img

যুদ্ধকালীন মন্ত্রিসভা ভেঙে দিলেন নেতানিয়াহু

প্রকাশিত :  ১০:০৬, ১৭ জুন ২০২৪

যুদ্ধকালীন মন্ত্রিসভা ভেঙে দিলেন নেতানিয়াহু

ছয় সদস্যকে নিয়ে গঠিত যুদ্ধকালীন মন্ত্রিসভা ভেঙে দিয়েছেন ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু। সোমবার (১৭ জুন) কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরার প্রতিবেদনে এই তথ্য জানানো হয়েছে। 

এক সপ্তাহ আগেই মধ্যপন্থি বিরোধী নেতা বেনি গান্তজ এবং তার মিত্র গাডি আইজেনকোট যুদ্ধকালীন এই মন্ত্রিসভা থেকে পদত্যাগ করেন। এরপরেই এই মন্ত্রিসভা ভেঙে দেওয়ার পট প্রস্তুত হয়।

সোমবারের বিভিন্ন রিপোর্টে বলা হয়েছে, গতকাল সন্ধ্যায় রাজনৈতিক নিরাপত্তা ক্যাবিনেটের সঙ্গে বৈঠকের সময় নেতানিয়াহু যুদ্ধকালীন মন্ত্রিসভা ভেঙে দেওয়ার ঘোষণা দেন। 

খবরে বলা হয়েছে, এই মন্ত্রিসভা ভেঙে দেওয়ার পর নেতানিয়াহু এখন গাজার যুদ্ধ নিয়ে মন্ত্রীদের একটি ছোট গ্রুপের সঙ্গে আলোচনা করতে পারেন। এই  গ্রুপে আছেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী ইয়োভ গ্যালান্ত এবং স্ট্র্যাটেজিক অ্যাফেয়ার্স মন্ত্রী রন ডারমার। তারাও যুদ্ধকালীন মন্ত্রিসভায় ছিলেন। 

বেনি গান্তজের পদত্যাগের পর নতুন একটি যুদ্ধকালীন মন্ত্রিসভা গঠনের জন্য নেতানিয়াহুকে চাপ দিয়ে আসছিল তার জোটের কট্টর-ডানপন্থি মন্ত্রীরা। কিন্তু এতে যুক্তরাষ্ট্র ও অন্যান্য আন্তর্জাতিক মিত্রদের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের সম্পর্কে টানাপোড়েন দেখা দিতে পারত।

গাজা-যুদ্ধ পরবর্তী পরিকল্পনার অভাব এবং যুদ্ধে নেতানিয়াহুর নেতৃত্বে ব্যর্থতার অভিযোগে গান্তজ ও আইজেনকোট পদত্যাগ করেছিলেন।


img

হামাসের সক্ষমতা নিয়ে এবার যে স্বীকারোক্তি দিল ইসরাইল

প্রকাশিত :  ১১:৫১, ১৮ জুলাই ২০২৪
সর্বশেষ আপডেট: ১১:৫৩, ১৮ জুলাই ২০২৪

অবরুদ্ধ গাজায় গত ৯ মাসে উল্লেখযোগ্য ক্ষয়ক্ষতির মুখে পড়ার পরেও ফিলিস্তিনের স্বাধীনতাকামী সংগঠন হামাসের যোদ্ধারা এখনো তেল আবিব এবং জেরুজালেম শহরে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালাতে সক্ষম বলে স্বীকারোক্তি দিয়েছে দখলদার ইসরাইলি বাহিনী।

বুধবার প্রকাশিত এক বিবৃতিতে দখলদার ইসরাইলের বর্বর সামরিক বাহিনী এ স্বীকারোক্তি দেয়।

তাদের দাবি, গাজা উপত্যকায় চলমান আগ্রাসনের সময় ৬ জন ব্রিগেড কমান্ডার, ২০ জন ব্যাটালিয়ন কমান্ডার এবং ১৫০ জন কোম্পানি কমান্ডারসহ হামাসের প্রায় ১৪ হাজার যোদ্ধা হতাহত ও আটক হয়েছেন। তা সত্ত্বেও হামাস এখনো তেল আবিব ও জেরুজালেম শহরে দূরপাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবহার করে হামলা চালাতে সক্ষম।

গত ৯ মাসে তারা হামাসের ৩৭ হাজার অবস্থান লক্ষ্য করে বিমান হামলা চালিয়েছে উল্লেখ করে ইসরাইলি বাহিনী আরও জানিয়েছে, তবে হামাসের অর্ধেকেরও বেশি যোদ্ধা এখনো বেঁচে আছেন। 

এছাড়া হামাসের অপর তিনটি ব্রিগেডের বিরুদ্ধে এখনও ইসরাইল যুদ্ধই শুরু করেনি বলে বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়েছে।

অন্যদিকে ইসরাইলি বাহিনীর বক্তব্য অনুযায়ী, হামাসের সঙ্গে যুদ্ধে তাদের ৬৮২ জন সেনা নিহত এবং ৯ হাজারের বেশি আহত হয়েছে। আহতদের প্রায় ৩৬ ভাগই মানসিক সমস্যায় ভুগছেন। সূত্র: ইরনা