতেও বলেছিলেন। এই ঘটনায় থমকে গিয়েছিলেন অস্মিত। ভাবতে পারেননি এমনটাও হতে পারে।

মল্লিকা শেরাওয়াতের সঙ্গে কাজ করার এক অদ্ভুত অভিজ্ঞতা অস্মিতের। 'মার্ডার'-এর একটি দৃশ্যের শ্যুটিংয়ের সময় অস্মিতের বিরুদ্ধে শ্বাসরোধ করার অভিযোগ এনেছিলেন। মহেশ ভট্টকে ফোন করা হলে তিনি অস্মিতকে মল্লিকার কাছে ক্ষমা চাইতে বলেন।

আমিশা প্যাটেলের ভাই অভিনেতা অস্মিত প্যাটেল বলিউডের বহু সিনেমায় কাজ করলেও তেমন আশানুরূপ সাফল্য পাননি। তবে কেরিয়ার তৈরির জন্য টানা সংগ্রাম চালিয়ে গিয়েছেন। বর্তমানে সেভাবে আর তাঁকে কোনও চলচ্চিত্রে দেখা যায় না। বর্তমানে, অস্মিত প্যাটেল একটি সাক্ষাৎকারের জন্য খবরে। যেখানে তিনি মল্লিকা শেরাওয়াত এবং 'মার্ডার' চলচ্চিত্র সম্পর্কে একটি চমকপ্রদ তথ্য প্রকাশ্যে এনেছেন। অস্মিতের দাবি, 'মার্ডার'-এর প্রচারের সময় মল্লিকা শেরাওয়াত পুরো লাইমলাইট নিজের দিকে নিয়েছিলেন।

অস্মিত প্যাটেল সিদ্ধার্থ কাননকে দেওয়া একটি সাক্ষাৎকারে আরও বলেছিলেন, মল্লিকা শেরাওয়াত 'পিআর গেম' খুব ভালো বোঝেন। যখন বলিউডে তেমন প্রচারের প্রচলন ছিল না, তখন মল্লিকা একজন ব্যক্তিগত পিআর নিয়োগ করেছিলেন। অস্মিতের মতে, 'মার্ডার'-এর প্রচারের সময় তাঁকে এবং ইমরান হাশমিকে এভাবেই সাইডলাইন করা

হয়েছিল।


আমাকে এবং ইমরান হাশমিকে প্ল্যান করে সাইড করা হয়: অস্মিত

অস্মিত তখন সেই দৃশ্যটিরও উল্লেখ করেছিলেন। যে সময় মল্লিকা শেরাওয়াত তাঁকে প্রায় শ্বাসরোধ করে ফেলেছিলেন। কিন্তু, মহেশ ভট্ট এসে উল্টে অভিনেতাকে মল্লিকার কাছে ক্ষমা চাইতে বলেন। তিনি বলেন, 'সিনেমায় আমাদের বিয়ে আমাদের নিজেদের ইচ্ছেয় দেখানো হয়েছে। আমি সেভাবেই অভিনয় করার চেষ্টা করেছি এবং মল্লিকার চরিত্র থেকে কিছুটা দূরত্ব বজায় রাখারও চেষ্টা করেছি। তাই, সেটে তিনি যখন কয়েকবার আমার সঙ্গে বিবাদ মেটানোর চেষ্টা করেছিলেন, তখন আমি কিছুটা স্তব্ধ হয়ে গিয়েছিলাম। আমি খুব একটা অভদ্র হওয়ার চেষ্টা করিনি। কিন্তু, আমি বন্ধুত্ব বজায় রাখারই চেষ্টা করছিলাম। যাতে আমি ব্যক্তিগতভাবে আমাদের মধ্যে সেই উত্তেজনা ধরে রাখতে পারি। যেটা ক্যামেরায় তুলে ধরা যায়। হয়তো সে বুঝতে পারেনি, অথবা হয়তো আমার উচিত ছিল তাঁকে বা পরিচালক অনুরাগ বসুকে দিয়ে এটা বলানো।

'মল্লিকার কথায়, তিনি আমাকে শ্বাসরোধ করেছেন, মহেশ ভট্ট তাঁকে ক্ষমা চাইতে বলেছেন'

অস্মিত প্যাটেল আরও বলেছেন, 'এমন একটি দৃশ্য ছিল যেখানে আমাকে তাঁকে গলা চেপে ধরতে হয়েছিল। আমি একবার নাসিরুদ্দিন শাহকে জিজ্ঞেস করেছিলাম, কী ভাবে ক্যামেরায় শ্বাসরোধের দৃশ্য করতে হয়, এবং তিনি আমাকে একটি কৌশল শিখিয়েছিলেন। এটি দেখে মনে হবে আপনি আপনার সমস্ত শক্তি ব্যবহার করছেন। কিন্তু, আসলে আপনার সহ-অভিনেতার ক্ষতি কোনও ক্ষতি হবে না। কিন্তু, শট কাটের পর একটু সমস্যায় পড়েন তিনি। ভট্ট সাহেব ছুটে আসেন। এবং আমাকে মল্লিকার কাছে ক্ষমা চাইতে বলেন। আমি বলেছিলাম যে আমি তো ইচ্ছে করে কিছুই করিনি। চলুন মনিটরে দেখুন। এবং যদি আপনার মনে হয় যে আমি তাঁর শ্বাসরোধ করার চেষ্টা করেছি, আমি ক্ষমা চাইব। কিন্তু, তা না হলে তাঁকে আমার কাছে ক্ষমা চাইতে হবে। কিন্তু, শেষপর্যন্ত আমাকেই ক্ষমা চাইতে হয়েছিল।

