img

ঐতিহাসিক ৬ দফা দিবস উপলক্ষে ওয়েলস আওয়ামী যুবলীগের উদ্যোগে কার্ডিফে সভা অনুষ্ঠিত,

প্রকাশিত :  ১২:৫৯, ০৯ জুন ২০২৪
সর্বশেষ আপডেট: ১৩:০০, ০৯ জুন ২০২৪

ঐতিহাসিক ৬  দফা দিবস উপলক্ষে ওয়েলস আওয়ামী যুবলীগের উদ্যোগে কার্ডিফে সভা অনুষ্ঠিত,

ঐতিহাসিক ৬ দফা দিবস উপলক্ষে  ইউকে ওয়েলস আওয়ামী যুবলীগের উদ্যোগে ৭ ই জুন বৃটেনের কার্ডিফ শহরে স্থানীয় রেষ্টুরেন্টে এক আলোচনা সভা ও ডিনারপার্টির আয়োজন করা হয়েছে। 

ওয়েলস যুবলীগ সভাপতি  সাবেক ছাত্রনেতা সেলিম আহমদ এর  সভাপতিত্বে ও ওয়েলস যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক প্রাক্তন ছাত্রনেতা মফিকুল ইসলাম এর পরিচালনায় অনুষ্ঠিত  সভায়  প্রধান অতিথি ছিলেন যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সদস্য ও ওয়েলস আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সাবেক ছাত্রনেতা মোহাম্মদ মকিস মনসুর, প্রধান বক্তা ছিলেন ওয়েলস আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক প্রাক্তন ছাত্রনেতা এম.এ.মালিক।

বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন ওয়েলস আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক গোলাম মর্তুজা, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব লিয়াকত আলী, ওয়েলস যুবলীগের সাবেক সভাপতি জয়নাল আহমদ শিবুল, ওয়েলস কৃষক লীগের সভাপতি শেখ মোহাম্মদ আনোয়ার, সাবেক ছাত্রনেতা মুহিবুর রহমান খসরু, গ্রেটার সিলেট কমিউনিটি ইউকে সাউথ ওয়েলস রিজিওনের কনভেনার মুজিবুর রহমান মুজিব, ওয়েলস বঙ্গবন্ধু পরিষদের সাধারন সম্পাদক সৈয়দ ইকবাল আহমেদ, নিউপোট যুবলীগের সাবেক সভাপতি মুহিবুর রহমান মুহিব,নিউপোট যুবলীগের সাধারন সম্পাদক ফখরুল ইসলাম, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আনহার মিয়া, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রুহুল আমিন, ওয়েলস যুবলীগের সিনিয়র সহ সভাপতি আবুল কালাম মুমিন, সহ সভাপতি রকিবুর রহমান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এ বি রুনেল, আসাদ মিয়া, মৌলা আফতাব দেওয়ান ফয়সল মজিদ, শেখ সুমন তরফদার, বাবুল খান, কামাল আহমদ, নজির আহমদ, সাবেক ছাত্রনেতা আলী আমজদ, ওয়েলস ছাত্রলীগের সভাপতি মোহাম্মদ বদরুল হক মনসুর,ফেরদৌস আলী, কালাম হোসেন, মারুফ আহমদ, আব্দুর রুউফ, সাবেক ছাত্রনেতা ইমরান আহমেদ, ছাত্রনেতা রাসেল আহমদ, ইফহাত আহমদ,আজাদ মিয়া. আহমেদ রহমান, আবতাহি আহমদ, ফেরদুস রহমান, আব্দুর রব, সেবুল হোসেন ও সাগর আহমেদ, সহ ওয়েলস আওয়ামীলীগ যুবলীগ ছাত্রলীগ সেচ্ছাসেবক লীগ, স্রমিক লীগ, কৃষকলীগ, তাতীলীগসহ কমিউনিটির অন্যান্য নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন।

প্রধান অতিথি যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সাবেক ছাত্রনেতা  মোহাম্মদ মকিস মনসুর ১৯৬৬ সালের ৭ই জুন বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামের ইতিহাসে এক অবিস্মরণীয় ও তাৎপর্যপূর্ণ দিন বলে উল্লেখ করে বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ঘোষিত বাঙালি জাতির মুক্তির সনদ,  বাংলাদেশের স্বাধীনতার সোপান" ঐতিহাসিক ৬-দফার প্রতি বাঙালির অকুণ্ঠ সমর্থনে রচিত হয় স্বাধীনতার রূপরেখা। ৬-দফা আন্দোলনের মধ্য দিয়ে অঙ্কুরিত হয় স্বাধীনতার স্বপ্নবীজ। 

প্রধান বক্তার বক্তব্যে ওয়েলস আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক প্রাক্তন ছাত্রনেতা এম.এ.মালিক বলেন ৬ দফা দাবির পক্ষে বাঙালি জাতির সর্বাত্মক রায় ঘোষিত হয় ১৯৭০ সালের ঐতিহাসিক নির্বাচনে মধ্য দিয়ে। এরই ধারাবাহিকতায় বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে ১৯৭১ সালে সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে অভ্যুদয় ঘটে স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশের।