'মার্ডার' মুক্তি পায় ২০০৪ সালে

'মার্ডার' ছিল একটি ইরোটিক থ্রিলার। যেটি ২০০৪ সালে মুক্তি পায়। ছবিটি ব্লকবাস্টার হয়েছিল। এরপরে, ইমরান হাশমিও একের পর এক ছবিতে অভিনয়ের সুযোগ পেয়েছিলেন। অস্মিতও অনেকগুলো সিনেমায় কাজ করেছিলেন।

img

বিরল রোগে আক্রান্ত কিংবদন্তি গায়িকা অলকা

প্রকাশিত :  ০৮:৩০, ১৮ জুন ২০২৪

কিংবদন্তি গায়িকা অলকা ইয়াগনিককে অনেকদিন ধরেই পাওয়া যাচ্ছে না বলিউডে। যার ঝুলিতে রয়েছে প্রায় কয়েকশ সুপার হিট গানের লম্বা লিস্ট। যিনি বলিউডে রাজত্ব করছেন প্রায় নব্বইয়ের দশক থেকে। তার কণ্ঠের জনপ্রিয় গানগুলি গুণগুণ করে তরুণ থেকে প্রবীণ প্রজন্ম সবাই। গত বছরেই তার গান শোনার শ্রোতা সংখ্যা রেকর্ড গড়েছিল। পিছিয়ে দিয়েছিল বিশ্বের অন্যতম খ্যাতনামা ব্যান্ড ‘BTS’ আর্মি কেও। কিন্তু বহুদিন ধরেই, গায়িকা লাইমলাইটে নেই। যদি ও বর্তমানে তরুণ প্রজন্মের সঙ্গীত শিল্পীদের ভিড়ে হারিয়ে যাচ্ছে পুরোনো প্রজন্মের সংগীত শিল্পীরা । তাতে অনেকেই ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। কিন্তু অলকা ইয়াগনিকের কণ্ঠ যেন আইকনিক। সম্প্রতি গায়িকা তার হারিয়ে যাওয়ার কারণ নিজেই ইনস্টাগ্রামের মাধ্যমে ভক্তদের জানিয়েছেন। নিজের জীবনের একটি দুর্ভাগ্যজনক ঘটনা শেয়ার করলেন। বিরল ভাইরাস আক্রমণ করেছে গায়িকাকে। যার কারণে তার বিরল সংবেদনশীল স্নায়ু শ্রবণশক্তি হ্রাস পেয়েছে।

পোস্টটি শেয়ার করে অলকা লিখেছেন, ‘আমার সমস্ত ভক্ত, বন্ধু, অনুরাগী এবং শুভাকাঙ্ক্ষীদের জন্য। কয়েক সপ্তাহ আগে, আমি যখন একটি ফ্লাইট থেকে নামছিলাম, তখন হঠাৎ অনুভব করলাম- আমি কিছুই শুনতে পাচ্ছি না। এই পর্বের কয়েক সপ্তাহ পর, আমি এখন আমার সমস্ত বন্ধু এবং শুভাকাঙ্ক্ষীদের জন্য এই পোস্ট। যারা জানতে চায় কেন আমি অ্য়াকশনে অনুপস্থিত।’

নিজের শরীরের আরও আপডেট দিয়ে অলকা লেখেন, ‘ভাইরাল আক্রমণের কারণে এটি একটি বিরল সংবেদনশীল স্নায়ুর সমস্যা। যার কারণে শ্রবণশক্তি হ্রাস পেয়েছে। এই আকস্মিক, বড় ধাক্কা আমার অজান্তেই শরীরে গ্রাস করেছে। আমি এটির সঙ্গে মানিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করছি। দয়া করে আপনারা অমার জন্য প্রার্থনা করবেন।’

অলকা তার এই পোস্টে জোরে মিউজিক শোনা ও হেডফোনে খুব উচ্চ আওয়াজ রাখা থেকেও বিরত করেন নিজের অনুরাগীদের। লেখেন, ‘আমার অনুরাগী এবং তরুণ সহকর্মীদের জন্য, আমি খুব জোরে মিউজিক এবং হেডফোনের সংস্পর্শে আসার বিষয়ে সতর্কতামূলক শব্দ যোগ করব। আমি আমার পেশাগত জীবনের স্বাস্থ্যগত বিপদগুলি শেয়ার করতে চাই। আপনাদের সবার ভালোবাসা এবং সমর্থন দিয়ে আমি পুনরুদ্ধার করার আশা করছি। আমার বিশ্বাস, শিগগিরই আপনাদের কাছে ফিরে আসব।’

অলকা ইয়াগনিকের এই পোস্ট হতবাক করেছে তার অনুগামীদের। ইলা অরুণ লিখলেন, ‘এটা শুনে খুব কষ্ট পেলাম। প্রিয়তম অলকা আমি তোমার ছবি দেখেছি এবং সঙ্গে সঙ্গে প্রতিক্রিয়া জানিয়েছি। তারপর আমি যা পড়লাম, এটি হৃদয়বিদারক। তবে সেরা ডাক্তারদের ওপর ভরসা রাখ। তুমি ভালো থাকবে এবং শিগগিরই আমরা তোমার মিষ্টি কণ্ঠ শুনতে পাব। ভালোবাসা। সবসময় নিজের যত্ন নিও।’

সোনু নিগম লিখলেন, ‘আমার মনেই হয়েছিল সব ঠিক নেই। ফিরেই তোমার সঙ্গে দেখা করব। দ্রুত সেরে ওঠো।’ ৫৪ বছর বয়সী অলকার শেষ গান গেয়েছেন ‘ক্রু’ এবং ‘অমর সিং চামকিলা’ ছবিতে।