ওয়েলস যুবলীগ সভাপতি ভিপি সেলিম আহমদ ও  সাধারন সম্পাদক মফিকুল ইসলাম প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে অর্থনৈতিকভাবে সমৃদ্ধ স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয়ে স্ব-স্ব অবস্থান থেকে কাজ করার জন্য প্রবাসীদের প্রতি আহবান জানান।

এছাড়াও সভায় মৌলভীবাজার জেলার রাজনগর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ওয়েলস আওয়ামী লীগ নেতা ও সাবেক ছাত্রনেতা মোঃ শাহজাহান খাঁন ২য় বারের মতো চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ায় এবং সিলেটের  বালাগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বালাগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক জননেতা মোঃ আনহার মিয়া প্রথমবারের মতো চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ায় মিষ্টিমুখ অনুষ্ঠানেরও আয়োজন করা হয়েছে। এতে  মিষ্টি বিতরনের আয়োজন করেন ওয়েলস যুবলীগের সিনিয়র সহ সভাপতি আবুল কালাম মুমিনসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।। 

এদিকে সভায় ওয়েলস শ্রমিক লীগের সভাপতি বিশিষ্ট সমাজসেবক মরহুম নুরুল আলম চুনুর অকাল মৃত্যুতে তার আত্মার মাগফেরাত কামনায় এক দোয়ার মাহফিলেরও  আয়োজন করা হয়। দোয়া পরিচালনা করেন ওয়েলস আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক আলহাজ্ব লিয়াকত আলী। 

এদিকে সভায় কমিউনিটি সংগঠক মুজিবুর রহমান মুজিব আওয়ামী লীগের যোগদান করায় ফুলেল শুভেচ্ছা জানিয়ে তাকে বরণ করে নেন  উপস্থিত  নেতৃবৃন্দ। 

কমিউনিটি এর আরও খবর

img

উচ্চতর ট্রাইব্যুনাল, ইমিগ্রেশন অ্যান্ড অ্যাসাইলাম চেম্বার অ্যাপয়েন্টমেন্টের বিচারক হলেন ব্রিটিশ বাংলাদেশি সাদ মিয়া

প্রকাশিত :  ১৪:৩১, ১৯ জুন ২০২৪
সর্বশেষ আপডেট: ১৪:৫৮, ১৯ জুন ২০২৪

রাজা লর্ড চ্যান্সেলর ডান, মাননীয় অ্যালেক্স চাকি কেসি এমপি এবং ট্রাইব্যুনালের সিনিয়র প্রেসিডেন্ট স্যার কিথ লিন্ডব্লমের পরামর্শে ব্রিটিশ বাংলাদেশি সাদ মিয়াকে উচ্চ ট্রাইব্যুনালের বিচারক হিসাবে নিয়োগ করা হয়েছে। 

ট্রাইব্যুনালের সিনিয়র প্রেসিডেন্ট তাকে ৮ জুলাই ২০২৪ থেকে ইমিগ্রেশন এবং অ্যাসাইলাম চেম্বারে নিয়োগ দিয়েছেন।

কাজী সাদ মিয়া লন্ডনের বেথনাল গ্রিনে জন্মগ্রহণ করেন। পিতা প্রয়াত কাজী শাহনুর মিয়া ও মাতা আবেদা খাতুন। সাদ মিয়া লন্ডন বরো অফ টাওয়ার হ্যামলেটের একটি স্থানীয় স্কুলে পড়াশোনা করেছেন এবং বেথনাল গ্রীন এলাকায় বেড়ে উঠেছেন। তিনি তার আইনি কর্মজীবন এবং মানবাধিকারের ক্ষেত্রে ব্যাপক সম্পৃক্ততা তখন থেকে শুরু করেন যখন তিনি আইনি ক্ষেত্রে পাবলিক প্রো-বোনো সেক্টরে কাজ শুরু করেন। এর ফলে লন্ডন সাউথব্যাঙ্ক ইউনিভার্সিটিতে পার্ট-টাইম আইন অধ্যয়ন শুরু করেন এবং পরবর্তীকালে তিনি ইস্ট লন্ডন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার বিষয়ে বিশেষত্বসহ আইনে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন।

জনাব সাদ মিয়া ২০০১ সাল পর্যন্ত ইমিগ্রেশন আদালতে তাদের মানবাধিকার আপিলের মাধ্যমে দুর্বল আপিলকারীদের প্রতিনিধিত্ব করেছিলেন, যখন তিনি সরকারের ওকিংটন ইমিগ্রেশন ডিটেনশন সেন্টারে সম্পূর্ণ আইনি পরিষেবার বিধানের জন্য আঞ্চলিক পরিচালক হিসাবে নিয়োগ গ্রহণ করেছিলেন; যেখানে তিনি কাজ করেছিলেন২০০৯ সাল পর্যন্ত,। এই সময়ে তিনি সরকার কর্তৃক প্রবর্তিত বেশ কয়েকটি জটিল কৌশলগত পাইলট সম্পর্কে তার জ্ঞান এবং দক্ষতার জন্য সর্বজনীন সম্মান অর্জন করেছিলেন, সেইসাথে সরকারের ডিটেনশন এস্টেট জুড়ে পরিচালিত 'দ্রুত-ট্র্যাক' প্রক্রিয়াগুলি গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করেন।


কমিউনিটি এর আরও খবর